বৃহস্পতিবার, ১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:০৪ অপরাহ্ন

অপরাধীর ছবি আঁকবে কম্পিউটার

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৫
  • ১৫৪ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক::প্রত্যক্ষদর্শীর বর্ণনা অনুকরণ করে এবার অপরাধীর ছবি আঁকবে (স্কেচ) কম্পিউটার। যতক্ষণ পর্যন্ত প্রত্যক্ষদর্শী সম্ভাব্য ওই অপরাধীর অবয়ব সম্পর্কে নিশ্চিত না করবে ততক্ষণ পর্যন্ত কম্পিউটার ছবি আঁকতেই থাকবে। এরপর ওই ছবির মানুষটির খোঁজে চলবে পুলিশি অভিযান। অপরাধ সংঘটনের পর কোনো অপরাধী তার ব্যবহৃত মোবাইল ফোনটির ব্যবহার বন্ধ কিংবা ভেঙে ফেললেও সমস্যা নেই। শুধু নম্বরটি সংগ্রহের পর অত্যাধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে ওই মোবাইল ফোনে থাকা সব তথ্য সংগ্রহ করা যাবে। এমন সব আধুনিক প্রযুক্তি নিয়ে মাঠে নেমেছে আমেরিকার ফেডারেল ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (এফবিআই) আদলে গড়ে ওঠা ‘পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন’ (পিবিআই)। ‘অপরাধ তদন্তে উৎকর্ষের মাধ্যমে ন্যায়বিচারের অঙ্গীকার’ স্লোগানে গত জুন মাসের মাঝামাঝি সময়ে যাত্রা শুরুর মাত্র দুই মাসের মধ্যেই সাফল্য এনে দিয়েছে বাংলাদেশ পুলিশের নবগঠিত এ সংস্থাটি। ক্যাডার ও নন-ক্যাডারের মাত্র ৯৭০ জনবল নিয়ে ইতিমধ্যেই সংস্থাটির ২৯টি ইউনিট দেশের কয়েকটি জেলায় কাজ শুরু করেছে। দুই মাসেই নিষ্পত্তি করেছে গুরুত্বপূর্ণ ও জটিল ১২০টি মামলা।
পুলিশ সদর দফতর সূত্রে জানা গেছে, সারা দেশে সংঘটিত আলোচিত ও চাঞ্চল্যকর মামলায় অপরাধীদের চিহ্নিত করে দ্রুত শাস্তির আওতায় আনার বিষয়টি মাথায় রেখে ২০১১ সালে ‘পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন’ (পিবিআই) নামে পৃথক তদন্ত ইউনিট গঠনের প্রস্তাব করা হয়। তদন্তাধীন মামলার জট কমাতে মূলত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার ইচ্ছাতেই এ ইউনিট গঠনের সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। ওই সালেই পুলিশ অ্যাক্ট ১৮৬১-এর সেকশন ১২-এর ক্ষমতাবলে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের আদেশে পিবিআই গঠিত হয়। পুলিশ সদর দফতরের ৯৭০ জন জনবল সুপারিশে অর্থ মন্ত্রণালয় প্রথমে ৭০০ জনের জনবল ছাড় দেয়। পরে পিবিআইর জনবল ৯৭০ জনে উন্নীত হলে ১০ জুন যাত্রা শুরু করে বিশেষ এ তদন্ত সংস্থাটি। এ জনবলের মধ্যে একজন ডিআইজি, দু’জন অতিরিক্ত ডিআইজি, ৯ জন পুলিশ সুপার, ৭০ জন অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, ৪ জন সহকারী পুলিশ সুপার, ৩১০ জন ইন্সপেক্টর, ২৮০ জন সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই), ১২১ জন সহকারী সাব-ইন্সপেক্টর (এএসআই), ২৪২ জন কনস্টেবলসহ ৯৭০টি পদ রয়েছে।
প্রথমে আবদুল গনি রোডে অবস্থিত পুলিশ কমান্ড অ্যান্ড কন্ট্রোল সেন্টারের দ্বিতীয় তলায় সংস্থাটির অস্থায়ী কার্যালয় হিসেবে ব্যবহৃত হলেও বর্তমানে প্রধান কার্যালয় ধানমণ্ডিতে। পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশনের (পিবিআই) প্রধান ডিআইজি ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান শনিবার কে বলেন, ঢাকা, চট্টগ্রাম, কুমিল্লা, ফরিদপুরসহ দেশের পুরনো জেলাগুলোতে ২৭টি ইউনিট আপাতত কাজ শুরু করেছে। দুই মাসে আদালত ও পুলিশ সদর দফতরের মাধ্যমে তদন্তের জন্য এ সংস্থাটির কাছে মোট সাড়ে ৭০০ মামলা এসেছে। এসব মামলার মধ্যে ইতিমধ্যেই সংস্থাটি ১২০টির তদন্ত সম্পন্ন করেছে। আদালত এসব মামলার তদন্ত নিয়ে সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছেন। জটিল ও চাঞ্চল্যকর মামলাগুলোর মধ্যে সিলেট ও নরসিংদীর বেশ কয়েকটি মামলার তদন্তে অগ্রগতি এসেছে বলে জানান ওই পুলিশ কর্মকর্তা।
