শুক্রবার, ১৩ ডিসেম্বর ২০১৯, ০৩:০০ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ব্রিটিশ পালার্মেন্টে ঝড় তুলবে বিজয়ী বাংলাদেশি বংশোদ্ভূত ৪ নারী এমপি ব্রিটেনের নির্বাচনে একটি আসনে বিশাল জয় পেয়েছেন জগন্নাথপুরের আফসানা বেগম অপরাধীদের প্রতি মহানবীর আচরণ যেমন ছিল সুদখোরদের ধরতে জেলা ও উপজেলায় মাঠে নামছে প্রশাসন জগন্নাথপুরে হাওরের জরিপ কাজ শেষ, কাজের তুলনায় বরাদ্দ কম, প্রকল্প কমিটি হয়নি একটিও জগন্নাথপুরে ডিজিটাল বাংলাদেশ উপলক্ষ্যে র‌্যালি, চিত্রাঙ্কন ও কুইজ প্রতিযোগিদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ জগন্নাথপুরে শিশু সাব্বির হত্যার ঘটনার গ্রেফতার-১ এনটিভি ইউরোপের জগন্নাথপুর প্রতিনিধি নিয়োগ পেলেন আব্দুল হাই আইসিটি লানিং প্রশিক্ষণে থাইল্যান্ড যাচ্ছেন পরিচালক প্রতাপ চৌধুরী ওয়াজ মাহফিল যেন কারো কষ্টের কারণ না হয়

গুলশান ট্রাজেডি যৌথ গোয়েন্দা তৎপরতা চালানোর প্রস্তাব

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৫ জুলাই, ২০১৬
  • ২০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক::সন্ত্রাস দমনে বিদেশীদের সঙ্গে নিয়ে সমন্বিত পদক্ষেপের চিন্তা সরকারের * দাতা সংস্থা প্রত্যাহার করতে পারে জাপান
গুলশানে হলি আর্টিজান বেকারি জঙ্গি হামলার ঘটনায় বাংলাদেশে সমন্বিত কূটনৈতিক ও যৌথ গোয়েন্দা তৎপরতা চালানোর আগ্রহ প্রকাশ করেছে ইতালি এবং জাপান। দু’দেশের পররাষ্ট্রমন্ত্রীর মধ্যে আলোচনার পর বাংলাদেশ সরকারের কাছে তারা আনুষ্ঠানিকভাবে এ প্রস্তাব দেয়। এদিকে সন্ত্রাসী হামলার ‘সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিকমানের তদন্ত’ চেয়েছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এ ব্যাপারে দেশটি প্রয়োজনে এফবিআইসহ আইন প্রয়োগকারী সংস্থার মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে সবধরনের সহায়তার প্রস্তাব করেছে। নিরাপত্তার অভাবে ইতালির বিনিয়োগকারীদের ব্যবসা চালিয়ে যাওয়ার ব্যাপারেও সংশয় দেখা দিয়েছে। তাছাড়া নিরাপত্তাজনিত কারণে জাপানও বাংলাদেশ থেকে দাতা সংস্থা জাইকার কার্যক্রম প্রত্যাহার করতে পারে।

এ অবস্থায় বিদেশীদের মধ্যে আস্থার সংকট যেভাবে প্রকট আকার ধারণ করেছে, তা ফিরিয়ে আনার জন্য বাংলাদেশ নানামুখী কূটনৈতিক তৎপরতা শুরু করেছে। উদ্ভূত পরিস্থিতিতে সন্ত্রাস দমনে ও নিরাপত্তার উন্নয়নে বিদেশীদের সঙ্গে নিয়ে সমন্বিত উদ্যোগের চিন্তা করছে সরকার। বহির্বিশ্বে মারাত্মক বিরূপ প্রতিক্রিয়ার প্রেক্ষাপটে বাংলাদেশের প্রতি বিদেশীদের আস্থা ফেরাতে এমন উদ্যোগের প্রয়োজনীয়তার কথা সরকারের উচ্চমহলে আলোচনা হচ্ছে। তবে এ ব্যাপারে সুনির্দিষ্ট কোনো সিদ্ধান্ত এখন পর্যন্ত হয়নি বলে কর্মকর্তারা জানিয়েছেন। ফলে বিদেশীদের আশ্বস্ত করতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী আজ রাষ্ট্রীয় অতিথি ভবন পদ্মায় যে বৈঠকে বসছেন, সেখানে এ বিষয়ে খোলাসা করে কিছু বলা হবে না বলে কূটনৈতিক সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।

