শনিবার, ২৪ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:০৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
ঠিকাদারের দায়িত্বহীনতায় জগন্নাথপুর-বেগমপুর সড়কে অসহনীয় দুর্ভোগ জগন্নাথপুরের টমটম চালকের হত্যাকাণ্ড উন্মোচিত,ঘাতকের স্বীকারোক্তিমুলক জবানবন্দি প্রদান জগন্নাথপুরে বিপুল উৎসাহ উদ্দীপনায় জন্মাষ্টমী উদযাপন জগন্নাথপুরে সরকারি গাছ কাটায় সেই যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ভারত-পাকিস্তান গুলি বিনিময় প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা ১৭ নভেম্বর টমটম গাড়ীর জন্য জগন্নাথপুরের এক চালককে রশিদপুরে নিয়ে খুন,গ্রেফতার-১ জেলা আ.লীগের গণমিছিল ৫ বছরেও শেষ হয়নি জগন্নাথপুরের ভবেরবাজার-গোয়ালাবাজার সড়কের কাজ,দুর্ভোগ লাখো মানুষের “জুম্মু কাশ্মীরে,গণতহ্যা শুরু করেছে মোদী সরকার”

ইতিহাসের আলোয় মে দিবস

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ৩০ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৩৯ Time View

 

যাঁদের রক্ত ঘামে

ঘুরে সভ্যতার চাকা

আন্তর্জাতিক শ্রমিক দিবস

তাঁদের রক্তের আকরে আঁকা।  

 

সংগ্রামী দিনগুলোর যে তালিকা ইতিহাসের পাতায় ভাস্বর হয়ে আছে তার মধ্যে মে দিবস  নিঃসন্দেহে অন্যতম ।  শ্রমজীবি মানুষের রক্ত ভেজা  দিন। মানবিক জীবন ও মানবিক রাষ্ট্রের দাবীতে আত্মহুতি দানের দিন।  হে মার্কেটের মৃত্যুঞ্জয়ী শ্রমিকদের আত্মহুতির মাধ্যমেই প্রতিষ্ঠিত হয় ৮ঘন্টার কর্মদিবস। যুগে যুগে, কালে কালে সমাজ পরিবর্তনের অন্যতম অনুসঙ্গ হিসেবে কাজ করেছে দ্রোহী মানুষের আত্মত্যাগ, যাঁরা অবরুদ্ধ সমাজের  অচলায়ন ভেঙ্গে নতুন সমাজ বিনির্মানের পথ দেখিয়েছেন। দুর্বিসহ জীবনের দুঃসহ যাতনা থেকে মুক্ত করে যাপিত জীবনকে করছেন সহনীয়। যাঁদের আত্মত্যাগ  উদ্ভাসিত করেছে পরবর্তী প্রজন্মের পথ

মানব জাতীর ইতিহাস শ্রেণী সংগ্রামের ইতিহাস। সমাজ পত্তনের সূচনা লগ্ন থেকেই এই শ্রেণী সংগ্রামের শুরু। মানব সভ্যতার অগ্রগতির সাথে জড়িয়ে আছে শ্রমিকের ঘাম, রক্ত আর অশ্রু। সিন্ধু সভ্যতা, মিশরিয় সভ্যতা কিংবা শিল্প বিপ্লব উত্তর আধুনিক সভ্যতার কথাও যদি  বলি তার সবই  শ্রমিকের শ্রমে গড়া। দাসব্যবস্থা, সামন্ততান্ত্রিক সমাজ ব্যবস্থা, বুর্জোয়া সমাজ ব্যবস্থার সবার ইতিহাসই হচ্ছে শ্রমিক শোষনের ইতিহাস। অন্যদিকে উত্তর আধুনিক এই যান্ত্রিক সভ্যতা ও বাজার অর্থনীতির যুগ শ্রমিকদের জীবনে অন্য মাত্রার সংকট তৈরী করছে।  বারে বারে নব নব রূপে শ্রমিকদের জীবনে নানা আঙ্গিকে নানা মাত্রায় সংকটের যে চালচিত্র বিরাজমান থাকে তা থেকে মুক্তি প্রচেষ্টাও চলেছে যুগে যুগে।

1750 সালে ইংল্যান্ডে যে শিল্প বিপ্লবের সূচনা হয় ১৮৫০ সালের পর তা সমগ্র ইউরোপে ছড়িয়ে পড়ে। ১৯১৭ সালে রাশিয়ায় প্রথম সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠিত হয়। অর্থাৎ শিল্প বিপ্লব শুরুর ১৩৬ বছর পর এবং লেনিনের নেতৃত্বে প্রথম সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠার ৩১ বছর পূর্বে এবং আজ থেকে ১৩২ বছর পূর্বে ১৮৮৬ সালে ১লা মে আমেরিকার শিকাগো শহরের হে মার্কেটের সামনে ইতিহাসের এক  নতুন অধ্যায় সূচনার সন্ধিক্ষণ। ঐতিহাসিক ১লা মে বুঝতে হলে তার পূর্বাপর ঘটনাগুলো সংক্ষিপ্ত আলোচনা প্রয়োজন।

