বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৮:০১ পূর্বাহ্ন

ঈদের শেষ কেনাকাটায় জগন্নাথপুরের ফুটপাতে নিম্ম আয়ের মানুষের ঢল

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৫ জুলাই, ২০১৬
  • ৭৮ Time View

আজহারুল হক ভূঁইয়া শিশু:: শেষ মুহুর্তে : ঈদের কেনাকাটায় জগন্নাথপুরের ফুটপাতগুলোতে নিন্ম আয়ের মানুষের ভীড় জমেছে। মঙ্গলবার সারাদিন বৃষ্টি উপেক্ষা করে নিন্ম আয়ের মানুষগুলো নিজের ও স্বজনদের জন্য ঈদের নতুন পোশাক কিনতে ভীড় করেন। নতুন কাপড়ের পাশাপাশি ফুটপাতে জমে উঠে নতুন জুতা ও কসমেটিকস এর বিভিন্ন প্রসাধনী। আবার ঈদকে সামনে রেখে সবাই ছুটছেন আতর ও টুপির দোকানে। এসব কিনার জন্যও ফুটপাতে রয়েছে ক্রেতাদের উপচে পড়া ভীড়।
সরেজমিনে দেখা গেছে, ঈদের কেনাকাটা নিয়ে উচ্চ আর নিম্ন আয়ের মানুষের মধ্যে রয়েছে বেশ পার্থক্য। উচ্চবিত্তরা কেনাকাটার জন্য মার্কেট কিংবা শপিংমলে ব্র্যান্ড বা নামি-দামি পোশাকের জন্য ছুটলেও, নিম্ন আয়ের মানুষের ভরসা ফুটপাতের দোকান। ঈদ উপলক্ষে শেষ মুহূর্তে নিম্ন আয়ের মানুষরা তাই ভিড় জমাচ্ছেন ফুটপাতে। জমে উঠেছে ফুটপাতের দোকানে ঈদের কেনাকাটা।
ঈদ মানেই আনন্দ। কিন্তু সীমিত আয়ের মধ্যে এ আনন্দ যেন পরিণত হয় বিড়ম্বনায়। স্ত্রী-সন্তানের মুখে হাসি ফোটাতে নতুন জামা না হলেই নয়। তাই ফুটপাতের এসব দোকানেই তারা ভিড় জমিয়েছেন পুরোনো, বা কম দামের পোশাক কিনতে।
স্বল্প মূল্যে
08777পছন্দের পোশাক কিনতে পারায় তাদের একমাত্র ভরসা ফুটপাথের দোকানের পোশাক। তবে এসব দোকানে মধ্য বিত্ত আয়ের মানুষেরও কেনা কাটা করতে দেখা যায়। দোকান ভাড়া কম এবং স্বল্প বেতনে দোকানে লোক রাখতে পারাই এসব দোকানে স্বল্প মূল্যে পোশাক বিক্রি করতে পারে ফুটপাথের দোকানিরা।
যার কারনে এখানকার অধিকাংশ ক্রেতা নিম্ন ও মধ্যম আয়ের মানুষ। ছোট শিশু থেকে শুরু করে বয়স্ক মানুষের পোশাক পাওয়া যায় এসব ফুটপাথের দোকানে। শাড়ী, লুঙ্গি, পায়জামা-পাঞ্জাবী, টি-শার্ট, শার্ট, প্যান্টসহ সব ধরনের পোশাকের সমহার এসব দোকানে।রয়েছে টুপি আতর ও কসমেটিক প্রসাধনী। জগন্নাথপুর পৌর শহরের বিশেষ করে জগন্নাথপুর টিএনটি রোড থেকে পৌর পয়েন্টে রয়েছে অসংখ্য ফুটপাতের দোকান। এছাড়াও শহরের বিভিন্ন পয়েন্টে অস্থায়ী ফুটপাতের দোকান বসিয়ে ক্রেতাদের আকৃষ্ট করার চেষ্ঠা করছেন ব্যবসায়ীরা।
টিএনটির সামনে ফুটপাতে ঈদের পোশাক কিনতে আসা শেরপুর গ্রামের রহিমা বেগম জানান, তিনি বাড়ি বাড়ি গৃহকর্মীর কাজ করে যা পান তা দিয়ে ছেলে মেয়েদের ঈদের পোশাক কিনে দেবেন এই আশায় ফুটপাতে পোশাক কিনতে এসেছেন। অর্থের অভাবে বড় দোকান থেকে পোশাক কেনার সামর্থ নেই তার। তাই এসেছেন ফুটপাতের দোকানে। তবে এখানে এসেও হিমশিম খেতে হয়েছে তাকে। কথা হয় জগন্নাথপুর গ্রামের কলোনীতে বসবাসকারী ফরিদা আক্তারের সাথে। তিনি জানান, অল্প দামের আশায় ফুটপাতে ঈদের পোশাক কিনতে এসেছিলাম। কিন্তু এখানকার দোকানদাররা মার্কেটের দোকানের দামের মত দাম চাচ্ছে। দাম করে কিনতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। প্যান্ট ও শার্টের দাম চাচ্ছে ৭শ টাকা। অথচ অনেক দর কষাকষির পর ৫শ টাকায় কিনেছি।
রিকশা চালক রমিজ আলী জানান, সময় ফুরিয়ে এসেছে। চাঁদ দেখা গেলেই ঈদ। তাই আর বিলম্ব না করেই ঈদের কেনাকাটায় নামছি। নিজের জন্য কিছু না কিনলেও ছোট ছেলে মেয়েদের বায়না রক্ষায় কষ্ট করে হলেও নতুন পোশাক কিনতে হচ্ছে।
সময় ফুরিয়ে আসার সাথে ঈদের বেচাকেনা বৃদ্ধি পাচ্ছে বলে জানান, ফুটপাথে ঈদে পোশাকের পসরা সাজিয়ে বসা দোকানি বনমালী দাশ। তিনি জানান, তাদের কাছে থেকে পোশাক কিনে সমাজের নিন্ম আয়ের মানুষেরা। তাই ফুটপাত ব্যবসায়ীদের মূল বেচাকেনাটা শুরু হয় শেষ দিকে। বর্তমানে জমজমাট কেনাকাট চলছে বলে জানান তিনি। কিন্তু বৃষ্টির কারণে কিছুটা সমস্যা হচ্ছে বলেও জানান।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24