বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯, ০৪:২৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় কে ফুলেল শ্রদ্ধায় চীরবিদায় সিলেটে হিরন মাহমুদ নিপু আটক তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে ছাত্রদলের এতিমদের মধ্যে খাদ্য বিতরণ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত সসীমের অসহায়ত্ব -মোহাম্মদ হরমুজ আলী তারেক জিয়ার জন্মদিন উপলক্ষে জগন্নাথপুরে বিএনপির দোয়া মাহফিল পরিকল্পনামন্ত্রী এমএ মান্নান জগন্নাথপুরে কাল আসছেন জগন্নাথপুরে বাজার মনিটরিং করলেন পুলিশের এএসপি ধর্মঘট স্থগিত, যান চলাচল শুরু ঢাকা-চট্টগ্রাম-সিলেট মহাসড়কে প্রতিকূলতা উপেক্ষা করে নেদার‌ল্যান্ডসের রাজধানীতে প্রথমবার মাইকে আজান জগন্নাথপুরের কৃতি সন্তান অতিরিক্ত সচিব শিশির রায় আর নেই

আজ বাঙালির প্রাণের উৎসব শুভ নববর্ষ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৪ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১৬৮ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক::মুছে যাক গ্লানি, ঘুচে যাক জরা/অগি্নস্নানে শুচি হোক ধরা/ এসো, এসো, এসো হে বৈশাখ এসো এসো…’ আজ পহেলা বৈশাখ; বাঙালির উৎসবের দিন। পুরনো বছরের সব অপ্রাপ্তি, বেদনা মুছে ফেলে নতুন জীবনে সম্ভাবনার শিখা জ্বালিয়ে অমলিন আনন্দে মেতে ওঠার দিন। লাখো প্রাণের স্পন্দনে প্রথম সূর্য কিরণের সঙ্গে জেগে উঠবে নতুন বাংলা বছর। আজ পহেলা বৈশাখ, বঙ্গাব্দ ১৪২২। নতুন বছরের পরিক্রমা শুরু হলো বাঙালির নিজস্ব বর্ষপঞ্জিতে। বাংলা ভাষাভাষীর জীবনে এলো এক অমলিন আনন্দের দিন।
ভোর থেকেই বাঁধভাঙা উচ্ছ্বাস আর আবেগের আতিশয্যে ভাসবে বাঙালি। চাওয়া-পাওয়া, আনন্দ-বেদনা, হাসি-কান্নার খেরোখাতার হিসাব চুকিয়ে জীবন-অঙ্কের সরল সমীকরণে আজ থেকে যুক্ত হবে আগামী এক বছরের নানা পরিকল্পনা। বৈশাখের শঙ্খধ্বনিতে জেগে উঠবে গ্রাম-গঞ্জ-শহর-বন্দর। শুধু নগরই নয়, গ্রামের অলিগলিতেও চলবে চিরায়ত বাঙালির অসাম্প্রদায়িক মিলনমেলা। অর্থনীতির প্রাণসঞ্চারকারী ছোট-বড় হিসাবের খাতাটিও আজ নবীন। চলবে মিষ্টিমুখ করার ধুম, চলবে শুভ হালখাতা। আর নতুন সূর্যের আলোয় গা ভাসাতে আবাল-বৃদ্ধ-বণিতা নতুন পোশাক পরে, মুখে রঙ লাগিয়ে বরণ করে নেবে নতুন বছরকে। বলবে স্বাগতম ১৪২২।
আজ এক প্রেরণার দিনও। ধর্ম-বর্ণ নির্বিশেষে সর্বস্তরের মানুষ এক অভিন্ন হৃদয়াবেগ নিয়ে মিলিত হবে একই উপলক্ষে। পহেলা বৈশাখ ছাড়া এত বড় সর্বজনীন উৎসবের উপলক্ষ আর নেই। এই উৎসবের মধ্য দিয়ে বাঙালি তার আপন সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের আলোকে জাতিসত্তার পরিচয়কে নতুন তাৎপর্যে উপলব্ধি করে গৌরব বোধ করে। এই গৌরব ও চেতনাই বাঙালিকে প্রেরণা জুগিয়েছে আপন অধিকার প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে।
