শনিবার, ১৮ জানুয়ারী ২০২০, ১০:৪৭ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
পৌর মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহে হিন্দু কমিউনিটি নেতাদের শ্রদ্ধা নিবেদন চিরনিদ্রায় নিজের তৈরী কবরে শায়িত জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ শ্রদ্ধা আর ভালবাসায় জগন্নাথপুর পৌরসভার জননন্দিত মেয়র আব্দুল মনাফকে শেষ বিদায়,জানাজায় শোকার্ত মানুষের ঢল পৌর মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহে পরিকল্পনা মন্ত্রীর শ্রদ্ধা নিবেদন পৌর চত্বরে মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহে শ্রদ্ধা নিবেদন চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সন্মেলনে পরিবর্তনের পক্ষে তৃণমূল নেতাদের আওয়াজ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফের মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে:শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরে শিশুর মৃত্যু:’শিশুটি যখন মৃত্যুের যন্ত্রনায় চটপট করছিল,যখন ডাক্তার-নার্স ঘুমে’ জগন্নাথপুর পৌরসভার মেয়র আব্দুল মনাফ এর মরদেহ গ্রামের বাড়িতে এসেছে শোকার্ত জনতার ঢল জগন্নাথপুরের চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন সম্পন্ন হলেও কমিটি হয়নি

গোয়েন্দা কাহিনী জিন নয়, মানুষ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ৩ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৭০ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক ::
ছয় বছরের ফুটফুটে শিশু মাইমুনা। সাত সকালেই পাওয়া গেল তার লাশ।
হাত ভাঙা, ঘাড় মটকানো। মিলেছে তাদেরই বাসার গোসলখানার পানির ড্রামে! পা উপরে মাথা নিচে। মাইমুনার মা বলছে, জিনের আছর। জিন তার মেয়েকে ঘাড় মটকে দিয়েছে। এরপর থেকেই গোটা এলাকায় রটে গেছে-মাইমুনাকে জিনে ঘাড় মটকেছে। সকাল থেকেই মাইমুনাদের বাসার সামনে মানুষের ভিড়। শত শত মানুষ বাসার ভিতর ঢুকছে। আর হা হুতাশ করতে করতে বের হচ্ছে। শহরে জিনের আছর! মানুষের মধ্যে ভয়। পুলিশের কানেও কথাটা চলে যায়। ছুটে আসে পুলিশ। লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য পাঠানো হয় মর্গে। শুরু হয় পুলিশের তদন্ত।

যাত্রাবাড়ীর ধলপুরে ২০১৪ সালের ১০ অক্টোবর মাইমুনাকে হত্যা করা হয়। খুনি কে? জিন নাকি মানুষ-পুলিশের তদন্ত সেটাই।

বাসায় ছিলেন মাইমুনার দাদি, মা, ছোট বোন আর বাবা। প্রত্যেককেই পুলিশ জেরা করছে। মা বলছে জিনের আছর। কিন্তু আর কেউ জিনের কথা বলছে না। ৭০ বছর বয়েসী দাদি ফুলজাহান বেগমের সন্দেহ মাইমুনার মা শারমিনের দিকে। শারমিন মাইমুনার সত্মা। দিনভর তদন্ত শেষে পুলিশেরও সন্দেহ হয় সত্মা শারমিনকে নিয়ে। অবশেষে পুলিশের নানা কৌশলে খুনের রহস্য বেরিয়ে আসে। পুলিশ নিশ্চিত হয়, জিন নয়, হত্যা করেছে মানুষ। আর খুনি হলেন মাইমুনার সত্মা শারমিন। মাইমুনা স্থানীয় আয়শা সিদ্দিকা মহিলা মাদ্রাসায় প্রথম শ্রেণিতে পড়ত। ঘটনার প্রায় পাঁচ বছর আগে তার মা রুনা আক্তারের মৃত্যু হয়। এক বছর বয়সে মাকে হারানোর পর দাদিই ছিল তার কাছে সব। বাবা থাকলেও সত্মায়ের সংসারে পান থেকে চুন খসলেই মারধর ছিল তার ‘প্রাপ্য’। তবু সেই সত্মায়ের ‘ভয়’ কাটাতে ঘটনার আগের রাতে তার সঙ্গে ঘুমাতে গিয়েছিল মাইমুনা। কিন্তু সদা চঞ্চল বাচ্চা মেয়েটি আর ঘুম থেকে জেগে দাদির কাছে যেতে পারেনি। সকালে তার হাত ভাঙা, ঘাড় মটকানো লাশ মিলেছে তাদেরই বাসার গোসলখানার পানির ড্রামে। রাজধানীর যাত্রাবাড়ী থানার পুলিশ মাইমুনার লাশ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মিটফোর্ড হাসপাতাল মর্গে পাঠিয়েছে। এ ঘটনায় পুলিশ মাইমুনার সত্মা সুমাইয়া ইসলাম শারমিনকে গ্রেফতার করে। নিষ্ঠুর ওই ঘটনার খবর শুনে শত শত মানুষ ভিড় করেন ধলপুরের ওই বাসায়। মা হারানো শিশুর এমন হত্যাকাণ্ডে অনেকে চোখের পানি ধরে রাখতে পারেননি। পুলিশি তদন্তে বেরিয়ে আসে শিশু মাইমুনার নামে সাত লাখ টাকার একটি ফিক্সড ডিপোজিট রিসিপট (এফডিআর) রয়েছে। এটা আত্মসাতের ইচ্ছা ছিল শারমিনের। শারমিন পুলিশের কাছে ঘটনার বর্ণনা দেন। তিনি বলেন, ‘ঘুমের ঘোরে দেড় মাস বয়সী সেবান কিফতিয়ার গায়ে পা তুলে দিয়েছিল মাইমুনা। ব্যথা পেয়ে কিফতিয়া কেঁদে ওঠে। সঙ্গে সঙ্গেই হেঁচকা টানে মাইমুনার পা এনে কামড় বসিয়ে দেই। ব্যথায় চিৎকার করে উঠলে মাইমুনার মুখে বালিশ চেপে ধরি। কিছুক্ষণের মধ্যেই মাইমুনা নিস্তেজ হয়ে যায়। বালিশ চাপায় মাইমুনা নিস্তেজ হয়ে পড়লেও রাগ কমেনি আমার। তার ঘাড় মটকে দেই। জানাজানি হওয়ার পর আমি সবাইকে বলি জিনে মারছে মাইমুনাকে। ’