প্রধানমন্ত্রী এখন পর্যন্ত যেসব কথা বলেছেন, কূটনীতিকদের বৈঠকে পররাষ্ট্রমন্ত্রী ওই সুরেই কথা বলবেন বলে জানা গেছে। এই বৈঠকের মূল উদ্দেশ্য হল, বর্তমান পরিস্থিতিতে বিদেশী কূটনীতিকদের আনুষ্ঠানিকভাবে সঙ্গে বসা এবং তাদের আশ্বস্ত করা।

জঙ্গি হামলায় নিজ নিজ দেশের নাগরিক নিহতের ঘটনায় বাংলাদেশে সমন্বিত কূটনৈতিক ও গোয়েন্দা তৎপরতা পরিচালনার সিদ্ধান্ত নিয়েছে ইতালি ও জাপান। ইতালির পররাষ্ট্রমন্ত্রী পাওলো জেনতিলিনি ও জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রী ফুমো কিসিদার টেলিফোন আলাপ করে এ সিদ্ধান্ত নেন। সোমবার ইতালির পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে। এতে বলা হয়, ৪ জুলাই ইতালির পররাষ্ট্রমন্ত্রী জাপানের পররাষ্ট্রমন্ত্রীকে ফোন করেন। টেলিফোনে তারা গত এক জুলাই ঢাকায় হলি আর্টিজান বেকারিতে ভয়াবহ জঙ্গি হামলার প্রসঙ্গ নিয়ে আলাপ করেন। ওই হামলায় ইতালির ৯ ও জাপানের ৭ নাগরিক নিহত হওয়ার ঘটনায় তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেন। আলোচনায় তারা সিদ্ধান্ত নেন, ঢাকায় উদ্ভূত পরিস্থিতিতে ইতালি ও জাপান বাংলাদেশে সমন্বিত কূটনৈতিক ও গোয়েন্দা তৎপরতা চালাবে। এছাড়া আলাপে তারা জি-৭ দেশগুলোর মধ্যে যৌথ স্বার্থসংশ্লিষ্ট বিষয়গুলোতে সহযোগিতা আরও দৃঢ় করার প্রতিশ্রুতি ব্যক্ত করেন বলেও বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়।

হলি আর্টিজানে সন্ত্রাসী হামলার ‘সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক মানের তদন্ত’ চায় মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র। এ ব্যাপারে প্রয়োজনে এফবিআইসহ আইন প্রয়োগকারী সংস্থার মাধ্যমে তাৎক্ষণিকভাবে সহায়তা করার প্রস্তাব করেছে দেশটি। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে টেলিফোনে আলাপকালে এই প্রস্তাব করেন মার্কিন পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি। এছাড়া সন্ত্রাস মোকাবেলায় বিদেশীরা নানা ধরনের প্রস্তাব দিচ্ছেন। এসব প্রস্তাবে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানোসহ আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে সঙ্গে নিয়ে সম্মিলিত পদক্ষেপের কথা বলা হচ্ছে।

মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের মুখপাত্র জন কিরবি বলেছেন, ‘ঢাকায় হলি আর্টিজান রেস্তোরাঁয় ভয়াবহ হামলার পরিপ্রেক্ষিতে পররাষ্ট্রমন্ত্রী জন কেরি বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাকে টেলিফোন করেছেন। সন্ত্রাসীদের হাতে অনেক নিরীহ মানুষের প্রাণহানির ঘটনায় পররাষ্ট্রমন্ত্রী শোক প্রকাশ করেন। সন্ত্রাসীরা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র, বাংলাদেশ এবং আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে হুমকি দিচ্ছে। পররাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারকে সর্বোচ্চ আন্তর্জাতিক মানে তদন্ত করার জন্য উৎসাহিত করে। এ ব্যাপারে তাৎক্ষণিকভাবে এফবিআইসহ মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের আইন প্রয়োগকারী সংস্থার সহায়তার প্রস্তাব করেন। তিনি এই হামলার পরিকল্পনাকারী ও পরিচালনাকারীদের ধরে বিচার করতে এবং ভবিষ্যতে হামলা মোকাবেলা করতে বাংলাদেশের পদক্ষেপকে সমর্থন দেয়ার কথা পুনর্ব্যক্ত করেন।’