ব্যারিস্টার মাহবুবুর রহমান বলেন, মূলত তিন পদ্ধতিতে তাদের কাছে মামলার তদন্তভার আসার নিয়ম রয়েছে। এর মধ্যে আদালতের নির্দেশনা ছাড়াও পুলিশ সদর দফতর এবং সংস্থাটির নিজস্ব তাগিদে অনুসন্ধান করতে পারবে। তবে পূর্ণাঙ্গভাবে চালুর আগে তারা নিজস্ব তাগিদে কোনো মামলা তদন্তের জন্য নিচ্ছেন না।
খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, সারা দেশে চাঞ্চল্যকর ও জটিল মামলাগুলো তদন্তের জন্য পুলিশের নবগঠিত এ সংস্থাটি আরও ১০৭২ নতুন জনবল চেয়েছে। ডিআইজি মাহবুবুর রহমান জানান, ইতিমধ্যেই এ ব্যাপারে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় ও পুলিশ সদর দফতরের ইতিবাচক সাড়া পাওয়া গেছে। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে আগামী ডিসেম্বরের মধ্যেই এ সংস্থায় নতুন জনবল যোগ দেবে। আর তখন থেকেই সারা দেশে কার্যক্রম শুরু করবে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।
পুলিশ সদর দফতর সূত্র জানায়, প্রায় সাড়ে চার বছর আগে প্রতিষ্ঠা হলেও কী প্রক্রিয়ায় মামলাগুলোর তদন্তভার পিবিআইতে যাবে এবং তা নির্ধারণে কোন পদ্ধতি অনুসরণ করা হবে এ সংক্রান্ত সিদ্ধান্ত না নিতে পারায় দীর্ঘদিন সংস্থাটি কার্যক্রম শুরু করতে পারেনি। গত মার্চে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এ সংক্রান্ত বিধিমালা প্রস্তুতের পর ১০ জুন যাত্রা শুরু করে পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।
সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, প্রতি বছর সারা দেশে গড়ে এক লাখ ৬০ হাজার মামলা হয়। বিধিমালা চূড়ান্ত হওয়ার পর প্রথমদিকে চাঞ্চল্যকর মামলাসহ হত্যা মামলার পাশাপাশি ডাকাতি, ছিনতাইয়ের মামলাগুলোর তদন্ত পর্যায়ক্রমে স্বল্পপরিসরে শুরু করেছে। জনবলসহ লজিস্টিক সাপোর্ট পেলে প্রতি বছর ৭০ হাজার মামলা তদন্ত করার সক্ষমতা রয়েছে নতুন এ ইউনিটের।
ওই সূত্রটি জানায়, রাজধানীর রমনা থানায় হওয়া দুর্নীতি দমন আইনের সাতটি মামলা তদন্ত শেষে সম্প্রতি আদালতে চার্জশিট দিয়েছে পিবিআই। এসব মামলা এর আগে দুর্নীতি দমন কমিশন তদন্ত করে আদালতে চার্জশিট দেয়। তবে মামলাগুলোর তদন্তে অসন্তুষ্টি প্রকাশ করে আদালত তা ফের তদন্তের জন্য পিবিআইকে নির্দেশ দেন। পিবিআই ওই মামলাগুলো তদন্ত শেষে সম্প্রতি চার্জশিট দিয়েছে। সিলেটের একটি চাঞ্চল্যকর হত্যা মামলা তদন্ত শেষে সংশ্লিষ্ট থানা পুলিশ প্রধান আসামিকে বাদ দিয়ে আদালতে চার্জশিট দাখিল করে। বাদী ওই চার্জশিটের বিরুদ্ধে নারাজি আবেদন জানালে আদালতের নির্দেশে সম্প্রতি ওই মামলাটি পিবিআই তদন্ত করে চার্জশিট দিয়েছে। সূত্র বলেছে, ওই চার্জশিটে আদালত সন্তুষ্টি প্রকাশ করেছে।
পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই) সূত্রে জানা গেছে, তদন্তের পর আদালতে দাখিলের সময় প্রতিটি মামলার সঙ্গে চেকলিস্ট দাখিল করা বাধ্যতামূলক হয়েছে। এর মধ্যে চার্জশিট দাখিলের সময় সাক্ষী, বাদী, ময়নাতদন্তকারী চিকিৎসকসহ তদন্তকারী কর্মকর্তা আদালতে কি কি তথ্য দেবেন তার ফিরিস্তি দেয়া হয়। এ কারণে সংশ্লিষ্ট আদালতের অতিরিক্ত সময় নষ্ট হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।
পুলিশ সদর দফতরের পরিবহন শাখা সূত্রে জানা গেছে, পিবিআইর জন্য ৬৪টি জেলার জন্য একটি করে ডাবল কেবিন পিকআপ গাড়ি বরাদ্দ রয়েছে। তবে এই বরাদ্দের সব গাড়ি এখনও সরবরাহ করা হয়নি বলে পিবিআই সূত্রে জানা গেছে। অন্যদিকে সংস্থাটির জন্য বিদেশ থেকে অত্যাধুকি প্রযুক্তির বিপুল পরিমাণ যন্ত্রপাতি আমদানি করা হয়েছে। নির্ভুল তদন্তের জন্য সংস্থার সদস্যদের বিদেশ থেকে প্রশিক্ষণ দেয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24