রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা বেড়াতে গিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল জগন্নাথপুরের এক যুবকের মাথায় ৪ ইঞ্চি লম্বা শিং এই বৃদ্ধের! চাঁদাবাজির অভিযোগ দুই যুবলীগ নেতা গ্রেফতার দিরাইয়ে বিদেশীসহ গ্রেফতার-২ জগন্নাথপুর উপজেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন সংর্ঘষে নিহত ২,দ. সুনামগঞ্জর হরিপুর এখন পুরুষ শূণ্য

আওয়ামীলীগকে ডুবাল আওয়ামীলীগ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৮ মার্চ, ২০১৭
  • ২৯ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচেন প্রার্থীদের জয় পরাজয় নিয়ে চলছে চুলছেড়া বিশ্লেষন। আওয়ামীলীগের ঘরের আগুনে পুড়েছে আওয়ামীলীগ। নিজেদের আভ্যন্তরিন কোন্দল আর নিজ দলের বিদ্রোহী প্রার্থীর কারনে বিএনপির প্রার্থীর বিজয়ী হয়েছে বলে আওয়ামীলীগের নেতাকর্মীরা মনে করছেন। গত সোমবার অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাচনে বিএনপির দলীয় মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আতাউর রহমান আওয়ামীলীগ মনোনিত চেয়ারম্যান প্রার্থী আকমল হোসেন কে পরাজিত করে বিজয়ী হন। এ জয় পরাজয় নিয়ে এখন চলছে নেতাকর্মীদের মধ্যে নানা বিশ্লেষন।

দলীয় নেতা কর্মীরা জানান, দীর্ঘদিন ধরে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগ দু’ধারায় বিভক্ত। স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম,এ মান্নান ও জগন্নাথপুরের আওয়ামীলীগের অভিভাবক জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি সিদ্দিক আহমদের নেতৃত্বে উপজেলা আওয়ামীলীগের দলীয় কার্যক্রম চলছে আসছে। অপর দিকে প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদের পুত্র আজিজুস সামাদ ডন সমর্থিত আওয়ামীলীগের অপর একটি অংশ রয়েছে। সদ্য অনুষ্ঠিত উপজেলা নিবার্চনে আওয়ামীলীগের দলীয় মনোনয়ন পান সংগঠনের সভাপতি উপজেলা পরিষদের বর্তমান চেয়ারম্যান আকমল হোসেন। অপর দিকে ডন বলয় থেকে দলীয় মনোনয়ন না পাওয়ায় ওই গ্রুপের কোন নেতাকর্মী নির্বাচন প্রচারনায় অংশ নেয়নি। তাদের ভূমিকা ছিল রহস্যজনক। অন্যদিকে তৃনমূল থেকে আওয়ামীলীগের একাধিক প্রার্থী নাম উঠে আসলেও আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নির্বাচন বোর্ডে একক প্রার্থী হিসেবে আকমল হোসেনের নাম প্রেরণ করায় মনোনয়ন বঞ্চিত দলের সাংগঠনিক সম্পাদক উপজেলা পরিষদের বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে নির্বাচনে অংশ নেন। দলের বিরুদ্ধে অবস্থান নিয়ে নিবার্চনে অংশ গ্রহন করায় সাংগঠনিক বিধি লঙ্গনের অভিযোগে উপজেলা আওয়ামীলীগ দল থেকে বহিস্কার করা হয় মুক্তাদীর আহমদ মুক্তাকে। অপর দিকে বিভক্ত উপজেলা বিএনপির নেতা কর্মীরা দলীয় প্রার্থীর পক্ষে পৃথক পৃথকভাবে প্রচারনা করলেও দলের প্রার্থীর বিপক্ষে তারা অবস্থান নেন নি। আওয়ামীলীগের অধিকাংশ নেতাকর্মীরা ‘আকমল হঠাও’ এ শ্লোগানে ছিল ব্যস্ত। এছাড়া বিদ্রোহী প্রার্থীর পক্ষেও কিছু কিছু নেতাকর্মী প্রচারনায় অংশ নেন।