এ অবস্থায় যৌথ নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে ইউরোপীয় ইউনিয়নের উচ্চ ক্ষমতাসম্পন্ন একটি প্রতিনিধি দল ঈদের পর বাংলাদেশে আসার সম্ভাবনা রয়েছে। অন্যান্য দেশ থেকেও নিরাপত্তা বিশেষজ্ঞরা বাংলাদেশে আসবেন বলেও জানা গেছে। তবে ওইসব বিদেশী বিশেষজ্ঞদের সঙ্গে বাংলাদেশ কীভাবে কাজ করবে তার ওপরই নির্ভর করছে জঙ্গি দমনের যৌথ পরিকল্পনা।

এ সম্পর্কে সংশ্লিষ্ট একজন কর্মকর্তা বলেছেন, ‘পররাষ্ট্রমন্ত্রী আজ সকালে বিদেশী কূটনীতিকদের পরিস্থিতি ব্রিফ করার জন্য ডেকেছেন, সেখানে তিনি প্রধানমন্ত্রী এখন পর্যন্ত যেসব কথা বলেছেন, ওই সুরেই বিদেশী কূটনীতিকদের ব্রিফ করবেন। এই বৈঠকের মূল উদ্দেশ্য হলো, বর্তমান পরিস্থিতিতে বিদেশী কূটনীতিকদের সঙ্গে আনুষ্ঠানিকভাবে বসা এবং তাদের আশ্বস্ত করা। এখানে সম্মিলিত পদক্ষেপের ব্যাপারে সরকারের চিন্তা প্রকাশের কোনো নির্দেশনা সর্বোচ্চ পর্যায় থেকে দেয়া হয়নি বলে সূত্র জানিয়েছে।’

ওই কর্মকর্তা আরও বলেন, ‘গুলশানে হামলার জন্য বাংলাদেশকে ভয়াবহ খেসারত দিতে হবে। জাইকার কার্যক্রম গুটিয়ে নেয়ার যে খবর বেরিয়েছে, সেটি সত্য হলে তার নানামুখী বিরূপ প্রভাব পড়বে।’ তিনি ক্ষোভের সঙ্গে বলেন, ‘পুলিশের উচ্চ পর্যায় থেকে বিভিন্ন সময়ে বৈঠকে বলা হয়েছে যে, বিভিন্ন স্তরে নিরাপত্তার ব্যবস্থা করা হয়েছে। পুলিশের কথায় মনে হয়েছিল যে, একটি মশাও কূটনৈতিক এলাকায় ঢুকতে পারবে না!’ পশ্চিমা একজন কূটনীতিক যুগান্তরকে বলেছেন, ‘রানা প্লাজা ধসের পর বিদেশীদের সঙ্গে নিয়ে পোশাক শিল্পে যেভাবে সম্মিলিত পদক্ষেপ নেয়া হয়েছে; নিরাপত্তার ক্ষেত্রেও একই ধরনের ব্যবস্থা নেয়া প্রয়োজন। এ ব্যাপারে সহযোগিতায় আন্তর্জাতিক সম্প্রদায় প্রস্তুত। নিরাপত্তা বাংলাদেশকে সহায়তার আরেকটি ক্ষেত্র হতে পারে।’ তিনি এও বলেন, পরিস্থিতি পর্যালোচনায় এখন বিভিন্ন দেশের নিরাপত্তা প্রতিনিধি দল বাংলাদেশে আসবে। বিদেশী দূতাবাসগুলোও কূটনৈতিক পুলিশসহ সবার সঙ্গে বসে নিরাপত্তা ব্যবস্থা ঢেলে সাজানোর চিন্তা করবে।

