সোমবার, ১৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৯:২৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
শালুকের ঠোঁটে ফুটে বিজয় || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুর উপজেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন জগন্নাথপুরে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার সম্পন্ন, ১২টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে পুরস্কৃত জগন্নাথপুরে প্রবাসি সংগঠনের উদ্যেগে দরিদ্র মানুষের মধ‌্যে ত্রাণ বিতরণ দিরাইয়ে সংঘর্ষ, গুলিতে নিহত ১, গুলিবিদ্ধসহ আহত ২০ ফ্রান্স আওয়ামী লীগের উদ্যাগে শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস পালিত ভারতীয় মুসলিমদের পাশে থাকার আহবান ভারত থেকে ৯ পণ্য আমদানিতে নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার বাংলাদেশের সমাজ মেরামতের দায়িত্ব আলেমদের জগন্নাথপুরে ব্রিটিশ বাংলা এডুকেশন ট্রাস্টের রিসোর্স সেন্টারের কাজ পরিদর্শনে ট্রাস্টের প্রতিনিধিদল

আজ মহান বিজয় দিবস পালিত হচ্ছে

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৬ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ২৬৯ Time View

স্টাফ রিপোর্টার
উড়ছে মৃত্যুমাখা স্বাধীনতার বিজয় নিশান বাংলার ঘরে ঘরে। ‘মুক্তির মন্দির সোপানতলে কত প্রাণ হলো বলিদান, লেখা আছে অশ্রুজলে…।’ রক্তনদী পেরিয়ে আসা আনন্দ-বেদনায় মিশ্র মহান বিজয় দিবস আজ। বিজয়ের গৌরবের-বাঁধভাঙ্গা আনন্দের দিন। একই সঙ্গে লাখো স্বজন হারানোর শোকে ব্যথাতুর-বিহ্বল হওয়ারও দিন আজ। তীব্র শোষণের জাল ভেদ করে একাত্তরের এই দিনটিতে প্রভাতী সূর্যের আলোয় ঝলমলিয়ে উঠেছিল বাংলার রক্তস্নাত শিশির ভেজা মাটি, অবসান হয়েছিল পাকিস্তানী শাসকগোষ্ঠীর সাড়ে তেইশ বছরের নির্বিচার শোষণ, বঞ্চনা আর নির্যাতনের কালো অধ্যায়। নয় মাসের জঠর-যন্ত্রণা শেষে এদিন জন্ম নেয় একটি নতুন দেশ স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশ। ঝড়ের ভিতরে বিকশিত অটল বৃক্ষের জীবন্ত প্রতীক স্বাধীনতা নামের অগ্নিস্ফুলিঙ্গ আজও প্রচ- ঝাঁকি দেয় রক্তে, শাণিত করে চেতনা। ঝড়ের ভিতরে বিকশিত অটল বৃক্ষের জীবন্ত প্রতীক স্বাধীনতা নামের অগ্নিস্ফুলিঙ্গ আজও প্রচ- ঝাঁকি দেয় রক্তে, শাণিত করে চেতনা।
তবে এবারের ডিসেম্বর আমাদের জীবনে নতুন তাৎপর্য নিয়ে এসেছে। বাঙালি জাতিকে এ বছরেই সিদ্ধান্ত নিতে হবে মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতার পথ ধরে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ বিনির্মাণের পক্ষ শক্তিকেই সমর্থন দেবে, নাকি পঁচাত্তরের ১৫ আগস্টের মতোই সেই পরাজিত পাকিস্তানের প্রেতাত্মাদের আবারও ফিরিয়ে এনে দেশকে অন্ধকারের পথে ঠেলে দেবে। মুক্তিযুদ্ধের পক্ষের শক্তির ইস্পাত কঠিন ঐক্য গড়ে তুলে পরাজিত শত্রুদের ফের পরাজিত করে জঙ্গীবাদ-সন্ত্রাস-দুর্নীতিমুক্ত বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা বিনির্মাণের পথেই থাকবে কি না, এ বছরেই গোটা বাঙালি জাতিকে দৃঢ় সিদ্ধান্ত নিতে হবে। কেননা আর কিছুদিন পরেই হচ্ছে নির্বাচন। তাই এক অন্যরকম চ্যালেঞ্জ নিয়েই বাঙালি জাতি আজ উদযাপন করবে মহান বিজয় দিবস।
পূর্বাচলে আজ উদিত যে-সূর্য, প্রতিদিনের হয়েও সে প্রতিদিনের নয়; তার রক্তিমতায় তিরিশ লাখ শহীদের রক্ত আমাদের মনে পড়বে; আকাশ যে-কোমলতায় আজ উদ্ভাসিত, একাত্তরের সম্ভ্রমহারা দশ লাখ মা-বোন-জায়ার ক্রন্দনধোঁয়া সে-উদ্ভাস। ভোরের যে-রাঙা আলোটি আজ স্পর্শ করেছে ভূমি, স্বদেশের সেই পবিত্র ভূমি ভিজে আছে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর রক্তে; আর সেই রক্ত¯্রােতে মিশে আছে জাতীয় চার নেতার উষ্ণ শোণিত। দেনদরবার নয়, কারও দয়ার দানে নয়, সাগর-সমান রক্তের দামে বাংলাদেশ অর্জন করেছে স্বাধীনতা, রক্ত-সাগর পেরিয়ে বাঙালি জাতি পৌঁছেছে তার বিজয়ের সোনালি তোরণে।
