বুধবার, ২২ মে ২০১৯, ০৩:১৭ পূর্বাহ্ন

‘আইএস মানে ইসলামিক স্টেট নয়, আমি ইসরায়েলি স্টেট বুঝি’

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২৮ এপ্রিল, ২০১৯
  • ৩০ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::

মধ্যপ্রাচ্য ভিত্তিক জঙ্গি গোষ্ঠী আইএস সম্প্রতি শ্রীলঙ্কায় চালানো সিরিজ বোমা হামলার দায় স্বীকার করার পর আসাদুজ্জামান নূরের একটি ভিডিও অনলাইনে ভাইরাল হয়ে পড়ে। ভিডিওটিতে তাকে আইএস নিয়ে বক্তব্য দিতে দেখা যায়।

ভিডিওতে সাবেক সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূরকে বলতে দেখা যায়, আইএস মানে ইসলামিক স্টেট নয়, আমি ইসরায়েলি স্টেট বুঝি। ভবিষ্যতে যদি আবিষ্কার হয়, আইএসের মূল হোতা ইসরায়েল তাহলে আমি বিস্মিত হবো না!

ভিডিওটি সম্পর্কে খোঁজ নিয়ে জানা যায় ২০১৬ সালে নর্থ সাউথ বিশ্ববিদ্যালের জাতীয় শোক দিবসে এসব কথা বলেন তিনি।

এছাড়াও তিনি মৌলভিবাজারে একই বছর আয়োজিত এক শ্রমিক সমাবেশেও এমন বক্তব্য দিতে দেখা যায়।

তিনি স্পষ্ট করে বলেন, আমি যতোটুকু বুঝি এখন সবার মুখে মুখে আইএস।

আইএসরা জার্মান, আমেরিকা, পাকিস্তানসহ বিশ্বের নানান দেশে হামলা চালায়। কিন্তু আমরা জানি ইসলামের সবচেয়ে বড় শত্রু হলো ইসরায়েল। এই আইএসদের ঘাটি সিরিযায়। সেখান থেকে ইসরায়েল মাত্র ৫০ মাইল দুরে। তারা কেন ইসরায়েলে গিয়ে বোমা ফাটায় না?

তিনি বলেন, এজন্য আমি আইএস মানে ইসলামিক স্টেট বলি না। আমি বলি আইএস মানে ইসরায়েল স্টেট। এরা সারা পৃথিবীতে ইসলামের ভাবমূর্তি নষ্ট করার জন্য এমন করছে।

ভিডিওটিতে ইসলাম বিষয়ে তাঁর আরও বক্তব্য পাওয়া যায়। তিনি বলন, রাসুল সা. যখন মক্কা বিজয় করে ফিরছেন তখন পতাকা হাতে একজন সাহাবা বললেন হে রাসুল আল্লাহ আজ তো আমরা সবকিছু শেষ করে ফেলবো।

রাসুল বললেন, আজ তো আমরা তাদের শেষ করতে যাচ্ছি না। আজ আমরা মুহাব্বাতের জন্য যাচ্ছি ভালবাসার জন্য যাচ্ছি।

বিজয়ের আনন্দে শত্রুপক্ষের জন্য এমন কথা বলা খুবই স্বাভাবিক। আমরা যখন মুক্তিযুদ্ধ থেকে বিজয়ীবেশে ফিরছিলাম তখন আমাদের মধ্যেও এমন উত্তেজনা কাজ করেছে। অনেকে অঘটনও ঘটিয়েছে বলেও মন্তব্য করেন তিনি।

তিনি বলেন আমি খুব ছোট মানুষ এ নিয়ে আমার দীর্ঘ বক্তব্য দেওয়ার কোনো সুযোগ নেই। সবশেষে বলবো এখানে যারা তারা মাদরাসায় পড়েছে না ইংলিশ মিডিয়ামে পড়েছে সেটা দেখার বিষয় না তারা তো আমাদেরই সন্তান। ধান তো সেই জমিতে হয় যেটা ধান হওয়ার উপযোগী।

ধান হওযার আবহাওয়া না থাকলে সেই জামিতে ধান হবে না। তাই আমাদের দেখতে হবে এই আবহাওয়াটা কারা সৃষ্টি করছে।

এই ক্ষেত্রটা কারা সৃষ্টি করছে সেটা জানা সবচেয়ে জরুরী।এবং আমাদের সন্তানরা যেন সেই দিকে ধাবিত না হয়, সেদিকে না যায় এটা খেয়াল রাখতে হবে আমাদেরই।

প্রসঙ্গত, আসাদুজ্জামান নুর অভিনয় জগত থেকে রাজনীতিতে আসা একজন পরিচিত ব্যাক্তি। তিনি ১৯৬৩ সালে পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নে যোগদানের মাধ্যমে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজনীতিতে যোগদান করেন।

১৯৬৫ সালে তিনি নীলফামারী কলেজের ছাত্র সংসদের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। তিনি পূর্ব পাকিস্তান ছাত্র ইউনিয়নের কেন্দ্রীয় কমিটির সাংস্কৃতিক সম্পাদক হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন।

১৯৭১ সালের মহান মুক্তিযুদ্ধে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেছেন তিনি, পরবর্তীতে দেশ স্বাধীনের পর কমিউনিস্ট পার্টিতে যোগদান করেন।

দীর্ঘদিন প্রত্যক্ষ রাজনীতি থেকে নিজেকে বিরত রেখে সংস্কৃতি কর্মী হিসেবে নানান সামাজিক-সাংস্কৃতিক আন্দোলনে নিজেকে নিয়োজিত রাখেন এবং স্বৈরাচার বিরোধী আন্দোলন ও যুদ্ধাপরাধীদের বিচারেরর দাবীতে শহীদ জননী জাহানারা ইমামের সঙ্গে আন্দোলনে সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করেন।

১৯৯৮ সালের মাঝামাঝি পর্যায়ে তিনি আবারও প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে যুক্ত হন এবং বাংলাদেশ আওয়ামী লীগে যোগদান করেন।

২০০২ সালে বাংলাদেশ আওয়ামীলীগের প্রচার সম্পাদক হিসেবে নির্বাচিত হন এবং পরবর্তীতে ২০০৯ সালে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংস্কৃতিক সম্পাদকের দায়িত্ব লাভ করেন।

আসাদুজ্জামান নূর নীলফামারী-২ আসন থেকে ২০০১, ২০০৮ এবং ২০১৪ সালে সংসদ সদস্য হিসেবে নির্বাচিত হন।

৯ম জাতীয় সংসদের বিভিন্ন সংসদীয় স্থায়ী কমিটিতে সদস্য হিসেবে তিনি দায়িত্ব পালন করেন। ২০১৩ সালের ৫ জানুয়ারি অনুষ্ঠিত ১০ম জাতীয় সংসদ নির্বাচনে জয়ী হয়ে বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ সরকার গঠন করবার পর ১২ই জানুয়ারি গঠিত মন্ত্রীসভায় সংস্কৃতি বিষয়ক মন্ত্রী হিসেবে দায়িত্বভার গ্রহণ করেন তিনি। ২০১৮ সালের একাদশ নির্বাচনে তিনি একই আসন থেকে পুনরায় সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন।

সৌজন‌্যে-কালের কণ্ঠ

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24