মঙ্গলবার, ১০ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:৩২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ফুটবল এসোসিয়েশনের পূর্ণাঙ্গ কমিটি গঠন উপলক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে পারাপারের সময় খেলা নৌকা থেকে পড়ে মৃগী রোগির মৃত্যু জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহতের স্মরণে শোকসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে মুক্ত দিবস পালিত জগন্নাথপুরে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় নিহত দুই যুবকের জানাজায় শোকাহত মানুষের ঢল জগন্নাথপুরে আইনশৃংঙ্খলা সভায়-আনন্দ সরকারের হত্যাকারিদের গ্রেফতারের দাবি জগন্নাথপুরে নারী নির্যাতন প্রতিরোধ ও বেগম রোকেয়া দিবস পালন, ৫ জয়িতাকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে দুর্নীতি বিরোধী দিবসে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত ১৭ ডিসেম্বর থেকে হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ শুরু

জগন্নাথপুরসহ জেলার সকল অভ্যন্তরীন সড়কের করুন অবস্থা

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২০ জুন, ২০১৭
  • ১৩৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: আর মাত্র ৬ দিন পর ঈদুল ফিতর। সারা দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে চাকুরি ও অন্যান্য কারণে অবস্থানরত লোকজন নাড়ির টানে বাড়ি ফিরবেন। কিন্তু জেলার প্রায় সকল উপজেলার অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোর বেহাল দশা।
স্থানীয়রা জানিয়েছেন, কোথাও কোথাও সড়ক সংস্কারের কাজ শুরু হলেও ঈদের আগে কাজ শেষ হবে না। ভাঙা-চোরা সড়ক দিয়ে বাড়ি ফিরতে হবে সকল শ্রেণিপেশার লোকজনের। ভাঙা-চোরা ও বেহাল সড়ক দিয়ে বাড়ি ফিরতে চরম ভোগান্তির শিকার হবেন যাত্রীরা। জেলার উপজেলাগুলোর ভাঙা-চোরা সড়কের অধিকাংশই এলজিইডির। তবে কিছু রাস্তা সড়ক ও জনপথেরও রয়েছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা: ভবেরবাজার-কাঠালখাই-নয়াবন্দর সড়কের ১১ কিলোমিটারের মধ্যে প্রায় ৮ কিলোমিটার সড়ক ভাঙা-চোরা। পাগলা-জগন্নাথপুর-আউশকান্দি সড়কের জগন্নাথপুর মুক্তিযোদ্ধা পয়েন্ট থেকে রানীগঞ্জ-ধরেরপাড় পর্যন্ত ২ কিলোমিটার সড়কের বেহাল দশা। জগন্নাথপুর-শিবগঞ্জ-কাতিয়া-বেগমপুর সড়কের ৬ কিলোমিটার ভাঙা-চোরা। চিলাউড়া-জগন্নাথপুর সড়কে ২ কিলোমিটার ভাঙা
জগন্নাথপুর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী রফিকুল ইসলামের সাথে কথা বলতে চাইলে তাঁর ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে যোগাযোগ করলেও অফিসের এক কর্মচারী ফোন রিসিভ করে জানান তিনি অসুস্থ। সিলেটের একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। ’