৫৫ হাজার বর্গমাইলের এই সবুজ দেশে ৪৭ বছর আগে আজকের এই দিনে উদয় হয়েছিল হাজার বছরের শ্রেষ্ঠ সূর্য। সেদিনের সেই সূর্যের আলোয় ছিল নতুন দিনের স্বপ্ন, যে স্বপ্ন অকাতরে প্রাণ দিয়েছিল এ দেশের ৩০ লাখ মানুষ। ৪৭ বছর পরও সেই স্বপ্ন বাস্তবে রূপ পায়নি, শেষ হয়নি মুক্তিকামী মানুষের সংগ্রাম। ১৯৭১ সালের ১৬ ডিসেম্বর কুয়াশায় জড়ানো হালকা শীতের বিকেলে রমনার রেসকোর্স ময়দানে দাম্ভিক পাকিস্তানী সেনারা যে অস্ত্র দিয়ে নির্বিচারে গুলি চালিয়েছে বাঙালির বুকে, হাতের সেই অস্ত্র পায়ের কাছে নামিয়ে রেখে মাথা নিচু করে দাঁড়িয়ে ছিল মুক্তিবাহিনী ও মিত্রবাহিনীর নেতাদের সামনে।
শুধু নির্বাচনের চ্যালেঞ্জই নয়, বাঙালি জাতি এবার এক অন্যরকম স্বস্তিতে বাংলাদেশ নামক রাষ্ট্রের জন্মদিন পালন করবে। বিজয়ের দীর্ঘ সময় পরে হলেও ঘৃণ্য যুদ্ধাপরাধীদের বিচার এবং দ-াদেশ কার্যকর হয়েছে। শত ষড়যন্ত্র ও রক্তচক্ষুকে উপেক্ষা করে শীর্ষ যুদ্ধাপরাধী ও একাত্তরের নরঘাতক মতিউর রহমান নিজামী, আলবদরের প্রধান আলী আহসান মোহাম্মদ মুজাহিদ, সালাউদ্দিন কাদের চৌধুরী, মোহাম্মদ কামারুজ্জামান, কাদের মোল্লা ও মীর কাসেম আলীকে ফাঁসির দড়িতে ঝুলিয়ে মৃত্যুদ- কার্যকর করা হয়েছে। সারাদেশের মুক্তিযুদ্ধের সপক্ষের মানুষের মনে একটা স্বস্তি এসেছে। জাতির কলঙ্ক কিছুটা হলেও মোচন হয়েছে। পাকিস্তান ও তাদের এ দেশীয় দোসরদের বিরুদ্ধে এক অন্যরকম গণজাগরণ ও আবহে এবার বিজয় দিবস উদযাপন করছে গোটা জাতি। এবারের বিজয় দিবস মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় মৌলবাদ, জঙ্গীবাদের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জয়ের মধ্য দিয়ে অসাম্প্রদায়িক বাংলাদেশ গড়ে তোলার স্বপ্ন বাস্তবায়নের অঙ্গীকারের পথে এগিয়ে যাওয়ার প্রেরণা নিয়ে এসেছে।
কর্মসূচি
আজ রবিবার সূর্যোদয়ের সাথে সাথে ৩১ বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসের সূচনা, শহীদ মুক্তিযোদ্ধা স্মৃতি ফলকে পুষ্পস্তবক অর্পণ এবং সকল সরকারি, বেসরকারি ভবন ও প্রতিষ্ঠানে জাতীয় পতাকা উত্তোলন। সকাল সাড়ে ৮টায় সুনামগঞ্জ জেলা স্টেডিয়ামে জেলা প্রশাসন কর্তৃক আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, কুচকাওয়াজ অনুষ্ঠান ও সালামগ্রহণ। সকাল ৯টায় শরীরচর্চা প্রদর্শনী, বেলা সাড়ে ১১টায় মুক্তিযোদ্ধা, যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধা এবং শহীদ মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সংবর্ধনা। সুবিধাজনক সময়ে জাতির শান্তি ও অগ্রগতি কামনা করে মসজিদ, মন্দির, গীর্জা, ও ধর্মীয় প্রতিষ্ঠানে বিশেষ মোনাজাত ও প্রার্থনা। দুপুর ১.৩০মি. হাসপাতাল, কারাগার ও শিশু পরিবারে উন্নতমানের খাবার পরিবেশন, বিকাল সাড়ে ৩টায় মহিলা সমাবেশ ও ক্রীড়া অনুষ্ঠান, বিকাল ৪টায় সুনামগঞ্জ পৌরসভা ও জেলা ক্রীড়া সংস্থার মধ্যে প্রীতি ফুটবল প্রতিযোগিতা, সন্ধ্যা সাড়ে ৬টায় জেলা শিল্পকলা একাডেমিতে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান।
এছাড়াও যথাযোগ্য মর্যাদায় মহান বিজয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক ও সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে ব্যাপক কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24