রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ভোলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ, নিহত ৪, শতাধিক আহত জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা ছাত্র সাব্বিরের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি সাংবাদিকতার উজ্জ্বল পরিম-লে কামকামুর রাজ্জাক রুনু এক স্বপ্নচারী পুরুষ শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে আ.লীগের আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে শ্রমিকলীগের কমিটি বিলুপ্ত জগন্নাথপুরের তিন রাজনীতিবীদ জেলা আ,লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মনোনীত হলেন জগন্নাথপুরে দুইপক্ষের বিরোধে বলি হলো মাদ্রাসার ছাত্র সাব্বির জগন্নাথপুরে ছিনতাইকৃত গ্রামীণফোনের রিচার্জ কার্ড-অর্থসহ ডাকাত গ্রেফতার জগন্নাথপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে শিশু নিহত

কোটা বিরোধী আন্দোলন ও প্রাসংগিক ভাবনা-মনোরঞ্জন তালুকদার

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১০ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৭৬ Time View

সম্প্রতি বাংলাদেশে কোটা বিরোধী বা কোটা সংস্কার যাই বলিনা কেন এই ধরনের একটি আন্দোলনে চলছে। আন্দোলনের শুরুতেই এই আন্দোলনের অযৌক্তিকতা তুলে ধরে আমি একটা লিখা লিখেছিলাম। তখন আন্দোলনটা যে ক্ষুদ্র পরিসরে হচ্ছিল এবং এই আন্দোলনের সমর্থনে যারা লেখালেখি করছিলেন তখনই আমার মনে হয়েছিল এই আন্দোলনের পিছনে গভীর কোন ষড়যন্ত্র লুক্কায়িত আছে। যারা লেখালেখি করছিলেন তাদের রাজনৈতিক পরিচয় সম্পর্কে যেহেতু সেচেতন প্রতিটি মানুষই অবগত তাই এই সন্দেহ অমূলক ছিলনা। তারচেয়েও বড় কথা তারা তাদের লিখনিতে অসত্য, অর্ধসত্য এবং তথ্য গোপন করে লিখা লিখছিলেন। এর ফলে কোমল মতি ছাত্র/ছাত্রীরা বুঝে না বুঝে এই আন্দোলনে ব্যাপকভাবে অংশ গ্রহণ করা শুরু করে। যা পরবর্তীতে দেশের প্রধান প্রধান বিশ্ববিদ্যালয়গুলুতেও ছড়িয়ে পড়ে। ছাত্রদের এই কোটা বিরোধী আন্দোলনের মাধ্যমে অনেকেই ঘোলা পানিতে মাছ শিকারের অপচেষ্টা করেছিলেন বা করছেন তা আজ দিবালোকের মত স্পষ্ট। কোটা সংস্কারের দাবীতে সংঘটিত আন্দোলনের কিছু ঘটনাবলী বিশ্লেষণ করলে তা স্পষ্ট ভাবে প্রতীয়মান হয়।

প্রথমত যারা কোটা বিরোধী আন্দোলন কে সমর্থন করে লেখালেখি করছিলেন বা টিভি টকশো তে বক্তব্য রাখছিলেন তাদের প্রধান অভিযোগ ছিল তিনটি –

ক। ৫৬% কোটা পৃথিবীর কোথাও নেই

খ। কোটা ব্যবস্থার ফলে মেধাবীরা বঞ্চিত হচ্ছে এবং মেধাহীনরা চাকুরী পাচ্ছে।

গ। স্বাধীনতার ৪৭ বছর পরও কোটা ব্যবস্থার যৌক্তিকতা কতটূকূ?