১৮৭২ সালে কানাডায় অনুষ্ঠিত এক বিশাল শ্রমিক শোভা যাত্রার সাফল্যে উদ্ধুদ্ধ হয়ে ১৮৭৭ সাল থেকে ন্যায্য মজুরী,  ৮ ঘন্টা কাজ ও অন্যান্য দাবিতে বামপন্থীদের নেতৃত্বে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে শুরু হয় এক ব্যাপক শ্রমিক ধর্মঘট। ১৮৮৪ সালের ৭ই অক্টোবর আমেরিকার “ফেডারেশন অব লেবার” ঘোষনা করে যে, ১৮৮৬ সালের ১লা মে ৮ ঘন্টা কাজের দিন বলে গণ্য হবে। কারখানা মালিকরা এ দাবী মেনে নেননি। আসে ১৮৮৬ সালের ১লা মে। অভূতপূর্ব এক ধর্মঘটে অংশ নেয় ১১,৫৬২ শিল্প কারখানা ও সংশ্লিষ্ট প্রতিষ্ঠানের শ্রমিকরা ।  ১লা মে ১৮৮৬ সালে  সন্ধ্যাবেলা হালকা বৃষ্টির মধ্যে শিকাগো শহরের হে- মার্কেটের সামনে শ্রমিকগণ মিছিলের উদ্দেশ্যে জড়ো হন। কিন্তু ১৮৮৬ সালের ১মের পরদিন ছিল রবিবার। তাই শ্রমিক দ্রোহের বিস্ফোরণ ঘটেনি। ৩রা মে আমেরিকায় যখন শ্রমিকরা আন্দোলনে উত্তাল হয়, সেদিন রিপার কারখানায় আন্দোলনরত শ্রমিকদের উপর পুলিশের গুলিতে  ৬ শ্রমিক নিহত হয়। ৪ মে পুলিশের গুলিবর্ষনের প্রতিবাদে শিকাগোর হে মার্কেট স্কয়ারে  এক বিরাট শ্রমিক সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়।আগস্ট স্পীজ জড়ো হওয়া শ্রমিকদের উদ্দেশ্যে কিছু বলছিলেন। হঠাত দূরে দাঁড়ানো পুলিশ দলের কাছে এক বোমার বিস্ফোরন ঘটে এবং একজন পুলিশ নিহত হয়। পুলিশ বাহিনী সাথে সাথেই শ্রমিকদের উপর আক্রমন শুরু করে এবং ১১ জন শ্রমিক নিহত হয় । পুলিশ হত্যা মামলায় গ্রেফতার হন আন্দোলনের নেতা এলবার্ট পার্সনস, জর্জ এনজেল,  আগস্ট স্পীজ  স্যামুয়েল ফিল্টন প্রমূখ।

আদালতে আত্মপক্ষ সমর্থন করতে গিয়ে নেতারা অপরিসীম সাহসের পরিচয় দেন। পার্সনস ঘোষনা করেন, “ যে সমাজ ব্যবস্থায় একজন করে কোটিপতি , অন্যদের করে নিঃস্ব, সমাজতন্ত্র তাকেই ধ্বংস করতে চায়”।

সায়েজ ঘোষোণা করেন, “আমাদের কন্ঠ নিস্তব্ধ হতে চলেছে। কিন্তু সেদিন দূরে নয়, যে দিন আমাদের নিস্তব্ধতা আমাদের বাগ্মিতার চেয়েও সোচ্চার হয়ে দিগদিগন্তে অনুরণিত হবে এবং শোষিত শ্রমিকশ্রেণীকে মুক্তির সংগ্রামে অনুপ্রাণিত করবে”। প্রহসনমূলক বিচারের পর ১৮৮৭ সালের ১১ ই নবেম্বর উন্মুক্ত স্থানে পার্সনস, এনজেল,  সায়েজ, ফিল্টার প্রমুখের ফাঁসি কার্যকর করা হয়। লুইস লিং নামে একজন একদিন পূর্বেই কারাভ্যন্তরে আত্মহত্যা করেন। অন্য একজনের ১৫ বছরের কারাদন্ড হয়।