ধর্মপাশা প্রতিনিধি এনামুল হক জানান, সওজের আওতাধীন ধর্মপাশা-মধ্যনগর সড়কের ২০কিলোমিটার মধ্যে অন্তত ১৭ কিলোমিটারই ভাঙা-চোরা। এই সড়ক সংস্কারের কাজ শুরু হয়েছে, তবে ঈদের আগে কাজ শেষ হবে না। এলজিইডির আওতাধীন ধর্মপাশা-জয়শ্রী সড়ক ১০ কিলোমিটার সড়কের ৭ কিলোমিটার বেহাল দশায় রয়েছে। এলাকার লোকজন সড়কপথের পরিবর্তে নৌ পথে চলাচল করছে। ধর্মপাশা উপজেলা সদর-ফাতেমা নগর-কলেজ রাস্তায় কলেজ এলাকায় প্রায় ১ কিলোমিটার রাস্তা ভাঙা-চোরা।
ছাতক ও দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি জানিয়েছেন, ভাঙা-চোরা ও বেহাল দশা সড়কের পরিমাণ ছাতক-দোয়ারায় সবচেয়ে বেশী। এসব ভাঙা সড়ক দিয়েই চলাচল করছেন এলাকার লোকজন।
ছাতক প্রতিনিধি বিজয় রায় জানিয়েছেন, ছাতক পৌর শহর এলাকার রেল
বস্তি থেকে কোমনা পর্যন্ত ১ কিলোমিটার সড়কের বেহাল দশা। শিববাড়ি থেকে রেল স্টেশন পর্যন্ত আধা কিলোমিটার রাস্তা দীর্ঘদিন ধরে বেহাল দশায় রয়েছে। এই আধা কিলোমিটার সড়ক রেলওয়ের। গত ৪০ বছর ধরে এই সড়কের কোন কাজ হয় না। দক্ষিণ ছাতকের কৈতক থেকে সিরাজগঞ্জ পর্যন্ত সড়কের প্রায় ৮ কিলোমিটার অংশের অধিকাংশ জায়গাই ভাঙা-চোরা। সিংছাপইড় পয়েন্ট থেকে কামারগাঁও পর্যন্ত সড়কের ৩ কিলোমিটার ভাঙা-চোরা। দোলারবাজার সড়কের পালপুর থেকে দক্ষিণ খুরমা পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার, পালপুর থেকে ভুইগাঁও সড়কে ৫ কিলোমিটার, কালারুকা থেকে চাঁনপুর পর্যন্ত ৪ কিলোমিটার ও গোবিন্দগঞ্জ থেকে বসন্তপুর সড়কের ১০ কিলোমিটার সড়কের অধিকাংশই ভাঙা-চোরা।
ছাতক উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী আবুল হোসেন মিয়া বলেন,‘ ঈদের আগে কোন সংস্কার বা মেরামতের পরিকল্পনা নেই। জরুরিভিত্তিতে সড়ক মেরামত করার প্রয়োজনীয় অর্থ বরাদ্দও নেই। যেসব সড়ক বেশী ভাঙা-চোরা নতুন অর্থ বছরে সেগুলো মেরামতের উদ্যোগ নেয়া হবে।’
দোয়ারাবাজার প্রতিনিধি আশিক মিয়া জানান, এলজিইডির আওতাধীন উপজেলার অধিকাংশ রাস্তার বেহাল দশা। যাত্রীসহ সাধারণ মানুষ রাস্তার বেহাল দশার জন্য চরমভাবে ক্ষুব্ধ। উপজেলা সদর থেকে বাংলাবাজার হয়ে বাঁশতলা পর্যন্ত ১৭ কিলোমিটার সড়কের অবস্থা খুবই খারাপ। কোন যানবাহন চালক এই রাস্তায় যেতে চায়না। উপজেলা সদর-মহবতপুর-লক্ষীপুর সড়কের ১৪ কিলোমিটার, উপজেলা সদর-মহবতপুর বোগলা সড়কের ১২ কিলোমিটার, কাটাখালী-আমবাড়ি বাজার সড়কের প্রায় ১০ কিলোমিটার সড়ক ভাঙা-চোরা।
দোয়ারাবাজার উপজেলা শ্রমিক লীগের সভাপতি সাবেক ইউপি সদস্য আবুল কালাম বলেন,‘ উপজেলা সদরের উত্তর এলাকার রাস্তাগুলো কি রকমের ভাঙা-চোরা অবস্থায় আছে তা কেবল এলাকার লোকজন ও ভুক্তভোগিরাই জানেন। রাস্তার অনেক জায়গায় মোটরসাইকেল পর্যন্ত চলে না। আমরা বার বার রাস্তা সংস্কার ও মেরামতের দাবি জানিয়ে আসছি কিন্তু কোন কাজ হচ্ছে না। যারা ঈদে বাড়িতে আসবে তারা আনন্দের পরিবর্তে কষ্ট নিয়েই আসা-যাওয়া করবেন।’