ঊপরে উল্লেখিত তিনটি অভিযোগই অসত্য বিভ্রান্তি কর এবং অসৎ উদ্দেশ্যপ্রনোদিত। যারা এ সমস্ত কথা বলেছেন তারা জ্ঞানী গুনী মানুষ। তারা যে সঠিক তথ্যগুলো জানেন না তা বিশ্বাস করার কোন যৌক্তিক কারন নেই। ইচ্ছে করেই দেশে একটা অস্থিতিশীল পরিবেশ সৃষ্টি করার মানসে এই অপকর্মটি তারা করেছেন। আমি প্রথমে তথ্য উপাত্তের মাধ্যমে তাদের দুরভিসন্ধির স্বরূপ উন্মোচনের চেষ্টা করব এবং পরবর্তীতে তাদের এই দুরভিসন্ধিরমূলক প্রচরনায় সাধারণ ছাত্র/ ছাত্রী কিভাবে বিভ্রান্ত হয়েছে তা আলোচনা করার চেষ্টা করব।

বাংলাদেশে কোটা হচ্ছে ৫৬% আর আমাদের পার্শ্ববর্তী ভারতে কোটা হচ্ছে ৯২%। ভারতের কোটা ব্যবস্থার বিস্তারিত তথ্য এখানে আর নতুন করে দিলাম না কারন আমার আগের লিখাতেই তথ্যগুলো দেয়া আছে। তাছাড়া আগ্রহী যে কোন পাঠক চাইলেই এই তথ্যগূল গূগূলে সার্চ করে দেখে নিতে পারেন।

দ্বিতীয়তঃ কোটা ব্যবস্থায় মেধাবীরা বঞ্চিত হচ্ছে বলে যে অভিযোগ করা হচ্ছে তাও ডাহা মিথ্যে তথ্য। বাংলাদেশে পচাত্তর পরর্বতী যতগুলো নিয়োগ পি এস সি এর মাধ্যমে হয়েছে সেখানে গড়ে ৬৭% থেকে ৭২% নিয়োগ সব সময়ই মেধার ভিত্তিতে হয়েছে। আগ্রহী পাঠকরা পি এস সি এর বার্ষিক প্রতিবেদন গুলো পড়ে দেখতে পারেন। তাছাড়া যারা কোটায় নিয়োগপ্রাপ্ত হন তারাও কিন্তু প্রিলিমিনারী, লিখিত এবং ভাইবা পরিক্ষায় পাশ করার পরই কোটায় নিয়োগ লাভ করেন। কিন্তু প্রচারণাটা এমন ছিল যে মনে হচ্ছিল তারা কোন পরীক্ষা না দিয়েই কোটায় চাকুরি পেয়ে যাচ্ছিলেন।

তৃতীয়তঃ ভারত আমাদের আগে স্বাধীন হলেও তারা যদি এখনো কোটা ব্যবস্থা অব্যাহত রাখতে পারে তবে আমাদের দেশের কি এতই সামাজিক সাম্য ও ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠিত হয়ে গেছে যে কোটা ব্যবস্থা তুলে দিতে হবে?

কানাড, আমেরিকা আজও তাদের স্বাধীনতার সংগ্রামীদের নানা রাষ্ট্রীয় সুযোগ সুবিধা দিয়ে থাকে। সবচেয়ে অবাক লাগে পাকিস্তান রাষ্ট্র কাঠামোতে যারা কোটা ব্যবস্থার কারনে সি এস পি হয়েছিলেন তারাও আজ কোটা ব্যবস্থার বিরোধিতা করেন দেখে।

মনে রাখতে হবে ,শুধু মেধাবী প্রশাসন দিয়ে দেশের উন্নয়ন সম্ভব নয়। মেধার সাথে মননের সমন্বয় না হলে দেশের উন্নয়ন অসম্ভব । একজন মেধাবী লোক যদি দেশপ্রেমিক না হয় তবে দেশের জন্য কোন হিতকর কাজ করা তার পক্ষে সম্ভব নয়। তাই দেশ গড়ার জন্য যেমন মেধবী লোকের প্রয়োজন তেমনি প্রয়োজন মুক্তিযুদ্ধের চেতনায় বিশ্বাসী মানুষের। একাত্তরে এই দেশের ত্রিশ লক্ষ মানুষ জীবন দিয়েছিল কিছু স্বপ্নকে বাস্তবায়িত করবে বলে। তাঁদের সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন এই দেশের দেশপ্রেমিক প্রতিটি নাগরিকের দায়। যেদিন এই সমাজে তাঁদের স্বপ্ন পুরোপুরি বাস্তবায়িত হবে সেদিনই আমাদের দায়মুক্তি ঘটবে।

