শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে তিনদিন ব্যাপি বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি মেলার উদ্বোধন ব্রিটেনের নির্বাচনে আফসানার বড় জয়ে জগন্নাথপুরে উৎসবের আমেজ ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই

‘আমাদের প্রত্যাশিত সিলেটকে দেখতে পাইনি’

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৬ ডিসেম্বর, ২০১৮
  • ২৫৬ Time View

‘আমাদের প্রত্যাশিত সিলেটকে দেখতে পাইনি’

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী। ‘সুশাসনের জন্য নাগরিক (সুজন) সিলেট’ এর সভাপতি। সিলেটের সুশীল সমাজের একজন প্রতিনিধি রাজনৈতিক বিশ্লেষক।

এছাড়াও তিনি বিভিন্ন সামাজিক সংগঠনের সাথে যুক্ত। সিলেটের সামাজিক অঙ্গনে তাঁর উপস্থিতি থাকলেও পাশাপাশি তিনি রয়েছেন রাজনৈতিক কর্মকাÐের বিভিন্ন দিক আলোচনা নিয়ে। বিভিন্ন সময় বিভিন্ন সামাজিক কর্মকাÐ ছাড়াও সিলেটের সঙ্কটময় পরিস্থিতিতে তাঁর অবদান অসামান্য। সমাজ সেবায় তিনি নিরলসভাবে কাজ করে যাচ্ছেন।

আসন্ন জাতীয় সংসদ নির্বাচন উপলক্ষ্যে সিলেটের সামাজিক নেতৃবৃন্দের রাজনৈতিক আলোচনায় মুখোমুখি হয়েছেন তিনি। সুশাসনের জন্য নাগারিক সিলেট এর সভাপতি হিসেবে তিনি তার মতামত ব্যক্ত করেছেন

এ প্রতিবেদক কামরুল ইসলাম মাহির কাছে। বিভিন্ন প্রশ্নের জবাবে তিনি সিলেটের রাজনীতির দিক নিয়ে আলোচনা করেছেন। এছাড়াও তিনি সিলেটের শিক্ষা ব্যবস্থার করুণ অবস্থা নিয়ে কথা বলেন। সিলেটের উন্নয়নে রাজনীতিকদের ভূমিকা, অসীম সম্ভাবনার সিলেট পিছিয়ে পড়া নিয়ে তিনি বিভিন্ন প্রশ্নের জবাব দেন।
পাঠকদের জন্য তা তুলে ধরা হলো।

প্রশ্ন-উত্তর পর্ব
প্রশ্ন: এবারের সংসদ নির্বাচন দলীয় সরকারের অধীনে হচ্ছে এবং বিএনপিও অংশগ্রহণ করছে এ নির্বাচনে। এ দিকটা আপনি কীভাবে দেখছেন?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন আর বিএনপির অংশগ্রহণ দুটি ভিন্ন ব্যাপার। এবার নিবন্ধিত সবদলগুলো ও নিবন্ধনহীন দলও নির্বাচনে অংশ নিচ্ছে। এটি একটি অংশগ্রহনমূলক নির্বাচন। দলীয় সরকারের অধীনে কখনো সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। সেটার কারণেই তত্বাবধায়ক সরকারের প্রয়োজন।

প্রশ্ন: এবার তো সিলেট বিভাগে প্রায় ৮ লক্ষ নতুন ভোটার। এক্ষেত্রে তাদের ভোট প্রদানে উৎসাহিত করার উদ্যোগ নেয়া কী প্রয়োজন ছিলো না নির্বাচন কমিশনের?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: আমি মনে করি শুধু তরুণ নয় নবীন-প্রবীন সকল ভোটারই সমান। আর তরুণ ভোটাররা এখন অনেক সচেতন। এক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনের প্রার্থীসহ ভোটারদের মুখোমুখি একটি অনুষ্ঠান প্রয়োজন ছিল। যদিও তাঁরা তা করেন না। তাই আমরা ‘সুশাসনের জন্য নাগরিক’ সুজন এ রকমের একটি অনুষ্ঠান করে থাকি। ২০১৪ সাল থেকে এখন পর্যন্ত যারা ভোটার হয়েছেন তাঁরা সাবাই নতুন ভোটার কারণ ২০১৪ সালের ৫ জানুয়ারি জাতীয় নির্বাচনকে আমার নির্বাচনই মনে করি না।

