বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০২:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:

কাতিয়া মাদ্রাসায় কোরবানির মাংস নিয়ে মারামারির ঘটনায় উত্তেজনা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ১০ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর উপজেলার জামেয়া ইসলামিয়া দারুল উলুম অলইতলী ও কাতিয়া মাদ্রাসা’য় কোরবানির গরুর মাংস নিয়ে মাদ্রসা কর্তৃপক্ষ ও শিক্ষকদের মধ্যে মারামারি ঘটনা ঘটেছে।এনিয়ে বুধবার দু’পক্ষের মধ্যে আবারও উত্তেজনা দেখা দেয়। জানা গেছে, প্রতি বছরের ন্যায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের জন্য মাদ্রাসা কর্তৃপক্ষ কোরবানির গরু দিয়ে থাকেন। এবার তিনটি গরু দেয়া হলে মাদ্রাসার কয়েকজন শিক্ষক কোরবানির মাংসগুলোর এতিম শিক্ষার্থীদের জন্য না রেখে নিজেরা ভাগবাটোয়ারা করে নিয়ে যেতে চাইলে মাদ্রাসার মুহতামিম মাওলানা ইমদাদুল্লার ছোট ভাই ইছহাক আমীনি বিষয়টি নিয়ে শিক্ষকদের সাথে কথা বলেন। এক পর্যায়ে তাদের মধ্যে কথা কাটাকাটি ও হাতাহাতির ঘটনা ঘটে।এসময় শিক্ষক কাতিয়া গ্রামের মাওলানা আজির উদ্দিন আহত হন। পরে এলাকাবাসীর মধ্যস্থতায় বিষয়টি তাৎক্ষনিক সমাধান হয়। ঘন্টাখানের পর মাদ্রাসার শিক্ষক মাওলানা আজির নেতৃত্বে ইছহাক আমীনির ভাই মাওলানা ইসমাইল ও তার ছেলের ইমরানের ওপর হামলা চালানো হলে তারা আহত হন। ঊভয়পক্ষের আহতরা প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়ে ঈদ উদযাপন করলেও বুধবার আবারও দু’পক্ষের মধ্যে উত্তেজনা দেখা দেয়।
মাদ্রাসার মুহতামিম এমদাদুল্লাহক ভাই মাওলানা ইছহাক আমীনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,আমরা মাদ্রাসার প্রতিষ্ঠাতা হিসেবে মাদ্রাসার সবকিছু দেখাশুনা করছি। আমাদের ওপর হামলার মধ্যে দিয়ে শিক্ষকনামধারী ওই ব্যক্তি জঘন্য কাজ করেছেন।তিনি জানান, মাদ্রাসার সুনাম অক্ষুন্ন রাখতে বিষয়টি সামাজিকভাবে শেষ হওয়ার পরও ওই শিক্ষক হামলার মাধ্যমে অহেতুক বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির পায়তারা করছেন।তিনি ঘটনাটি জগন্নাথপুর থানাকে লিখিতভাবে অবহিত করবেন বলে জানান।
এবিষয়ে শিক্ষক মাওলানা আজির উদ্দিন এর সঙ্গে জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমক এর পক্ষ থেকে বার বার যোগাযোগ করার চেষ্ঠা করা হলেও মুঠোফোন বন্ধ থাকায় কথা বলা সম্ভব হয়নি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24