কিন্তু এই আন্দোলনের সমর্থনে প্রচার প্রপাগন্ডা এতটাই তীব্র ছিল যে, আমার ধারণা এতে সাধারণ ছাত্র/ছাত্রীরা না বুঝেই অথবা স্বার্থন্বেষী মহলের প্ররোচনায় এই আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করেছে। দু একটা উদাহরনের মাধ্যমে তা পরিস্কার করা যাক।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের যে ছাত্রীরা রাত ১২টায় হলের গেট ভেঙে আন্দোলনে অংশগ্রহণ করেছে তারা কি এটা জানেনা যে , ১০% কোটা তাদের জন্য সংরক্ষিত আছে? এটা জানার পরও কেন তারা এমনটি করলো? তার কারন একটাই। তখন ক্যাম্পাস জুড়ে এই রিউমার ছড়িয়ে পড়ে যে , পুলিশের গুলিতে দুজন ছাত্র মারা গেছে। এই রিউমার ছড়ানো কি ষড়যন্ত্রের অংশ নয়?

আজ যদি জেলা কোটা কমিয়ে দেয়া হয় তবে সবচে বেশী ক্ষতিগ্রস্ত হবে হাওরাঞ্চল ও চরাঞ্চলের ছাত্র/ ছাত্রীরা। তাই বলে কি এ সমস্ত অঞ্চলের ছাত্র/ ছাত্রীরা এই আন্দোলনে অংশ গ্রহণ করছেনা? তাহলে ছাত্রীদের এবং পিছিয়ে থাকা অঞ্চলের ছাত্র/ছাত্রীদের আন্দোলনে অংশগ্রহণ করাকে আমরা কিভাবে ব্যাখ্যা করব? আমি নিশ্চিত আজ যদি কোটা ব্যবস্থা আন্দোলক কারীদের দাবী অনুযায়ী ১০% করা হয় তবে কিছুদিনের মধ্যেই কোটার দাবীতে আবার আন্দোলন শুরু হবে।

কোটা সংস্কার করা হবে কি হবে না তা সরকারের নীতিগত সিদ্ধান্তের ব্যাপার। সেখানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মানীয় উপাচার্যের বাসায় আগুন দিয়ে তাকে হত্যার চেষ্টা করা হলো কেন? কেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সন্মানিত শিক্ষক শিক্ষিকাদের রাতের আধারে শারীরিক ভাবে লাঞ্চিত করা হলো? যারা এমনটি করেছে তারা নিশ্চিত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী নয়। মুখ ঢেকে কেন বহিরাগতরা এসে এই আন্দোলনে যুক্ত হলো?

ঢাকা বিশ্ববিয়ালয়ে নানা সময়ে নানা রকম আন্দোলন হয়েছে কিন্তু কখনো কি উপার্চাযের বাসবভন এমন করে আক্রান্ত হয়েছে? ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের লাশ ফেলার মাধ্যমে সরকার পতনের আন্দোলন তীব্র করার কথাতো টেলিফোনে অনেক ষড়যন্ত্রকারী অনেক আগেই বলেছিলেন। ভিসি বাসভনে আক্রমন সেই ষড়যন্ত্রেরই অংশ হলেও হতে পারে।

সর্বোপরী মাননীয় প্রধানমন্ত্রী যেখানে শুণ্য পদে মেধাবীদের নিয়োগ দানের নির্দেশ দিয়েছেন সেখানে এই আন্দোলনের যৌক্তিকতা কি?

পরিশেষে বলতে চাই, মুক্তিযুদ্ধের চেতনার বাংলাদেশ গড়তে, দেশের সমস্ত অঞ্চলে উন্নয়নের সমতা প্রতিষ্ঠার স্বার্থে কোটা ব্যবস্থা বহাল রাখার কোন বিকল্প নেই। কোটা ব্যবস্থার ব্যাপক কোন সংস্কার মুক্তিযুদ্ধের সামগ্রিক চেতনাকেই ভুলন্ঠিত করবে।

লেখক-মনোরঞ্জন তালুকদার.সহকারী অধ্যাপক জগন্নাথপুর ডিগ্রি কলেজ Email: formonoranjan@gmai.com

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24