ঘটনার পর মাইমুনার দাদি পুলিশকে জানান, দুই রুমের ওই বাসায় মাইমুনা প্রতিদিন তার সঙ্গে ঘুমাত। বৃহস্পতিবার সকালে তার ছেলে আবদুর রাজ্জাক মাদারীপুরে গ্রামের বাড়িতে যাওয়ায় শারমিন মাইমুনাকে তার সঙ্গে ঘুমাতে বলে। বৌমা আমাকে জানায়, ‘একা ঘুমাতে ভয় লাগে, আজ রাতে মাইমুনাকে নিয়ে ঘুমাব। আমি প্রথমে আপত্তি করলেও শেষ পর্যন্ত বৌমার কথা ফেলতে পারিনি। পরে সত্মায়ের ঘরে ঘুমাতে যায় মাইমুনা। ভোরবেলায় বাথরুমের সামনে মাইমুনার স্যান্ডেল পড়ে থাকতে দেখি। পরে বাথরুমে গিয়ে ড্রামের ভিতর উপুড় অবস্থায় লাশ দেখে চিৎকার করে উঠি। প্রতিবেশীরা ছুটে আসেন। পরে খবর পেয়ে পুলিশ সকালে মাইমুনার লাশ উদ্ধার করে। সত্মা শারমিন প্রায়ই মাইমুনাকে মারধর করত। ছোটখাটো কোনো ঘটনা নিয়ে চিৎকার করে পুরো বাড়ি মাথায় তুলত। তার চোখের সামনে এসব ঘটলেও তিনি জোরালো প্রতিবাদ করার সাহস পেতেন না। ’ পুলিশের কাছে মাইমুনার দাদি বলেছেন, আগেও শারমিন দুই দফা মাইমুনাকে হত্যার চেষ্টা করেছেন। বাথরুমে যে পানির ড্রামে মাইমুনার লাশ পাওয়া যায় তার আগেও ওই ড্রামের ভিতর উল্টো করে চুবিয়ে হত্যার চেষ্টা করা হয়। তিনি বিষয়টি দেখে ফেলায় মাইমুনা ওই যাত্রা বেঁচে যায়। এর আগেও শারমিন আরও একবার গলায় গামছা পেঁচিয়ে মাইমুনাকে হত্যার চেষ্টা করেন। সেবারও তিনি দেখে ফেলেন। দুটি ঘটনাই তিনি তার ছেলেকে জানিয়েছিলেন। ওই ঘটনার পর থেকেই মূলত মাইমুনাকে চোখে-চোখে রাখতেন ফুলজাহান বেগম। কিন্তু শেষ রক্ষা হয়নি। সত্মায়ের নৃশংসতায় ঘুমের ঘোরেই প্রাণ যায় ৬ বছরের ছোট্ট শিশু মাইমুনার।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24