মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:৫৬ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

অনাবাদি জমিতে আবাদ বাড়াতে শস্যের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণ’ প্রকল্পে সিলেটে ৭৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা বরাদ্দ একেনেকে অনুমোদন

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৮ জুন, ২০১৫
  • ৪৩ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক :: অনাবাদি জমিতে আবাদ বাড়াতে শস্যের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণ’ প্রকল্পে সিলেটে ৭৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা বরাদ্দ একেনেকে অনুমোদন হয়েছে। প্রতিবছর দেশের অন্যান্য স্থানের তুলনায় সিলেটে বিপুল পরিমাণ জমি অনাবাদি থাকে। এর কারণ চিহ্নিত করে সুনির্দিষ্ট পরিকল্পনার মাধ্যমে এ বিভাগে অতিরিক্ত ফসল উৎপাদনের পরিকল্পনা নিয়েছে সরকার। এছাড়াও অন্যান্য অঞ্চলের তুলনায় এ বিভাগে শস্যের নিবিড়তা কম। এ নিবিড়তা বৃদ্ধি করতে ‘সিলেট অঞ্চলে শস্যের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণ’ শীর্ষক একটি প্রকল্পও হাতে নিয়েছে কৃষি মন্ত্রণালয়। প্রকল্পটি গত বৃহস্পতিবার জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটির (একনেক) সভায় অনুমোদন লাভ করেছে। প্রকল্পের আওতায় সিলেট বিভাগের ৩০ উপজেলায় কার্যক্রম পরিচালিত হবে।
প্রকল্পের ব্যয় ধরা হয়েছে ৭৪ কোটি ৮৪ লাখ টাকা। তবে এ প্রকল্প প্রণয়নের আগে কোনো ধরনের সম্ভাব্যতা যাচাই করা হয়নি। এছাড়া প্রকল্পের উদ্দেশ্যের মধ্যে টেকসই প্রযুক্তি অভিযোজনের মাধ্যমে কৃষিজমি কাজে লাগানোর কথা বলা হলেও প্রকল্পের প্রধান কাজের বেশিরভাগ অংশ জুড়েই থাকছে শুধু প্রদর্শনী ও মেলা। ফলে প্রকল্পের বাস্তবায়ন নিয়ে রয়েছে শংকা।
কৃষি স¤প্রসারণ অধিদপ্তরের (বিএই) হিসাব মতে, সিলেট অঞ্চলের মোট আবাদযোগ্য জমির প্রায় ২০ শতাংশই অনাবাদি অবস্থায় পড়ে আছে। সেচ সংকট, পাহাড়ি ঢল, আগাম বন্যা, প্রবাসীবহুলতা, শ্রমবিমুখতা, শ্রমিক সংকটসহ নানা কারণে এখানকার জমিগুলো পতিত পড়ে থাকে।
কৃষি কর্মকর্তারা বলছেন, মূলত সেচের অভাবেই সিলেটে বিশাল অংশ জমি পতিত থাকে। এখানকার বেশির ভাগ এলাকার মাটির নিচে গ্যাস ও পাথর। তাই পানি পাওয়া যায় না। সরকারি উদ্যোগে সেচের ব্যবস্থা করলে অনেক জমিই চাষের আওতায় চলে আসত। এছাড়া নিচু এলাকা পানিতে নিমজ্জিত থাকার কারণে আউশ মৌসুমে অনেক জমি অনাবাদি থাকে।
বিএই কর্তৃক সম্পাদিত জরিপ অনুযায়ী, সিলেট অঞ্চলে রবি মৌসুমে ১ লাখ ৬৪ হাজার হেক্টর, খরিফ-১ মৌসুমে ১ লাখ ৮২ হাজার এবং খরিফ-২ মৌসুমে প্রায় ৭১ হাজার হেক্টর জমি পতিত থাকে। প্রকল্পটি বাস্তবায়িত হলে এসব জমি চাষাবাদের আওতায় এনে উৎপাদন বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হবে।

সিলেট অঞ্চলে শস্যের নিবিড়তা বৃদ্ধিকরণ’ শীর্ষক এ প্রকল্পের আওতায় সিলেট, সুনামগঞ্জ, মৌলভীবাজার ও হবিগঞ্জের ৩০টি উপজেলায় প্রকল্পের কার্যক্রম পরিচালিত হবে। প্রকল্পের উদ্দেশ্য হিসেবে উল্লেখ করা হয়, টেকসই কৃষি প্রযুক্তি অভিযোজনের মাধ্যমে কৃষিজমি কাজে লাগিয়ে শস্যের নিবিড়তা ও শস্য উৎপাদন ৫ থেকে ১০ শতাংশ বাড়ানো। এছাড়াও আরো কিছু উদ্দেশ্যে রয়েছে এ প্রকল্পের। এর মধ্যে রয়েছে দক্ষ ব্যবস্থাপনা কৌশল স¤প্রসারণের মাধ্যমে বসতবাড়ির আঙিনায় সবজি ও উদ্যান ফসল চাষাবাদ করে খাদ্য উৎপাদন বাড়ানো; উন্নত জাত, মানসম্পন্ন বীজ ব্যবহার, বালাই ব্যবস্থাপনা, কৃষিভিত্তিক পরিচর্যা ও সেচ ব্যবস্থা উন্নয়নের মাধ্যমে শস্য উৎপাদন বৃদ্ধি এবং ফসল ব্যবধান কমানো।

এছাড়া প্রধান কার্যক্রম হিসেবে বলা হয়েছে, প্রকল্পের উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে দুই হাজার ৪৫০ ব্যাচ কৃষক প্রশিক্ষণ, ২ হাজার ব্যাচ উপকারভোগী কৃষক প্রশিক্ষণ, ৫শ টি মাঠ দিবস, কৃষকদের জন্য ১৬০টি উদ্বুদ্ধকরণ ভ্রমণ, ৪০ ব্যাচ এসএসও প্রশিক্ষণ ও চার ব্যাচ কর্মকর্তা প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা করা হবে। এছাড়া কমলা, মসলা, সবজি, ধান, গম, ভুট্টা, ডাল ইত্যাদি ফসলের ওপর ১৪ হাজার ১১২টি প্রদর্শনীর আয়োজন করা হবে। এর বাইরে জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে কৃষি মেলার আয়োজন করা হবে। কিন্তু শুধু মেলা ও প্রদর্শনীর মাধ্যমে কৃষকরা কতটা উপকৃত হবেন, তা নিশ্চিত নয়। শস্যের উৎপাদন বাড়াতে অথবা আধুনিক কৃষি যন্ত্রপাতি কিনতে কৃষকদের নগদ কোনো সহায়তা দেয়ার ঘোষণাও প্রকল্পটিতে নেই।

এদিকে প্রকল্প প্রণয়নের আগে কোনো সম্ভাব্যতা যাচাই করা হয়নি বলে প্রকল্প প্রস্তাবনায় উল্লেখ করা হয়েছে। এক্ষেত্রে বিএই কর্তৃক ২০১১ সালে পরিচালিত একটি জরিপের ভিত্তিতে অনাবাদি থাকা জমি আবাদের আওতায় আনার কথা বলা হয়েছে।সম্পূর্ণ দেশীয় অর্থায়নে প্রকল্প বাস্তবায়নকাল ধরা হয়েছে চলতি বছরের মার্চ থেকে ২০১৯ সালের জুন পর্যন্ত। প্রকল্প বাস্তবায়ন করবে কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর। সহযোগী সংস্থা হিসেবে কাজ করবে কৃষি বিপণন অধিদপ্তর (ড্যাম) ও বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি)।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24