বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯, ১০:৫৮ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে এখনও সম্পন্ন হয়নি আ.লীগের ওয়ার্ড ভিত্তিত্ব কমিটি প্রাথমিক ও ইবতেদায়ি সমাপনী পরীক্ষা শুরু ১৭ নভেম্বর জগন্নাথপুরে সংবাদ প্রকাশের পর অবশেষে সুযোগ পেল ১৭ পরীক্ষার্থী বন্ধ হলো ফেসবুকের সাড়ে পাঁচ’শ কোটি ভুয়া অ্যাকাউন্ট রংপুর এক্সপ্রেসে আগুন, চারটি বগি লাইনচ্যুত জেলা মহিলা আ.লীগ নেত্রী রফিকা চৌধুরীর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে দোয়া মাহফিল অনুষ্ঠিত আর্জেন্টিনার আদালতে সু চির বিরুদ্ধে মামলা দায়ের ছাতক-সুনামগঞ্জ সড়কে বিআরটিসি বাস চালুর দাবি সম্মেলনকে সামনে রেখে জগন্নাথপুরে আ.লীগের কার্যকরী কমিটির সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে দুইটি সরকারি ইজারাকৃত জলাশয় থেকে মাছ শিকারের অভিযোগ

কৃষিতে বরাদ্দ বেড়েছে সাড়ে তিন হাজার কোটি টাকা

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৭ জুন, ২০১৮
  • ২৭৩ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক::খাদ্যে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অব্যাহত রাখতে এবার কৃষি খাতে ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে আগের বছরের চেয়ে ৩ হাজার ৫৯৫ কোটি টাকা বরাদ্দ বাড়িয়েছে সরকার।

আজ বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে নতুন বছরের জন্য ১৩ হাজার ৯১০ কোটি টাকা বরাদ্দ প্রস্তাব করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত। যা মোট বাজেটের ২ দশমিক ৯৯ শতাংশ। আগের বছরের সংশোধিত বাজেটে কৃষি খাতের বরাদ্দ ছিল ১০ হাজার ৩১৫ কোটি টাকা। যা ছিল মোট বাজেটের ২ দশমিক ৭৮ শতাংশ।

কৃষিতে ভর্তুকি কমাতে দাতা সংস্থা ও দেশের কয়েকটি বিদেশী সাহায্য নির্ভর এনজিও চাপ দিলেও সরকার কৃষি উন্নয়ন ও কৃষকের স্বার্থে আমলে নেয়নি তা। ২০১৮-২০১৯ অর্থবছরে কৃষি খাতে বরাদ্দের পাশাপাশি ভর্তুকিও বাড়ানোর প্রস্তাব করা হয়েছে। বৈরী প্রকৃতি ও আন্তর্জাতিক বাজারে জ্বালানী ও সারের ঊর্ধ্বমুখী মূল্য বিবেচনায় ২০১৮-১৯ অর্থবছরের প্রস্তাবিত বাজেটে ভর্তুকি ৯ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দের প্রস্তাব করা হয়েছে। গত অর্থ বছরের সংশোধিত বাজেটে যা ছিল ৬ হাজার কোটি টাকা। এ বছর ৩ হাজার কোটি টাকা বাড়ানো হয়েছে। খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে বাজেটে কৃষি খাতকে বেশি গুরুত্ব দেয়া হয়েছে। খাদে স্বয়ংসম্পূর্ণতা অব্যাহত ও সবার জন্য খাদ্য নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে সরকার এ খাতকে গুরুত্ব দিয়েছে।

বাজেট উপস্থাপনায় অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত বলেন, আবাদযোগ্য জমি ক্রমশ কমতে থাকা সত্ত্বেও আমাদের কৃষিবান্ধব নীতিকৌশল ও কর্মসূচি গ্রহণের ফলে কৃষিখাতের উৎপাদন বহুলাংশে বেড়েছে। কৃষি ভর্তুকি, সার-বীজসহ অন্যান্য কৃষি উপকরণ প্রণোদনা ও সহায়তা কার্ড, সেচ সুবিধা ও খামার যান্ত্রিকীকরণ, শস্য বহুমুখীকরণ ও বিপণন, কৃষি পুনর্বাসন সহায়তা ইত্যাদি সফল কার্যক্রমসমূহ আমরা প্রয়োজনীয় মাত্রায় অব্যাহত রাখবো। তবে প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে এক্ষেত্রে দক্ষতা আরো বাড়ানো হবে। ইতোমধ্যে মোবাইল ব্যাংকিং-এর মাধ্যমে নগদ আর্থিক সহায়তা সরাসরি কৃষকের নিকট পৌঁছানোর উদ্যোগ নেয়া হয়েছে এবং কৃষি উপকরণ সহায়তা কার্ডধারী কৃষকগণের তালিকা হালনাগাদ করা হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24