সন্ত্রাস দমনে বিদেশীদের সঙ্গে নিয়ে সমন্বিত পদক্ষেপের চিন্তা আছে কিনা- জানতে চাইলে পররাষ্ট্র সচিব মো. শহীদুল হক সোমবার রাতে যুগান্তরকে বলেন, ‘সন্ত্রাস দমন ও নিরাপত্তা নিয়ে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে সম্মিলিত কার্যক্রম সব সময়ই ছিল, ভবিষ্যতেও থাকবে’। এক্ষেত্রে, রানা প্লাজার ঘটনার পর পোশাক শিল্পে যেভাবে যৌথ কাজ করেছে; একইভাবে বিদেশীদের সঙ্গে সম্পৃক্ত হয়ে কাজ করার চিন্তাভাবনা আছে কিনা- জানতে চাইলে সচিব বলেন, ‘বাংলাদেশের কাজ বাংলাদেশের মানুষকেই করতে হবে। বাইরের কেউ করে দেবে না।’ বিদেশীদের সঙ্গে না নিলে বিদেশীদের আস্থা কতটা ফিরবে জানতে চাইলে শহীদুল হক বলেন, ‘অবশ্যই ফিরবে। আস্থা না ফেরার কী আছে!’ জাপান ও ইতালির পক্ষ থেকে বাংলাদেশকে কোনো সুপারিশ দিয়েছে কিনা জানতে চাইলে তিনি বলেন, ‘তারা সুপারিশ করছেন, একসঙ্গে কাজ করার সুপারিশ।’

এদিকে বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকার গুলশানে হলি আর্টিজান রেস্টুরেন্টে জঙ্গি হামলায় জাপানের সাত নাগরিক নিহত ও এক জাপানি আহত হওয়ার পর বাংলাদেশ থেকে দাতা সংস্থাগুলো প্রত্যাহার করতে পারে জাপান। মার্কিন দৈনিক ওয়াল স্ট্রিট জার্নালের খবরে এমন আশঙ্কাই ব্যক্ত করা হয়েছে। জাপান ইন্টারন্যাশনাল কো-অপারেটিভ এজেন্সি (জাইকা) বাংলাদেশসহ দক্ষিণ এশিয়ার দেশগুলোতে পানি, স্যানিটেশন ব্যবস্থা, ভবন, সেতু, সড়ক ও রেলপথসহ কয়েক ডজন প্রকল্পে কাজ করে আসছে। জাইকার এক মুখপাত্র জানান, সাম্প্রতিক সময়ের হত্যাকাণ্ডের পর তারা বাংলাদেশ থেকে সাহায্য সংস্থাগুলো প্রত্যাহারের চিন্তা করছেন। শুক্রবার রাতে জঙ্গিদের হামলায় নিহত সাত জাপানি নাগরিকের মধ্যে ছয়জনই মেট্রোরেল প্রকল্পের সমীক্ষার কাজে ঢাকায় এসেছিলেন। তারা টোকিওভিত্তিক ওরিয়েন্টাল কনসালটেন্ট গ্লোবাল কোম্পানি এবং কাতাহিরা অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ার্স ইন্টারন্যাশনালের হয়ে কাজ করছিলেন। নিহতদের সবাই বাংলাদেশের উন্নয়ন কাজের জন্য ঢাকায় এসেছিলেন বলে উল্লেখ করে ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন জাপানের প্রধানমন্ত্রী শিনজো আবে। জাইকার প্রেসিডেন্ট শিনিসি কিয়াটোকা বলেন, গত অক্টোবরে দেশের উত্তরাঞ্চলে এক জাপানি নাগরিক নিহত হওয়ার পরই বাংলাদেশকে অতিরিক্ত সতর্ক থাকতে পরামর্শ দেয়া হয়েছিল।