দোয়ারাবাজার উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী রঞ্জিত কুমার পাল বলেন,‘ আমি মাত্র দুই মাস হয় দোয়ারাবাজারে যোগদান করেছি। বেশকিছু রাস্তার অবস্থা খারাপ। এর জন্য আমরা লজ্জিত। সাধারণ মানুষ রাস্তার জন্য গালি-গালাজ করে। এলাকার ভে ভৌগোলিক অবস্থা ও পাহাড়ি ঢলের কারণেও রাস্তার কিছু ক্ষতি হয়। তবে আমরা এসব রাস্তা মেরামত করতে চাই। ইতোমধ্যে বাংলাবাজার সড়কের জন্য একটা প্রকল্প নির্বাহী প্রকৌশলীর অফিসে দাখিল করা হয়েছে। এছাড়াও অন্য রাস্তাগুলোও আমরা সংস্কার করতে চাই। আশা করি নতুন অর্থ বছরে বরাদ্দ পাওয়া যাবে ও আমরা কাজ করতে পারব। ’
তাহিরপুর উপজেলার স্টাফ রিপোর্টার আমিনুল ইসলাম জানান, উপজেলা সদর থেকে জেলার অন্যতম বাণিজ্যিক কেন্দ্র বাদাঘাট সড়কের ৮ কিলোমিটার সড়কের অধিকাংশই ভাঙা-চোরা। এই সড়কের কারণে দুর্ভোগ পোহাচ্ছেন এলাকার লোকজন ও ব্যবসায়ীরা। উপজেলা সদর থেকে আনোয়ারপুর সড়ক ভাঙা-চোরা ছিল, এই সড়ক সংস্কারের কাজ চলছে। তবে ঈদের আগে শেষ হবে না, এই সড়ক সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের।
তাহিরপুর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী আলমগীর হোসেন বলেন,‘ তাহিরপুর-বাদাঘাট সড়কের ৮ কিলোমিটার সংস্কারের জন্য একটি প্রকল্প দাখিল করা হয়েছিল। তবে সেই প্রকল্পটির অনুমোদন হয়নি। আমরা এই সড়কের সেতুগুলোর এপ্রোচে মাটি ভরাট করেছি ও কিছু সংস্কার করেছি। নতুন অর্থ বছরে একটি প্রকল্প দাখিল করা হবে।’
ধর্মপাশা প্রতিনিধি এনামুল হক জানান, সওজের আওতাধীন ধর্মপাশা-মধ্যনগর সড়কের ২০কিলোমিটার মধ্যে অন্তত ১৭ কিলোমিটারই ভাঙা-চোরা। এই সড়ক সংস্কারের কাজ শুরু হয়েছে, তবে ঈদের আগে কাজ শেষ হবে না। এলজিইডির আওতাধীন ধর্মপাশা-জয়শ্রী সড়ক ১০ কিলোমিটার সড়কের ৭ কিলোমিটার বেহাল দশায় রয়েছে। এলাকার লোকজন সড়কপথের পরিবর্তে নৌ পথে চলাচল করছে। ধর্মপাশা উপজেলা সদর-ফাতেমা নগর-কলেজ রাস্তায় কলেজ এলাকায় প্রায় ১ কিলোমিটার রাস্তা ভাঙা-চোরা।
ধর্মপাশা উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী শাহ মো.আব্দুল ওয়াদুদ বলেন,‘ ধর্মপাশা-জয়শ্রী সড়কের অনেক জায়গা ঢেউয়ে নষ্ট করে ফেলেছে। এটা মেরামত করা সম্ভব নয়। এই সড়কের পুরো ১০ কিলোমিটারই আমরা প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুত একটি প্রকল্পের অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা করছি। অন্য সড়কগুলো পর্যায়ক্রমে মেরামত করা হবে।’