রাজধানী ঢাকাসহ সারাদেশের নানা বয়সী মানুষ সাড়ম্বরে উৎসবের আনন্দে মেতে উঠবে। পোশাক-পরিচ্ছদ, খাওয়া-দাওয়া, গানবাদ্য সবকিছুতেই প্রাধান্য পাবে বাঙালিয়ানা। আড্ডা, আমন্ত্রণ, উচ্ছ্বাসে কেটে যাবে দিনটি। বিশেষত, ঢাকায় শহুরে নাগরিকদের গৎবাঁধা জীবনযাত্রায় যোগ হবে ভিন্নতার স্বাদ। সকালেই নগরবাসী ঘর থেকে বেরিয়ে পড়বে সুসজ্জিত হয়ে। নারীরা পরবেন লাল-সাদা শাড়ি, পুরুষের পরনে নকশা করা পাঞ্জাবি ও ফতুয়া। বাবা-মায়ের সঙ্গে থাকবে গালে, বাহুতে আলপনা অাঁকা ফুটফুটে শিশুরা।
রমনার বটমূলে ছায়ানটের প্রভাতী গানের আসর, চারুকলায় মঙ্গল শোভাযাত্রা, রবীন্দ্রসরোবরে গানের আসর, বাংলা একাডেমিতে বৈশাখী মেলা। শহরজুড়ে আরো নানা আয়োজন। নবীন গ্রীষ্মের প্রখর তাপ উপেক্ষা করে পথে পথে ঘুরে, কখনো বা রমনা-সোহরাওয়ার্দী-বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসের গাছতলায় বসে তুমুল আড্ডায় মেতে কেটে যাবে উৎসবের বেলা।
বরাবরের মতো এবারো বৈশাখ বরণের মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা অনুষদ। ‘অনেক আলো জ্বালতে হবে মনের অন্ধকারে’ সস্নোগানে এবারের আয়োজনে বিভিন্ন ধরনের মুখোশ ছাড়াও শোভাযাত্রায় থাকবে হাঁড়ি, হাঁস, লক্ষ্মী পেঁচা, পাখি, বাঘসহ নানা ধরনের প্রতিকৃতি।
আজ রমনার বটমূলে ছায়ানটের বৈশাখের প্রভাতী অনুষ্ঠানে যোগ দেয়ার পাশাপাশি চারুকলার মঙ্গল শোভাযাত্রা বৈশাখকে মহিমান্বিত করে তুলবে জাতির কাছে। রমনার বটমূল থেকে সোহরাওয়ার্দী উদ্যান, চারুকলা, টিএসসি, ছবির হাট, ধানম-ির রবীন্দ্র সরোবর, পুরান ঢাকার ভিক্টোরিয়া পার্কসহ রাজধানীর সর্বত্রই কাকডাকা ভোর থেকে পশ্চিমাকাশের সূর্য অস্তমিত না হওয়া পর্যন্ত বৈশাখী উন্মাদনায় হারিয়ে যাবে সব পেশার সব ধর্মের মানুষ। বরাবরের মতো এবারো চারুকলার মঙ্গল শোভাযাত্রা, ছায়ানটের রমনার বটমূলের প্রভাতী অনুষ্ঠান বৈশাখ উদযাপনের সবচেয়ে বড় আয়োজন হিসেবে তাদের প্রস্তুতি ইতোমধ্যে সম্পন্ন করেছে। বৈশাখ উদযাপনের অংশবিশেষ হিসেবে চারুকলা ও ছায়ানট গতকাল নানা বর্ণাঢ্য সাংস্কৃতিক আয়োজন ও চৈত্রসংক্রান্তির মধ্য দিয়ে পুরনো বছর ১৪২১-কে বিদায় জানিয়েছে।
বাংলা সনের প্রবর্তন কবে হয়েছিল, কে তার প্রবর্তক, তা নিয়ে প-িতমহলে আছে নানা বিতর্ক। বেশির ভাগ মানুষেরই মত, মোগল সম্রাট আকবর এর প্রবর্তক। তিনি ১৫৫৬ খ্রিস্টাব্দে, হিজরি ৯৬৩ সালে যে ‘তরিক-ই-ইলাহি’ নামের নতুন সনের প্রবর্তন করেছিলেন দিলি্লতে, তখন থেকেই আঞ্চলিক পর্যায়ে বাংলা সনের গণনা শুরু হয়েছিল। তবে রাজা শশাঙ্ক, সুলতান হোসেন শাহ ও তিব্বতের রাজ স্রংসনকেও বাংলা সনের প্রবর্তক বলে মনে করেন কেউ কেউ। ‘সন’ শব্দটি আরবি এবং ‘সাল’ শব্দটি ফারসি। এই শব্দ দুটির কারণে বাংলা সন বা সাল মুসলিম