১৮৮৯ সালে ১৪ জুলাই ফরাসী বিপ্লবের শতবার্ষিকীতে প্যরিসে অনুষ্ঠিত আন্তর্জাতিক শ্রমিক সন্মেলনে ১৮৯০ সাল থেকে শিকাগো প্রতিবাদের বার্ষিকী আন্তর্জাতিকভাবে বিভিন্ন দেশে পালনের প্রস্তাব করেন রেমন্ড লা্ভিনে। ১৮৯১র  সালের আন্তর্জাতিক শ্রমিক সন্মেলনে এই প্রস্তাব আনুষ্ঠানিক ভাবে গৃহীত হয়। পরে ১৯০৪ সালে আমস্টারডামে অনুষ্ঠিত সমাজতন্ত্রীদের আন্তর্জাতিক সন্মেলনে এই উপলক্ষে একটি প্রস্তাব গৃহীত হয়। প্রস্তাবে দৈনিক আটঘন্টা  কাজের সময় নির্ধারণের দাবী আদায়ের জন্য এবং শান্তি প্রতিষ্ঠার জন্য বিশ্বজুড়ে  1লা মে তারিখে মিছিল ও শোভাযাত্রা আয়োজনে সকল সমাজবাদী দল এবং শ্রমিক সংঘের প্রতি আহ্ববান জানানো হয়।   সেই সন্মেলনে মে মাসের ১ তারিখে “বাধ্যতামূলকভাবে কাজ না করার” সিদ্ধান্ত গ্রহণ করে। অনেক দেশে শ্রমজীবি জনতা মে মাসের এক তারিখকে ছুটির দিন হিসাবে পালনের জন্য দাবী জানায় এবং অনেক দেশেই সেট কার্যকরী হয়। বর্তমানে বিশ্বের প্রায় ৮০টি রাষ্ট্রে এই দিবসটি সরকারী ভাবে পালন করা হয় এবং অন্যান্য কিছু রাষ্ট্রে বেসরকারী ভাবে পালন করা হয়। তবে লক্ষ্যণীয় বিষয় হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও কানাডাতে ১লা মে দিবস পালন করা হয়না। কানাডা ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সেপ্টম্বর মাসের ১ম সোমবার শ্রমিক দিবস হিসেবে পালিত হয়।

১৯২৩ সালে প্রথম মে দিবস পালিত হয় ব্রিটিশ শাসিত ভারত বর্ষে। ১৯২৭ সালে কোলকাতায় এবং ১৯৩৮ সালে নারায়ঙ্গঞ্জে প্রথম মে দিবস পালিত হয়। পাকিস্তান আমলে সীমিত পরিসরে মে দিবস পালিত হলেও স্বাধীনতা উত্তর বাংলাদেশ  ১৯৭২ সালে বঙ্গবন্ধু  ১ মে জাতীর উদ্দেশ্য ভাষণ দেন এবং মে দিবসকে জাতীয় দিবস হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করেন । সেই থেকে মে দিবস সরকারী ছুটির দিন হিসেবে পালিত হয়ে আসছে।

 

মে দিবস আন্তর্জাতিক স্বীকৃতি লাভের মাধ্যমে সারা বিশ্বের শ্রমিক শ্রেণীর জীবনে ব্যাপক পরিবর্তন আসে। শ্রমিকদের দৈনিক কাজের সময় ১৬ ঘন্টা থেকে নেমে ৮ ঘন্টা হয়। মেহনতী মানুষ মুক্তি পেতে থাকে শুরু করে তাদের শৃঙ্খলিত জীবন থেকে। মানব ইতিহাসে সংযোজিত হয় সমাজ পরিবর্তনের আরেকটি নতুন অধ্যায়।

এক কথায় বলা যায় , মে দিবসের লড়াই ছিল মানবিক রাষ্ট্র বিনির্মানের লড়াই। কিন্তু মুক্ত বাজার অর্থনীতির এ যুগে জীবনকে যাপন করতে যে জীবিকা সে জীবিকা আজো অনেক ক্ষেত্রেই কেড়ে নিচ্ছে জীবনকে। কর্পোরেট কালচারের এই জীবনগ্রাসী জীবিকা এবং বাংলাদেশ সহ উন্নয়নশীল দেশ সমূহে শিল্পায়নের এই নব যাত্রায় এখনো সংকাটাপন্ন শ্রমিকের নানা অধিকার। তবে এই সত্যও আমাদের স্বীকার করতেই হবে যে, শিল্পের উন্নয়নের সাথেই শ্রমিকের উন্নয়ন একই সুত্রে গাথা। মালিক শ্রমিকের যৌথ ভূমিকাই মানবিক কর্মক্ষেত্র প্রতিষ্ঠা সম্ভব। মে দিবসের এই মহান লগ্নে প্রত্যাশা করি শ্রমিক, মালিক ও সরকারের আন্তরিক প্রচেষ্টায় শ্রমিকদের কর্মক্ষেত্রে একটা মানবিক পরিবেশ সৃষ্টি হবে। শ্রমিক দিবসে প্রার্থনা করছি, মেহনতী মানুষের জয় হোক।

মনোরঞ্জন তালুকদার

সহকারী অধ্যাপক

জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজ।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24