প্রশ্ন: সিলেট-১ আসনকে বলা হয় মর্যাদার আসন। এ আসনে সব সময়ই ‘ভিআইপি’রা প্রার্থী হোন। তবে এবার প্রধান দু’টি দলের প্রার্থীই নতুন মুখ। এ দিকটা কেমন দেখছেন?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: আমারা কোনো ভিআইপি প্রার্থী চাই না। সৎ ও যোগ্য প্রার্থীরাই যেনো বিজয়ী হয়ে জনগণের প্রতিনিধিত্ব করেন। এখানে আমরা হঠাৎ করে ওহির মাধ্যমে নাজিল হওয়া প্রার্থী চাই না। বিজয়ী প্রার্থীকে অঙ্গিকার করতে হবে, তিনি সংসদে অধিকাংশ সময় উপস্থিত থাকবেন। জাতীয় সংসদ অধিবেশন শুরুর কয়েক ঘন্টার মধ্যে কোরাম শুরু হয় না। এটা জাতির জন্য অত্যন্ত একটি লজ্জাজনক ব্যাপার।

প্রশ্ন: দু’জন প্রার্থীর মধ্যে তো একজন জয়ী হবেন। তাঁদের মধ্যে দু’জনই আমলা থেকে রাজনীতিতে। মাঠের রাজনীতিতে দু’জন নতুন মুখ কী সিলেটবাসীর প্রত্যাশা পূরণ করতে পারবেন বলে মনে করেন?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: এ বিষয়টা আমি অন্যভাবে দেখি। যারা সাংসদ নির্বাচিত হবেন তারা জনগণের প্রত্যাশা পূরণ করার কথা না। তাঁরা আইন প্রণয়ন, সরকারের আর্থিক দিক তুলে ধরবেন। উন্নয়ন তো স্থানীয় সরকার করবে। এদিক থেকে এমপি প্রার্থীদের উন্নয়নের আশ^াস চরম একটি মিথ্যাচার ও জনগণের সাথে ভংকর প্রতারণা।

প্রশ্ন: সম্প্রতি রাজনৈতিক সম্প্রীতির বার্তা নিয়ে অর্থমন্ত্রীর বাসভবনে যান বিএনপির প্রার্থী ইনাম আহমদ চৌধুরী। এদৃশ্য সত্যিই বিরল। কিন্তু এ নিয়ে যে প্রতিক্রিয়া শুরু হয়েছিলো সেটাকে আপনি কীভাবে ভাবছেন ?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: আমি এ বিষয়টাকে খুবই নেতিবাচকভাবে দেখছি। এটাকে আমরা স্বাগত জানাই। দু’জনের দুটো ভিন্ন মতাদর্শ থাকতেই পারে। এক্ষেত্রে জাতীয় নেতারা সিলেটকে অনুসরণ করতে পারেন।

প্রশ্ন: বিগত সিলেট সিটি কর্পোরেশন নির্বাচনে দেশের প্রধান দু’টি দলের প্রার্থীদের মধ্যে অভিযোগ-পাল্টা-অভিযোগ লক্ষ্য করা গেছে। এক্ষেত্রে সিলেটের যে প্রচলিত ‘সম্প্রীতির রাজনীতি’র ভাবমূর্তি ক্ষুণœ হয়েছে বলে আপনি মনে করেন? এবারও কী সেরকম কিছু আশঙ্কা রয়েছে?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: অভিযোগ-পাল্টা-অভিযোগ তো করবেই এটা হচ্ছে ‘রাজনৈতিক একটা পলিসি’। এক্ষেত্রে নির্বাচন কমিশনকে সচেতন হতে হবে।

প্রশ্ন: সিলেটের অর্থমন্ত্রী, শিক্ষামন্ত্রী, অথচ অন্যান্য স্থানের তুলনায় কী সিলেটের কাক্সিক্ষত উন্নয়ন হয়েছে বলে আপনি মনে করেন?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: আমরা আমাদের কাক্সিক্ষত উন্নয়ন পাইনি। আমাদের অর্থমন্ত্রী দেশের প্রবীন একজন সম্মানী নাগরিক। তিনি ২০০৮ সালে সিলেটবাসীকে একটি আলোকিত সিলেট গড়ার স্বপ্ন দেখিয়েছিলেন। তবে তা কতটুকু বাস্তাবায়ন হয়েছে তা জনগনই ভালো জানেন। সিলেটের শিক্ষাব্যস্থার অবস্থা করুণ। সিলেট ইনঞ্জিনিয়ারিং কলেজের নাজেহাল অবস্থা। এমসি কলেজে শিক্ষক সংকট!

