মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ১২:৫৬ পূর্বাহ্ন

আবুল হাসনাতের পরিবারে চলছে শোকের মাতন

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৪ ফেব্রুয়ারী, ২০১৬
  • ৩১ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর পৌর এলাকায় দু’তলা ভবনের ছাদ থেকে পড়ে গিয়ে নিহত যুবক আবুল হাসনাতের পরিবারে চলছে শোকের মাতন। পরিবারের অন্যতম উর্পাজনক্ষম ব্যক্তিকে হারিয়ে পুরো পরিবারে নেমে এসেছে শোকবিহ্বল অবস্থা। গত কয়েকদিন ধরে শোকহত পরিবারটির পাশাপাশি পুরো এলাকায় এই অকাল মৃত্যু নিয়ে চলছে নানা আলোচনা। জানা গেছে, জগন্নাথপুর পৌর এলাকার পূর্ব ভবানীপুর গ্রামের আমির হোসাঈন কদ্দুসের পুত্র আবুল হাসনাত(১৭) কে কাজের কথা বলে গত ২৮ জানুয়ারি শেরপুর গ্রামের ফরুক আলী ইসাকপুর গ্রামের আব্দুস ছত্তারের বাড়িতে নিয়ে যায়। সেখানে দু’তলা ভবনে বাথরুমে গরম পানির সংযোগের কাজ করতে গিয়ে দু’তলা ভবন থেকে পড়ে যায়। তাৎক্ষনিকভাবে ঠিকাদার ফরুক আলী সহ বাড়ির লোকজন তাকে প্রথমে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স ও পরে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসকরা দ্রুত অপারেশনের সিদ্ধান্ত নিয়ে অপারেশন করেন। কিন্তুু রাতেই তার মৃত্যু হয়। প্রাথমিকভাবে ধারনা করা যাচ্ছে, বাথরুমের গরম পানির ট্যাংকে সংযোগ দিতে গিয়ে অসাবধানবশত বিদ্যুতের মেইন সুইচ অফ না থাকায় বিদ্যুতের শর্টখেয়ে সে দু’তলা ভবনের কার্নিস থেকে পড়ে যায়। অথবা কার্নিস থেকে অজ্ঞান হয়ে পড়ে গিয়ে আহত হয়।
আবুল হাসনাতের চাচা সুজাত মিয়া বলেন, ঘটনার দিন দুপুর দুইটা পর্যন্ত সে বাড়িতে ছিল। আমাদের পরিবারের অজান্তে তাকে বিশেষ প্রলোভন দেখিয়ে পরিবারের লোকজনকে না জানিয়ে লাইসেন্স বিহীন ঠিকাদার ফরুক আলী কাজে নিয়ে যায় । সে কোনদিন বিদ্যুতের কাজ করেনি। কীভাবে তার মৃত্যু হল এনিয়ে আমরা উদ্বিগ্ন।
নিহতের বাবা আমির হোসাঈন কদ্দুস বলেন, আমার ছেলের এমন মৃত্যু আমরা কিছুতেই মেনে নিতে পারছি না। তার মৃত্যুতে আমার পরিবারের সব স্বপ্ন ভেঙ্গে গেছে। ঠিকাদার ফরুক মিয়া বলেন, দুই বছর ধরে আমার সাথে এসব কাজ করছিল আবুল হাসনাত। বিদেশ যাওয়ার জন্য পরিবারের লোকজন কথায় আমার সাথে কাজ করতে আসে। মঙ্গলবার কাজে আসলে আমি তাকে ইসাকপুর ওই বাড়িতে কাজে নিয়ে যাই। সেখানে কিছু কাজ করে আবার বৃহস্পতিবার তাকে নিয়ে আবার কাজে যাই। কাজ করতে গিয়ে হঠাৎ দু’তলা ভবন থেকে পড়ে গেলে তাৎক্ষনিকভাবে আমি তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করি। কিন্তু দুঃখজনক তাকে বাঁচানো গেল না।
ইসাকপুর গ্রামের আব্দুস ছত্তার বলেন, ঘটনার দিন আমি বাড়িতে ছিলাম না। বাড়ির লোকজন বলেছেন কাজ করতে গিয়ে হঠাৎ সে দু’তলা ভবন থেকে পড়েগেছে। খবর পেয়ে রাতেই হাসপাতালে গিয়ে তাকে দেখে আসি। এবং তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করি। কিন্তুু ছেলেটির মৃত্যুতে আমরা শোকাহত।
জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আলহাজ্ব আব্দুল মনাফ বলেন, দরিদ্র পরিবারের সন্তান আবুল হাসনাতের অকাল মৃত্যু দুঃখজনক। আমি তার মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করছি। এদিকে সদ্য সাবেক পৌর মেয়র আক্তার হোসেন, ঘটনার পর পরই হাসপাতাল গিয়ে তাকে ধেখে আসেন। তিনি অকাল মৃত্যুতে শোক প্রকাশ করেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24