রবিবার, ২৫ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:৫৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌকাবাইচ:এবার সোনার নৌকা,সোনার বৈঠা জিতল কুতুব উদ্দিন তরী জগন্নাথপুরে সড়ক সংস্কার-অবৈধ যান অপসারণের দাবীতে আন্দোলনের হুঁশিয়ারি মালিক,শ্রমিক নেতারদের জগন্নাথপুরে এনজিও সংস্থা আশা’র উদ্যোগে তিনদিন ব্যাপি ফিজিওথেরাপী চিকিৎসা ক্যাম্প শুরু জগন্নাথপুরে মারামারি মামলাসহ বিভিন্ন ওয়ারেন্টের ১১ আসামী গ্রেফতার জগন্নাথপুরে পুকুরের পানিতে ডুবে শিশুর মৃত্যু জগন্নাথপুরে ডেঙ্গু প্রতিরোধে সচেতনতামুলক সভা অনুষ্ঠিত ২১ আগস্টের মাস্টারমাইন্ডদের সর্বোচ্চ শাস্তি নিশ্চিত করতে আপিল করা হবে: ওবায়দুল কাদের ধর্মীয় শিক্ষার প্রয়োজন চিরদিন ৭১’র বয়স ৫ মাস,তবুও মানবতাবিরোধী অপরাধে সাংবাদিকের বিরুদ্ধে মামলা,প্রত্যাহারের দাবী ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ

অবশেষে সিলেট সরকারী কলেজে চালু হচ্ছে অনার্স কোর্স

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৪ আগস্ট, ২০১৭
  • ১০২ Time View

জগন্নাথপুর টুয়ে্টফোর ডটকম ডস্ক ::
দীর্ঘ ৫৫ বছরের অপেক্ষার পর অবশেষে সিলেটে সরকারী কলেজে চালু হচ্ছে চার বছর মেয়াদী স্নাতক(সম্মান) কোর্স।

২০১৭-১৮ সেশনের স্নাতক(সম্মান) কোর্সে শিক্ষার্থী ভর্তির আবেদন প্রক্রিয়ায় সিলেট সরকারী কলেজের শিক্ষার্থীরা ভর্তির জন্য আবেদন করতে পারবে বলে জানিয়েছেন সিলেট সরকারী কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক আতাউর রহমান। বৃহস্পতিবার থেকে এ ভর্তি প্রক্রিয়া শুরু হবে।

১৯৬৪ সালে প্রতিষ্টা হওয়া বর্তমান সিলেট সরকারী কলেজের প্রতিষ্ঠাকালীন নাম ছিলো ‘মুরারিচাঁদ(এমসি) ইন্টামিডিয়েট কলেজ’। পরবর্তীতে ১৯৮৮ সালে এর নাম পরিবর্তন করে ‘সিলেট সরকারী কলেজ’ করে শিক্ষা মন্ত্রনালয়। প্রতিষ্ঠা পাওয়ার পর থেকে এইচএসসি’র পাশাপাশি ৩ বছর মেয়াদী বিএ, বিএসএস ও বিবিএ ডিগ্রী কোর্সে পাঠদান চলছিলো।

তবে দেরীতে হলেও সিলেটের শিক্ষার্থীদের উচ্চ শিক্ষার মানোন্নয়নে সরকারী কলেজে চার বছর মেয়াদী কোর্স চালু হওয়াকে যুগান্তকারী সিদ্ধান্ত বলছেন সংশ্লিস্টরা।

২০১৭-১৮ সেশনের স্নাতক(সম্মান) শ্রেণীতে পাঁচটি বিভাগের পাঠদানের অনুমতি পেয়েছে সিলেট সরকারী কলেজ, চালু হওয়া স্নাতক(সম্মান) কোর্সের পাঁচটি বিষয় হচ্ছে ব্যবস্থাপনা, হিসাববিজ্ঞান, রাষ্ট্রবিজ্ঞান, অর্থনীতি ও বাংলা। তবে দুই-একদিনের মধ্যে মন্ত্রনালয় থেকে বিষয়গুলোতে কতজন শিক্ষার্থী ভর্তি করা যাবে তা জানা যাবে বলে জানিয়েছেন কলেজ অধ্যক্ষ অধ্যাপক আতাউর রহমান।

অনার্স কোর্স চালুর পর কলেজ কর্তৃপক্ষ জনবল সংকটে পড়বে কিনা জানতে চাইলে অধ্যক্ষ বলেন, কলেজে ক্লাসের কোনো সংকট নেই। আর কলেজের উপাধ্যক্ষের পদ, দশটি সহযোগী অধ্যাপক, দশটি প্রভাষক ও ৪টি তৃতীয়-চতুর্থ শ্রেণীর কর্মচারীর পদসহ মোট পঁচিশটি পদ সৃষ্টির কাজ বর্তমানে মন্ত্রনালয়ে প্রক্রিয়াধীন আছে এবং এটার কাজ দ্রুত গতিতে চলছে। তবে আপাতত স্নাতক(সম্মান) প্রত্যেকটি বিভাগে সাতজন করে শিক্ষক দেয়া হবে সংযুক্তি, খন্ডকালীন শিক্ষক হিসেবে।

পাঁচটি বিষয়ের অনার্স চালুর পর পাঠদানে শ্রেণী কক্ষের কোনো সংকট হবে না জানিয়ে তিনি বলেন, আমাদের পর্যাপ্ত পরিমাণে শ্রেণীকক্ষ রয়েছে, কলেজ ক্যাম্পাসে দশ তলা ভবন নির্মাণের বিষয়টি জাতীয় অর্থনৈতিক পরিষদের নির্বাহী কমিটিতে(একনেক) অনুমোদন হয়েছে। শীঘ্রই শিক্ষামন্ত্রী এটির ভিত্তিপ্রস্তর স্থাপনের জন্য আসবেন বলে জানান তিনি।

গত বছরের মার্চ মাসে সরকারী কলেজের অধ্যক্ষের দায়িত্ব নেয়া অধ্যাপক আতাউর রহমান বলেন, আমাদের প্রতিষ্ঠানের সকল শিক্ষক-শিক্ষার্থী ও কর্মচারীদের সমন্বিত প্রচেষ্ঠায় আমরা সর্ব্বোচ্চ অভিভাবকের নজরে বিষয়টি আনতে সক্ষম হয়েছি যার ফলে এ কলেজে ২০১৭-১৮ সেশন থেকে স্নাতক(সম্মান) কোর্স চালু হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24