প্রশ্ন: সিলেটের বিভিন্ন বড় বড় উন্নয়ন কার্যক্রমে ধীরগতি লক্ষ্য করা যাচ্ছে। এক্ষেত্রে কী স্বদিচ্ছার অভাব ছিলো বলে আপনি মনে করেন?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: অবশ্যই। উন্নয়ন কার্যক্রমে ধীরগতি তো স্বদিচ্ছার অভাব বলে আমি মনে করি।

প্রশ্ন: সিলেট নগরীর উন্নয়ন নিয়ে বিভিন্ন সময় বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হলেও তা পূর্ণতা পাচ্ছে না। এছাড়াও বিভিন্ন উন্নয়কল্প অপরিকল্পিতভাবে হচ্ছে। এ ক্ষেত্রে অর্থমন্ত্রীর কী দায়ভার নেই?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: সেটা অর্থমন্ত্রই ভালো জানেন।

প্রশ্ন: আধুনিক সিলেট নগর ও সিলেটের পর্যটন শিল্পকে এগিয়ে নিতে অতীত বা বর্তমানের সিলেটের কোনো মন্ত্রীই উদ্যোগী হন নি। এটাকে আপনি কীভাবে দেখছেন?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: সব সরকারই আমাদের আশ^াস দিয়েছিলেন। আমরা আশ্বাসে মনে করতাম এই তো এগিয়ে যাবে সিলেট। পরর্বতীতে তা আর পূর্ণতা পায় না। বরং তারা সিলেটের পর্যটন শিল্পকে ধ্বংস করে দিচ্ছেন। যেমন জাফলং, ভোলাগঞ্জসহ পর্যটন শিল্পকে ধ্বংস করে দিচ্ছে লোকচক্ষুর অন্তরালে ঘাপটি মেরে বসে থাকা সরকারের একটি কুচক্রি মহল।

প্রশ্ন: ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত তৎকালীন বিএনপি নেতৃত্বাধীন চারদলীয় জোট সরকারের আমলে সিলেটে যে উন্নয়ন হয়েছে, সে তুলনায় কী মহাজোটের ১০ বছরে সিলেটে বেশি, নাকি কম উন্নয়ন সাধিত হয়েছে বলে আপনার ধারণা?
ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত এম. সাইফুর রহমান সাহেব সিলেটের উন্নয়নে যথেষ্ট ভুমিকা রেখেছেন। তবে মহাজোটের ১০ বছরে কেমন উন্নয়ন হয়েছে তা ৩০ তারিখ অনুষ্ঠাতব্য নির্বাচনে জনগণের রায় তা প্রমাণ করবে।

প্রশ্ন: মহাজোটের দশ বছরে কী আমাদের প্রত্যাশিত পূণ্যভূমি সিলেটকে দেখতে পেরেছি বলে আপনি মনে করেন?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: না। আমার আমাদের প্রত্যাশিত পূণ্যভূমি সিলেটকে দেখতে পাইনি।

প্রশ্ন: সিলেটের গ্যাস বিভিন্ন অঞ্চলে যাচ্ছে। অথচ সিলেটবাসীই তা ভোগ করতে পারছে না। এক্ষেত্রে সিলেটের মন্ত্রীদের করণীয় কিছু নেই কী?

ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: সিলেটের গ্যাস বিভিন্ন অঞ্চলে যাচ্ছে কিন্তু আমরা তা থেকে বঞ্চিত। এক্ষেত্রে সিলেটের মন্ত্রী-এমপিদের স্বদিচ্ছার অভাব রয়েছে।

প্রশ্ন: ধন্যবাদ ফারুক মাহমুদ চৌধুরী।
ফারুক মাহমুদ চৌধুরী: আপনাকেও ধন্যবাদ ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24