জামালগঞ্জ অফিসের আকবর হোসেন জানান, জামালগঞ্জ-সুনামগঞ্জ সড়কের উপজেলা সদরের তেলিয়াপাড়া-শাহরপুর এলাকায় ভাঙা-চোরা। উপজেলা সদর-সেলিমগঞ্জ রাস্তার নতুনপাড়া থেকে নয়াহালট পর্যন্ত প্রায় ২ কিলোমিটারে কোন ধরনের যানবাহন চলাচল করতে পারে না। লালবাজার সড়কের কিছু অংশ ভাঙা রয়েছে। নোয়াগাঁও-ভীমখালী সড়কের বেশ কিছু স্থানে ভাঙা-চোরা রয়েছে। সাচনা-বেহেলী সড়কের সাচনা গ্রামের কাছে কালভার্ট নির্মাণের জন্য খাল কাটায় এই সড়কের যোগাযোগ ব্যবস্থা ভেঙে গেছে। কোন যানবাহন চলাচল করতে না পারায় মানুষ পায়ে হেঁটে সাচনা গ্রামের এই কালভার্ট এলাকা পাড় হচ্ছেন। এছাড়া সওজের সাচনা-সুনামগঞ্জ সড়কের অনেক জায়গায় ভাঙা-চোরা ও গর্তের সৃষ্টি হয়েছে।
জামালগঞ্জ উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী শিপলু কর্মকার বলেন,‘ নতুনপাড়া-নয়াহালট রাস্তা ও জামালগঞ্জ-সুনামগঞ্জ রাস্তার ঠিকাদারকে দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য তাগিদ দেয়া হয়েছে। বেহেলী রাস্তার কাজ আগামী শুকনো মৌসুমে শেষ করা হবে। এছাড়া অন্যান্য সড়কগুলো পর্যায়ক্রমে সংস্কার করা হবে। ’
দিরাই প্রতিনিধি আবু হানিফ চৌধুরী জানান, দিরাই পৌর শহরের থানা পয়েন্ট থেকে কলেজ রোডের প্রায় অবস্থা খারাপ। দিরাই-শ্যামারচর রাস্তার দিরাই কলেজ এলাকা, রাজানগর, কল্যানী, লছিমপুর এলাকায় বেশ কিছু রাস্তা ভাঙা-চোরা। এছাড়া দিরাই-সুনামগঞ্জ রাস্তায় দিরাই উপজেলা অংশের শরিফপুর, সাদিরপুরসহ বেশী কিছু জায়গায় ভাঙা-চোরা রয়েছে। রাস্তা সংস্কারের কাজ চলছে, তবে ঈদের আগে কাজ শেষ হবে না। এই রাস্তাটুকু সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের।
দিরাই উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী ইফতেখার হোসেন বলেন,‘পৌরসভার অভ্যন্তরের রাস্তাটুকু এলজিইডির ছিল, পরে পৌরসভার কাছে হস্তান্তর করা হরেছে। দিরাই-শ্যামারচর রাস্তার কোথাও ভাঙলে আমরা তা মেরামত করে দেব। ’
দিরাই পৌরসভার মেয়র মোশারফ মিয়া বলেন,‘ দিরাই থানা পয়েন্ট থেকে শ্যামারচর পর্যন্ত রাস্তার কাজ করছে এলজিইডি। গত কয়েকমাস আগে এই রাস্তার কাজ হয়েছে। কাজ খুব ভাল হয়েছে। তবে বৃষ্টি হলে রাস্তার পাশে মার্টির গর্তে কিছু পানি জমতে পারে।’
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা প্রতিনিধি স্বপন কুমার বর্মন জানান, উপজেলা বাঘমারা পয়েন্ট থেকে কাটাখালী পর্যন্ত প্রায় ৪ কিলোমিটার রাস্তা ভাঙা-চোরা। কারেন্টের বাজার থেকে ধনপুর বাজার পর্যন্ত ৩ কিলোমিটার সড়ক ভাঙা। পলাশ বাজার থেকে ধনপুর পর্যন্ত ৫ কিলোমিটার রাস্তার কাজ চলছে, তবে ঈদের আগে কাজ শেষ হবে না। ধনপুর থেকে সরুপগঞ্জ পর্যন্ত ৬ কিলোমিটার রাস্তার সংস্কার কাজ বন্ধ।
বিশ্বম্ভরপুর উপজেলা এলজিইডির প্রকৌশলী ফজলুর রহমান তালুকদারের সাথে কথা বলতে চাইলে একাধিকবার চেষ্টা করলেও ফোন রিসিভ করেন নি তিনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24