তাছাড়া ইতালির যে ৯ জন নিহত হয়েছেন, তারা প্রত্যেকেই বাংলাদেশের ব্যবসার সঙ্গে জড়িত ছিলেন। বিশেষ করে তৈরি পোশাক রফতানির গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করতেন তারা। এ ক্ষেত্রে ইতালির ওইসব ব্যবসায়ী বাংলাদেশের সঙ্গে তাদের ব্যবসা চালু রাখবেন কিনা তা নিয়েও দেখা দিয়েছে শংকা। তাছাড়া ভারতের এক নাগরিক নিহত হওয়ার পর ভারতের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রী গভীর শোক প্রকাশ করে সব সংকটে বাংলাদেশের পাশে থেকে সব ধরনের সহায়তার আশ্বাস দিয়েছেন।

ঢাকার গুলশানে সন্ত্রাসী হামলায় হতাহতের ঘটনায় গভীর শোক ও সমবেদনা জানিয়ে পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলীকে টেলিফোন করেছেন ওআইসি মহাসচিব ইয়াদ আমিন মাদানি। টেলিফোনে সন্ত্রাসবিরোধী লড়াইয়ে বাংলাদেশকে ইসলামী সহযোগিতা সংস্থাটির সহযোগিতার আশ্বাসও তিনি দিয়েছেন বলে পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন। গুলশানের ওই ঘটনায় বাংলাদেশের মানুষ ও সরকারকে সমবেদনা জানাতে বাংলাদেশে আসতে চেয়েছিলেন ওআইসি প্রধান। আসন্ন ঈদের কারণে আসতে না পারায় শিগগির সুবিধাজনক সময়ে বাংলাদেশ সফর করতে চান তিনি।

অস্ট্রেলিয়ার পররাষ্ট্রমন্ত্রী জুলি বিশপ গুলশানে সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা জানিয়েছেন। ঢাকায় অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশন সোমবার এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘আমরা বাংলাদেশের জনগণ ও আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়ের সঙ্গে ঢাকায় সন্ত্রাসী হামলার তীব্র নিন্দা জানাই। ওই হামলায় বিদেশী নাগরিক, বাংলাদেশী ও পুলিশসহ ২২ জন নিহত হয়েছেন। অস্ট্রেলিয়ার হাইকমিশন এই হামলায় নিহতদের পরিবার ও বন্ধুদের প্রতি গভীর শোক প্রকাশ করে। আমরা সহিংস উগ্রবাদ ও সন্ত্রাস দমনে বাংলাদেশের প্রচেষ্টাকে সমর্থন দিতে প্রস্তুত আছি।’

পাকিস্তানের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয় এক বিবৃতিতে জানায়, ‘ঢাকায় কাণ্ডজ্ঞানহীন সন্ত্রাসী হামলার নিন্দা জানায় পাকিস্তান। এই হামলায় অনেক নিরীহ মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। অনেকে আহত হয়েছেন। পাকিস্তানের সরকার ও জনগণ নিহতদের পরিবার ও বাংলাদেশের সরকার ও জনগণের প্রতি গভীর সমবেদনা জানায় এবং আহতদের দ্রুত আরোগ্য কামনা করে। পাকিস্তান বাংলাদেশের ভ্রাতৃপ্রতিম জনগণের প্রতি সংহতি জানায় এবং দৃঢ় আস্থা প্রকাশ করে, বাংলাদেশ সরকার এই কাপুরুষোচিত হামলা কার্যকরভাবে মোকাবেলা করতে পারবে। পাকিস্তান সব ধরনের সন্ত্রাসের বিরুদ্ধে নিন্দার কথা পুনর্ব্যক্ত করছে।’

এদিকে জাপানের বিশেষ বিমানে নিহত জাপানি নাগরিকদের মরদেহ নিয়ে সোমবার নিজ দেশে ফিরে গেছেন স্বজনরা। পররাষ্ট্রমন্ত্রী আবুল হাসান মাহমুদ আলী হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে তাদের বিদায় জানান। এদিকে ইতালির বিশেষ বিমান আজ ভোর চারটায় মরদেহ নিয়ে দেশে ফিরে যাচ্ছে। অপরদিকে নিহত ভারতীয় তরুণীর মরদেহ সোমবার জেট এয়ারলাইন্সে দেশে পাঠানো হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24