বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ০৬:৪৮ পূর্বাহ্ন

এবার আমনের সর্বনাশ,হাওরে দু’দফা বন্যায় নিঃস্ব কৃষক

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৮ আগস্ট, ২০১৭
  • ৩৭ Time View

আমিনুল ইসলাম, তাহিরপুর
দুই দফা বন্যায় বোরো ধানের পর এবার আমন ফসল ডুবে নষ্ট হওয়ায় হাওর এলাকার মানুষের মধ্যে অভাব দেখা দিয়েছে। এসব এলাকায় প্রয়োজনীয় খাদ্যের পাশাপাশি নেই বিশুদ্ধ পানি ও পর্যাপ্ত পরিমাণ সরকারি সাহায্য-সহযোগিতা। বৃহস্পতিবার তাহিরপুর উপজেলায় হাওরাঞ্চল ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে।

অনেকের ভিটেমাটিও পানির নিচে। সপ্তাহকাল ধরে সমগ্র উপজেলায় বন্যার পানি ব্যাপক বৃদ্ধি পেয়েছে। এতে প্রায় অর্ধলক্ষ মানুষ পানিবন্দি হয়ে আছে। প্রচুর বৃষ্টিপাত আর উজান থেকে পানি এসে উপজেলার সবক’টি নদ-নদীর পানি বিপদসীমার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। বোরো আর আমন ফসল অকাল বন্যায় ডুবে যাওয়ায় ত্রাণের জন্য হাহাকার করছে ফসলহারা ক্ষতিগ্রস্ত হাওরবাসী।

কয়েক মাস আগে অতি বৃষ্টিপাত আর উজান থেকে হঠাৎ পানি এসে জেলা-উপজেলার ২৩টি হাওরের বোরো ফসল নষ্ট হয়। এ বিপর্যয় কাটিয়ে ওঠার আগেই আবার আমন ধানের ব্যাপক ক্ষতি করেছে এ বন্যায়। এতে হাওর এলাকায় প্রকট অভাব দেখা দিয়েছে। হাওর এলাকার মানুষের মধ্যে একদিকে ভাতের অভাব, অন্যদিকে গবাদিপশু ও আসবাব নিয়ে পড়েছেন তারা মহাদুর্ভোগে।

হাওরপাড়ের শ্রীপুর উত্তর ইউনিয়নের মন্দিয়াতা গ্রামের ছয়ফুল মিয়া জানান, প্রতিনিয়ত তারা হাওরের উত্তাল ঢেউয়ের সঙ্গে সংগ্রাম করছেন। পানির সঙ্গে উত্তাল ঢেউ তাদের শেষ সম্বল ভিটেমাটিও গ্রাস করছে।

একই ইউনিয়নের তরং গ্রামের দেলোয়ার তালুকদার জানান, এ দুর্যোগে মানুষের হাতে পর্যাপ্ত পরিমাণ টাকা না থাকায় শক্তভাবে বাড়ির বেড়িবাঁধটুকু বাঁশ-কোটা দিয়ে তৈরি করতে পারছে না। তবুও বাঁশ, চাটাই, বন দিয়ে ভিটে টিকিয়ে রাখার প্রাণপন চেষ্টা করে যাচ্ছে গ্রামবাসী।

সরেজমিনে দেখা যায়, উপজেলার গোলাবাড়ী, জয়পুর, মন্দিয়াতা, চিলানী তাহিরপুর, চিড়াগাঁও, মুজরাইসহ অর্ধশতাধিক গ্রামে মাটিয়ান, শনি, টাঙ্গুয়া হাওরের ঢেউয়ের আঘাতে ভাঙন দেখা দিয়েছে। এ ভাঙন ঠেকানোর অর্থ আর উপকরণ তাদের হাতে না থাকায় নিশ্চিহ্ন হচ্ছে ভিটেবাড়ি। অন্য বছর বৈশাখী ফসল তুলে ধান বিক্রি করে বাঁশ, প্লাস্টিকের বস্তা, চাটাইসহ প্রয়োজনীয় উপকরণ কিনে বাড়ির প্রতিরক্ষা বাঁধ নির্মাণ করতে পারলেও এবার বোরো ফসল না ওঠায় তারা বাড়ির বেড়িবাঁধগুলো দিতে পারছেন না।

গোলাবাড়ী গ্রামের সবুজ মিয়া বলেন, মাটি কেটে নতুন বাড়ি করেছিলেন, টাঙ্গুয়া হাওরের বানের ঢেউয়ে বসতঘরের ভিটেমাটি ভেঙে নিয়ে গেছে। উপায় না পেয়ে ছেলেমেয়ে নিয়ে তাদের পুরান বাড়িতে উঠেছেন।

হাওরপাড়ের মুজরাই গ্রামের অমৃত বর্মণ বলেন, এবার বোরোও গেল, আমনও গেল। হাতে টাকা-পয়সা নেই। হাওরে মাছও ধরতে পারি না। বউ-বাচ্চা নিয়ে কীভাবে চলব, কোনো উপায় পাচ্ছি না। এনজিও আর মহাজনের ঋণ পরিশোধ করতে পারছি না। তারা কিস্তি নেওয়ার জন্য প্রতিনিয়ত বাড়িতে এসে বসে থাকে। কিস্তি দিতে না পারলে বাড়ি ছেড়ে পালাতে হবে।

তাহিরপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মুহাম্মদ আবদুছ ছালাম বলেন, উপজেলার ৫ হাজার একর জমির আমন ধান বন্যায় ক্ষতি হয়েছে।

সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের সদস্য ও তাহিরপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবুল হোসেন খান বলেন, অন্য বছর বর্ষা মৌসুমে হাওরপাড়ের গ্রামগুলো ঢেউয়ে কিছুটা ভাঙন দেখা দিলেও এ বছর ভয়ঙ্কর রূপ নিয়েছে। টাকা-পয়সা না থাকায় প্রয়োজনীয় উপকরণ কিনে ভিটেমাটি রক্ষা করতে পারছেন না হাওরপাড়ের কৃষকরা।

তাহিরপুর ইউএনও মোহাম্মদ সাইফুল্লাহ জানান, উপজেলার বিভিন্ন গ্রাম পরিদর্শন করেছেন এবং ক্ষতিগ্রস্ত মানুষের ঘরবাড়ি রক্ষার্থে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সাধ্যমত চাল ও নগদ টাকা দেওয়া হচ্ছে। আরও বেশি সাহায্য সহযোগিতা করার জন্য উপরে জানানো হয়েছে।

সুনামগঞ্জ-১ আসনের সংসদ সদস্য ইঞ্জিনিয়ার মোয়াজ্জেম হোসেন রতন বলেন, সরকার ক্ষতিগ্রস্ত কৃষকদের প্রতি মাসে ৩০ কেজি করে চাল ও ৫শ’ টাকা গত মে মাস থেকে দেওয়া শুরু করেছে। আগস্ট মাস থেকে আরও তিন মাস বৃদ্ধি করা হয়েছে। আগামী বোরো ফসল ওঠা পর্যন্ত তা চলমান থাকবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24