বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন জগন্নাথপুরে বাজার মনিটরিং করলেন পুলিশের এএসপি ধর্মঘট স্থগিত, যান চলাচল শুরু ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই

অনাদিকাল বেঁচে থাকো সামাদ আজাদ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৭
  • ৭২ Time View

তাজউদ্দিন আহমদ:
কোন কল্পকাহিনী নয়। সত্যিকারের অর্থবহ শর্ব্দাবলী রচনা সম্ভারের এক কিংবদন্তী মহানায়কের ঘনিষ্ঠসহযোদ্ধার কথা।
বাবা মা আদর করে ডাকতেন ছমেদ মিয়া। ছোটকাল থেকে প্রখর মেধা শক্তিছিল তাঁর। পল্লীর অজপাড়াগায়ে হাওরপাড়ের বাসিন্দা। নলুয়ার শেষ সীমান্তে ভাটি অঞ্চল বলে খ্যাত ভূরাখালি গ্রামে তার জন্ম। তিনিই স্বাধীনবাংলার প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী উপমহাদেশের অন্যতম কুটনৈতিকবীদ প্রয়াত জাতীয় নেতা আলহাজ্ব আবদুস সামাদ আজাদ।
লোকালয়ে অবহেলিত জনপদ বলে এ অঞ্চলে বৃটিশ শাসনামল থেকে স্বীকৃত। তখনকার যুগে ভূরাখালি গ্রামের কয়েক মাইল এরিয়ার মধ্যে ছিলনা কোন বিদ্যাপীঠ। সেখান থেকে ক্ষণজন্মা, রাজনৈতিক পুরোধা প্রাণ পুরুষ সামাদ আজাদ ওঠে এসেছেন আপন প্রতিভার গুণে।
স্থানীয়সহ জাতীয় রাজনীতির পরিমন্ডলে অত্যন্ত দক্ষ ছিলেন তিনি। খেলোয়ার হিসেবে নিজেকে ঠাঁই করে আপন মহিমায় গনমানুষের হৃদয় জয় করে যিনি রেখে ছিলেন। আবাল বৃদ্ধা বনিতা হৃদয়ে আজও ঠাঁই নাম তিনি আবদুস সামাদ আজাদ।
রাজনৈতিক দলের নেতাকর্মীদের অভিভাবক ছিলেন তিনি। শুধু আওয়ামীলীগের দলীয় নেতাকর্মীদের নয় তাঁর অঞ্চলের সকল রাজনৈতিক নেতাকর্মীরা তাকে অভিভাবক হিসেবে দেখতেন।
আবদুস সামাদ আজাদ দেশ দেশান্তর ছুটে বেড়িয়েছেন মানুষের কল্যানের জন্য। টেকনাফ থেকে তেতুলিয়া সাধারন মানুষের অধিকার আদায়ে লড়াই করেছেন। এমন ভাবছিল কথার বাচনভঙ্গি জনমত গঠনে যেন মহানায়ক। এতো গুনাবলী ছিল তাঁর বৃক্ততার মধ্যে যেন সহজে কোন কিছু আদায়ে মরনাস্ত্র।বিশেষ করে মজলুম (আমজনতার) মন জয় করা যাদু মনে হতো।
আমাদের জগন্নাথপুরের এই কৃতিমান পুরুষ আব্দুস সামাদ আজাদ মুক্তিযুদ্ধে প্রধান সংগঠনের মধ্যে অন্যতম একজন। মুক্তিযুদ্ধকালিন সময় স্বাধীন বাংলাদেশের পতাকা উড়ানোর জন্য যে মুহুুর্তে কুটনৈতিক তৎপরতা বেশী প্রয়োজন সে সময় তিনি বিদেশীদের সমর্থন আদায়ে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বাধীনদেশ বাংলাদেশ করার জন্য দেশ থেকে দেশান্তর ঘুরে সকল কুটনৈতিক তৎপরতার মধ্যে নিয়ে সমর্থন আদায় করেছেন। বিশ্ব রাজনীতির কিংবা রাষ্ট্র পরিচালনার ক্ষেত্রে যে সব কুটনৈতিক কলা কৌশল প্রয়োজনতা ছিল তাঁর মধ্যে। এ জন্য জাতির জনক শেখ মুজিবুর রহমান তাকে স্বাধীন দেশের প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী করেছিলেন। অনেক জাদরেল নেতা থাকা সত্ত্বেও থাকে বঙ্গবন্ধু এ দায়িত্ব অর্পন করেন।
সামাদ আজাদ ছিলেন চিন্তা চেতনার আপাদ-মস্তক মুক্তিযুদ্ধের চেতনা বিশ্বাসী। জাত রাজনৈতিক খেলোয়ার। যে কোন আন্দোলন সংগ্রামে মানুষের পক্ষে অবস্থান গড়ে তুলেছেন। আপোষ করেন নি।
রাজনৈতিক কারনে যৌবনের প্রথম ধাপে কাটিয়েছেন অন্ধকার কারাগারে। বৃটিশ বিরোধী আয়ুব-বিরোধী সর্বোপরি এরশাদের সামরিক শাসনের বিরোধীসহ সকল আন্দোলনে অগ্রনী ভূমিকা পালন করেছেন। পাক আমলে যেমন সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছিল তেমনি জিয়াউর রহমানের শাসনামলেও সম্পত্তি বাজেয়াপ্ত করা হয়েছিল। আয়ুব সরকার পাক শাসনামলে আবদুস সামাদ আজাদের মাথার মুল্যে ৫০ হাজার টাকা ঘোষনা করেছিল।
বার বার কারাগারের প্রকোষ্ট নিপতিত হয়েছিন। তবুও এ নেতা মৌসুমী পাখিদের মতো ক্ষমতার মসনদ পেয়েও নীতির প্রশ্নে াবিচল থেকে আমরণ দল ও দেশের কল্যানে কাজ করেছেন।
দলীয় দুর্দিনে নেতৃত্বের জন্য দলীয় নেতা কিংবা নেত্রীর আনুগত থেকে একবিন্দু সরে যাননি। খামছে ধরা ৭১ এর শকুনরা যখন ৭৫ এর পটপরিবর্তনের রাষ্ট্র ক্ষমতায় বসে নানা কুট কৌশলের প্রচেষ্টা চালায় তখনও অকুতোভয় সৈনিকের মত নিজেকে তুলে ধরেছেন।
নেতাকর্মীদের সাহস যুগিয়েছেন। দলকে ভাঙ্গনের হাত থেকে রক্ষায় অতন্দ্র প্রহরীর মতো দাড়িয়েছিলেন। এ সময় অনেক নেতা নানা প্রলোভনে পথভ্রষ্ট হলেও সামাদ আজাদ ছিলেন নির্ভীক অবিচল।

দীর্ঘ ৬৫ বছরের রাজনৈতিক জীবনের ইতিহাস বড় বিরল ছিল আবদুস সামাদ আজাদের। তিনি স্বদর্পনে যদি কিঞ্চিত পরিমানে মূল্যায়ন করা হয় তা হলে শোষিত বঞ্চিত নীপিড়ীত মানুষের কল্যানে এবং শোষনমুক্ত সমাজ গঠনে ব্রত ছিলেন। অসাম্প্রদায়িক চিন্তা চেতনা নিয়ে দেশ গড়ার স্বপন্ন দেখতেন। তাঁর দেশ প্রেম ও গন মানুষের সম্পৃক্ততা তাকে অনাধিকাল বাচিয়ে রাখবে বলে আমি মনে করি।

লেখক :: তাজউদ্দিন আহমদ
সমকাল প্রতিনিধি
জগন্নাথপুর,উপজেলা।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24