শাসকদেরই প্রবর্তিত বলে প-িতরা মনে করেছেন। বৈদিক যুগে অঘ্রাণকে বছরের প্রথম মাস বলে গণ্য করা হতো। তবে এই অঞ্চলের চাষাবাদের সঙ্গে মিলিয়ে খাজনা আদায়ের সুবিধার্থে ফসলি সন হিসেবে বৈশাখকেই বছরের প্রথম মাস ধরে বাংলা সনের গণনা শুরু হয়েছিল। সুবেদার মুর্শিদ কুলি খানের সময়ে বৈশাখ মাসের শুরুতে খাজনা আদায়কে কেন্দ্র করে পহেলা বৈশাখে এক ধরনের আর্থসামাজিক আনন্দ-উৎসবের সূচনা হয়েছিল বলে গবেষকরা মনে করেন।
বছরের প্রথম দিনে আনন্দ-উৎসবের মধ্য দিয়ে নতুন বছরকে বরণ করে নেয়ার রীতি-রেওয়াজ মানবসমাজে সুপ্রাচীন। কৃষিপ্রধান বাংলায় খাজনা আদায়ের সুবিধার্থে বছরের প্রথম দিনে পুণ্যাহের আয়োজন করতেন রাজা বা জমিদাররা। প্রজারা এ দিন খাজনা দিয়ে নতুন বছরের জন্য জমির পত্তন নিতেন। জমিদাররা প্রজাদের জন্য আয়োজন করতেন ভোজের। চিত্তবিনোদনের জন্য যাত্রা, পালা, টপ্পা, গম্ভীরা, বাইজি নাচের সঙ্গে থাকত কৃষি ও কারুপণ্য নিয়ে মেলার আয়োজন। ঘোড়দৌড় বা গরুর গাড়ির দৌড়ের প্রতিযোগিতা করা হতো কোনো কোনো গ্রামে। পুণ্যাহ অনুসরণে অচিরেই আরো একটি অনুষ্ঠানের সংযোগ ঘটেছিল পহেলা বৈশাখে; সেটি হালখাতা। ব্যবসায়ীরা এর আয়োজন করতেন। সাংবাৎসরিক যারা বাকিতে কেনাকাটা করতেন, তাদের আমন্ত্রণ জানানো হতো। উত্তম আহারাদির বন্দোবস্ত করা হতো। দোকানঘরটি ধুয়েমুছে করা হতো ঝকঝকে। ছিটানো হতো পঞ্চবটীর পাতা ভেজানো পবিত্র জল। আপ্যায়ন শেষে পুরনো বাকি শোধ করে খাতকেরা আগামও কিছু জমা করে যেতেন নতুন খাতায়। পুণ্যাহ ও হালখাতা ছিল মূলত অর্থনীতিনির্ভর অনুষ্ঠান। ১৯৫০ সালে জমিদারি প্রথা বিলুপ্ত হলে পৃষ্ঠপোষকতার অভাবে পুণ্যাহ আয়োজন বন্ধ হয়ে যায় এবং হালখাতাও তার জৌলুশ হারাতে থাকে।
প্রাচীন ও মধ্যযুগের সাহিত্যে পহেলা বৈশাখ উৎসবের কোনো বর্ণনা পাওয়া যায় না। বাঙালির বৈশাখী উৎসব একেবারেই আধুনিক কালের সংযোজন। বিশেষত, কবিগুরু রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর তার গান ও কবিতায় বৈশাখকে তুলে ধরেছেন নতুন রূপে। খরতপ্ত বৈশাখের অন্তর্নিহিত শক্তিকে আহ্বান করেছেন জীর্ণ পুরনোকে সরিয়ে দিতে। তিনিই বৈশাখকে চিরকালের জন্য বাঙালির চেতনায় স্থান করে দিয়ে গেছেন সৃজন, নবীনতা, প্রেরণা ও আনন্দের অনিঃশেষ উৎস হিসেবে।
ব্রিটিশ শাসন অবসানের পর সেই চেতনা বাঙালিকে উদ্বুদ্ধ করেছে পাকিস্তানি শোষণ-শাসনের বিরুদ্ধে আন্দোলন-সংগ্রামে। অতীত ঐতিহ্যের গৌরব, সংস্কৃতির প্রতি অনুরাগ, জাতিসত্তার চেতনা পহেলা বৈশাখের উৎসবকে নানা পরিবর্তনের মধ্যে পরিণত করেছে বাঙালির জীবনের প্রধান উৎসবে।
আজ সরকারি ছুটি। পত্রপত্রিকাগুলো নববর্ষ উপলক্ষে প্রকাশ করেছে বিশেষ সংখ্যা। বেতার ও টেলিভিশন চ্যানেলগুলো সমপ্রচার করছে বিশেষ অনুষ্ঠান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24