এ নির্বাচনে স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম,এ মান্নান বলয়ের দুই চেয়ারম্যান প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি আকমল হোসেন ও বিদ্রোহী প্রার্থী উপজেলা আওয়ামীলীগ সাংগঠনিক সম্পাদক মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা প্রতিদ্বন্ধ¦ীতা করায় এ সুযোগকে কাজে লাগিয়ে ডন সমর্থকরা দুই প্রার্থীকেই পরাজয় দেখতে নির্বাচনী মাঠে আকমল হোসেন ও মুক্তাদীর আহমদ মুক্তার বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালায়। যা ভোটের রাজনীতিতে প্রভাব ফেলে। বিগত জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আজিজুস সামাদ ডনের বিপক্ষে অবস্থান নিয়ে এম,এ মান্নানের পক্ষে প্রচারনায় অংশ নেন আকমল হোসেন ও মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা। এর পর থেকেই ডন বলয়ের অধিকাংশ সমর্থন দীর্ঘদিন ধরে ভিতরে ভিতরে জ্বলছিল।

নির্বাচনী মাঠে ডন বলয়ের কোন প্রার্থী না থাকায় মান্নান বলয়ের দু প্রার্থীর বিপক্ষে প্রতিশোধ নেয়ার সুযোগ পায় ডন সমর্থকরা। তারা কোন প্রার্থীর পক্ষে সক্রিয় না থাকলেও আওয়ামীলীগের দু’প্রার্থীর বিরুদ্ধে নানা অপপ্রচার চালায়।

নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন আওয়ামীলীগ নেতা জানান, আওয়ামীলীগকে ডুবিয়েছে দলীয় আভ্যন্তরিন কোন্দল। মান্নান ও ডন বলয়ের আভ্যন্তরিন কোন্দলের শিকার হয়ে আওয়ামীলীগের ঘাঁটি হিসেবে পরিচিত জগন্নাথপুরে আওয়ামীলীগ প্রার্থীকে লজ্জাজনকভাবে হারতে হয়েছে।
জগন্নাথপুরের একজন শিক্ষক নিজের পরিচয় না ছাপার অনুরোধ জানিয়ে বলেন,‘জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আওয়ামী লীগের কিছু কর্মীই শ্লোগান তুলেছিলেন ‘আকমল ঠেকাও’ এরা কোথাও বলেছে আকমলকে না দিয়ে ধানের শীষে ভোট দাও, কোথাও বলেছে স্বতন্ত্র প্রার্থীকে আনরসে ভোট দাও, আবার কোথাও বলেছে ভোট কেন্দ্রেই যেও না।’
জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক রেজাউল করিম রিজু বলেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,‘নির্বাচনে আজিজুস সামাদ ডন সমর্থকরা দলীয় প্রার্থীকে ভোট দেয়নি। পৌর মেয়র আব্দুর মনাফ উপজেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি। তিনি একদিনও প্রচারণায় যোগ দেননি। কাউকে নৌকায় ভোট দেবার জন্যও বলেননি। অথচ. আব্দুল মনাফকে যখন আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী করা হয়েছিল, আকমল হোসেনসহ আমরা ঘরে ঘরে গিয়ে নৌকা’র জন্য ভোট চেয়েছি। দলের এসব দায়িত্বশীলদের বিরোধীতা এবং উপজেলা সাংগঠনিক সম্পাদক যাকে নির্বাচনের আগে বহিস্কার করা হয়েছে তিনি (মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা) বিদ্রোহী প্রার্থী হওয়ায় দলীয় প্রার্থীর ভোট কমেছে।

দলের প্রার্থীর পক্ষে প্রচারণায় না থাকার অভিযোগ প্রসঙ্গে জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ বলেন,‘দলীয় প্রার্থীর বিরোধীতা করেছি, এমন প্রমাণ কেউ দিতে পারবে না। আমি আকমল হোসেনের কর্মী নই। আমি আমার মতো কাজ করেছি। আকমল সাহেব আমার গ্রামে গিয়ে সভা করেন, আমাকে ডাকেন না। ইচ্ছে করেই আমাদের সরিয়ে রাখা হয়। তবুও দল করি, আত্মীয়-স্বজনকে ভোট দেবার কথা বলেছি।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24