রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৪:৫৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের এবার বর্ষসেরা প্রতিনিধি হলেন আশিক মিয়া বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড, হিসেবে আখ্যা দিল জাতিসংঘ জগন্নাথপুরে তিন লাখ টাকা মূল্যের সরকারি গাছ ‘কেটে’ নিলেন যুবলীগ নেতা।

আব্দুস সামাদ আজাদের ১১তম মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে নানা কর্মসূচী গ্রহন

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৬ এপ্রিল, ২০১৬
  • ৪১ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: : স্বাধীন বাংলার প্রথম পররাষ্ট্রমন্ত্রী মুক্তিযোদ্ধের অন্যতম সংগঠক, আওয়ামীলীগের সাবেক প্রেসিডিয়াম সদস্য জগন্নাথপুরের কৃতিসন্তান আলহাজ্ব আব্দুস সামাদ আজাদ এর ১১ম মৃত্যুবার্ষিকী কাল বুধবার । এ উপলক্ষে উপজেলা আওয়ামীলীগ, অঙ্গ ও সহযোগি সংগঠনের উদ্যোগে মঙ্গলবার দুপুরে দলীয় কার্যালয়ে আলোচনা সভা ও উপজেলা পরিষদ জামে মসজিদে বাদ জহুর মিলাদ মাহফিল অনুষ্টিত হবে। এছাড়া সামাদ আজাদ স্মৃতি পরিষদের উদ্যোগে আলোচনাসভা, মরহুমের প্রতিকৃতিতে পুস্প স্তবক অর্পন, বিভিন্ন মসজিদ মিলাদ মাহফিল ও মন্দিরে প্রার্থনার অনুষ্টিত হবে। আব্দুস সামাজদের জন্মভিটা ভূরাখালি গ্রামেও মিলাদ মাহফিল ও শিরনী বিতরন করা হবে বলে গ্রামের আত্মীয় স্বজনা জানিয়েছেন। জগন্নাথপুর পৌরসভার উদ্যোগে মিলাদ ও দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত হবে। উল্লেখ্য ২০০৫ সালের ২৭ এপ্রিল তিনি শেষ নি:শ্বাস ত্যাগ করেন।
বাংলাদেশের ইতিহাসে এক কালজয়ী রাজনীতিবিদ আব্দুস সামাদ আজাদ। ব্রিটিশ বিরোধী আন্দোলন থেকে শুরু করে বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ পর্যন্ত প্রতিটি আন্দোলন সংগ্রামে তাঁর সক্রিয় অংশ গ্রহণ ছিলো। সিলেট তথা বাংলাদেশের রাজনীতিতে তিনি কিংবদন্তী তুল্য রাজনীতিবিদ। এই ক্ষণজন্মা রাজনীতিবিদ সারা জীবন মানুষের কল্যাণে কাজ করে গেছেন। বর্ণাঢ্য জীবনের অধিকারী এই নেতা ১৯২৬ সালের ১৫ জানুয়ারি জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়া হাওর বেষ্টিত চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের ভুরাখালী গ্রামে জন্ম গ্রহণ করেন। তাঁর পিতা মরহুম মোহাম্মদ শরিয়ত উল্লাহ। আব্দুস সামাদ আজাদ ১৯৪৩ সালে সুনামগঞ্জ সরকারি জুবিলী উচ্চ বিদ্যালয় থেকে মেট্রিকুলেশন এবং ১৯৪৮ সালে সিলেট এম সি কলেজ থেকে স্নাতক ডিগ্রি অর্জন করেন। পরবর্তিতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইন ও ইতিহাস বিষয়ে এম এ পাশ করেন। তিনি ১৯৪০ সালে সপ্তম শ্রেণির ছাত্র থাকা অবস্থায় সুনামগঞ্জ মহকুমা মুসলিম ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতির দায়িত্ব পালনের মাধ্যমে রাজনীতিতে পদার্পন করেন। ১৯৪৪-৪৮ সাল পর্যন্ত তিনি সিলেট জেলা মুসলিম ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতির দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৫২ সালে ভাষা আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করায় কারাবরণ করেন। ১৯৫৩ সালে পূর্ব পাকিস্তান যুবলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি, ১৯৫৪ সালে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য, ১৯৫৫-৫৭ সালে আওয়ামীলীগের শ্রম বিষয়ক সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৫৬ সালে ধর্মঘটে নেতৃত্ব দেয়ায় পাক সামরিক সরকার পুনরায় তাঁকে আটক করে কারাগারে পাঠায়। ১৯৫৮ সালে তাঁকে আবারো গ্রেফতার করা হয় এবং ৪ বছর কারাভোগের পর ১৯৬২ সালে মুক্তিলাভ করেন। ১৯৫৪ সালে সাম্প্রদায়িক দাঙ্গা মোকাবেলা করতে গিয়ে তিনি আবার কারারুদ্ধ হন। ১৯৭০ সালের নির্বাচনে বিজয়ী হয়ে পাকিস্তানের গণপরিষদের সদস্য মনোনীত হন। ১৯৭১ সালে মুক্তিযুদ্ধে তিনি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখেন। ১৯৭১ এর এপ্রিলে মুজিবনগর সরকার প্রতিষ্ঠায় তিনি ছিলেন অন্যতম। মুজিবনগর সরকারের রাজনৈতিক উপদেষ্টা এবং ভ্রাম্যমান রাষ্ট্রদূতের দায়িত্ব পালন করেন তিনি। বাংলাদেশ স্বাধীন হওয়ার পর তিনি দেশের পররাষ্ট্র মন্ত্রীর দায়িত্বভার গ্রহণ করেন। পরে ১৯৭৩, ১৯৯১, ১৯৯৬ ও ২০০১ সালে সংসদ সদস্য নির্বাচিত হন। ১৯৯১ সালে বিরোধীদলীয় উপনেতা এবং ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর দায়িত্ব পালন করেন। চালদলীয় জোট সরকারের আমলে তিনি প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক মন্ত্রণালয় এবং পানি সম্পদ মন্ত্রণালয় সম্পর্কিত সংসদীয় স্থায়ী কমিটির সভাপতি ছিলেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24