শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:১৪ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
দেশে দারিদ্র কমলেও বৈষম্য বাড়ছে:পরিকল্পনামন্ত্রী জগন্নাথপুরে শুক্রবার সকাল ৬টা ১২টা ও শনিবার ৮ থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না জগন্নাথপুরে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত প্রমাণ পেলে বহিরাগতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব- জগন্নাথপুরে ডিসি জগন্নাথপুরে কলেজছাত্রীর ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযাগ,বখাটের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার জগন্নাথপুরে দিনভর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরির্দশন শেষে ডিসি-জনগনের দোরগোড়ায় সেবা পৌছে দেয়া হচ্ছে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সন্মেলন ৬ নভেম্বর যুবলীগের চেয়ারম্যানের গণভবনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা! সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৫ তুহিন হত্যা:জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন

জগন্নাথপুরের খাশিলা গ্রামের বাসিন্দা স্কুল ছাত্রকে অপহরণের পর হত্যা ॥ খুনের দায় স্বীকার করে আদালতে আটক পুলিশ কনস্টেবলের জবানবন্দি

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৬ মার্চ, ২০১৫
  • ৮৮ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক-ে জগন্নাথপুরের কলকলিয়া ইউনিয়নের খাশিলা গ্রামের বাসিন্দা সিলেট নগরীতে বসবাসকারী স্কুলছাত্র আবু সাঈদ (৯) হত্যাকান্ডে পুলিশ কনস্টেবল ধরা পড়ায় তোলপাড় শুরু হয় গত শনিবার রাত থেকে। আটক পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান রোববার আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়ে হত্যার দায় স্বীকার করে নিয়েছেন। এর পর থেকে ঘটনা আলোচিত হয়। ঘৃনার সঙ্গে পুলিশ কনস্টেবলের নামও উচ্চারিত হচ্ছে। পুলিশ নামের কলঙ্ক এক এবাদুর গোটা পুলিশ বিভাগের ভাবমূর্তি প্রশ্নবিদ্ধ করে ফেলেছেন এমন আলোচনা খোদ পুলিশ বিভাগে তোলপাড় শুরু করেছে।
হত্যার পর সাঈদের শরীরে অ্যাসিড জাতীয় পদার্থ নিক্ষেপ করে এক এক করে ৭টি বস্তায় ঢুকানো হয় লাশ। অপহরণের একদিন পরই সাঈদকে হত্যা করা হয়েছে। সাঈদ হত্যাকান্ডে জড়িত ছিলেন পুলিশ কনস্টেবলসহ ৫ জন। হত্যার আগে সাঈদ অপহরণকারীদের চিনতে পরায় তাকে খুন করা হয়। এরপর গত শনিবার রাত ১২টায় সাঈদের গলিত লাশ নগরীর ঝেরঝেরি পাড়ার এক লন্ডন প্রবাসীর বাসা থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। মহানগর পুলিশের বিমানবন্দর থানার কনস্টেবল এবাদুর রহমান ওই বাসায় ভাড়া থাকতেন।
জানা গেছে, নগরীর রায়নগর থেকে গত বুধবার সকাল ১১টায় নিখোঁজ হয় শিশু সাঈদ। সে ঝেরঝেরি পাড়ায় তার নানার বাসায় আসার সময় অপহরণের শিকার হয়। অপহরণের ৩দিন পর শনিবার রাত ১২টায় সাঈদের মৃতদেহ উদ্ধার করে কোতোয়ালি থানা পুলিশ। সাঈদ সুনামগঞ্জ জেলার জগন্নাথপুর উপজেলার খাসিলা গ্রামের মতিন মিয়ার ছেলে। বর্তমানে তার বাবা-মা নগরীর রায়নগর দর্জিবন্দস্থ বসুন্ধরা-৭৪ নম্বর বাসায় বসবাস করেন।
পুলিশ জানায়, শিশু সাঈদকে যারা হত্যা করেছে তাদের সকল তথ্য এখন পুলিশের হাতে রয়েছে। পুলিশ হত্যাকান্ডের সাথে জড়িত ৩ জনকে গ্রেপ্তারও করেছে। এরমধ্যে প্রধান সন্দেহভাজন মহানগর পুলিশের এয়ারপোর্ট থানার পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান, র‌্যাবের কথিত সোর্স গেদা মিয়া ও জেলা ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাকিবসহ ৫জন হত্যাকান্ডে অংশ নেয়। পুলিশের হাতে আটক ৩ জন হত্যার দায় স্বীকার করে এমন তথ্য দেয়। পলাতক দুজনকে গ্রেফতারে পুলিশ চেষ্টা করছে। গ্রেফতারকৃতদের মধ্যে পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান আদালতে ১৬৪ ধারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন।
গতকাল সিলেট মহানগর প্রথম আদালতের বিচারক শাহেদুল করিমের এজলাসে ১৬৪ ধারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দিতে এবাদুর রহমান বলেন, তিনি বিমানবন্দর থানায় একজন কনস্টেবল হিসেবে দায়িত্বরত। গত ১১ মার্চ বুধবার তিনি থানা থেকে সকাল ১১ টায় ঝেরঝেরি পাড়ার ৩৭ বাসায় আসেন। গোসল শেষে মোবাইল ফোনে তার অন্ত:স্বত্তা স্ত্রীর সাথে কথা বলেন। কথা শেষে মোবাইল ফোনেই ভিডিও গান দেখছিলেন এবাদুর। এরপরই র‌্যাবের কথিত সোর্স গেদা মিয়া ও জেলা ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাকিব ও একজন দাড়িওয়ালা লোক তার ঘরের দরজায় ডাকাডাকি করেন। তিনি দরজা খোলে দেখেন অপহৃত সাঈদ তাদের সাথে। এরপর পরিকল্পনামত ৫ লাখ টাকা মুক্তিপন দাবি করা হয় সাঈদের পরিবারের কাছে। এক পর্যায়ে সাঈদ সবাইকে চিনতে পারায় পরদিন বৃহস্পতিবার বিকেল ৪টার দিকে সাঈদকে হত্যা করা হয়। হত্যার আগে মুক্তিপনের টাকা দিলে সাঈদকে ফিরিয়ে দেয়ার কথা বললে টাকা নিয়ে বিভিন্ন এলাকায় পুলিশসহ যান পরিবারের সদস্যরা। কিন্তু সাঈদকে ফিরিয়ে দেয়া হয়নি জীবিত।
কোতোয়ালি থানার ওসি আসাদুজ্জামান জানান, কনস্টেবল এবাদুরসহ ৫ জন এ ঘটনার সাথে সম্পৃক্ত। আর এবাদুর সাঈদকে আগে থেকে চিনত। সাঈদও এবাদুরকে মামা ডাকত। সাঈদের নানার বাসা ঝেরঝেরিপাড়ার পাশের ৩৭ নম্বর বাসায় এবাদুর বসবাস করত। গেদা মিয়ার পরিবার ও গেদা মিয়ার সাথে সাঈদের পরিবার ছিল পূর্ব পরিচিত। সাঈদকে অপহরণের পর প্রথমে কনস্টেবল এবাদুরের বাসায় আনা হয়। এরপর দিন সাঈদের পরিবারের কাছে ৫ লাখ টাকা মুক্তিপন দাবি করা হয়। পরিবার সাথেসাথে বিষয়টি পুলিশকে অবগত করে। পুলিশ একাধিক এলাকায় তাদের গ্রেপ্তার করতে অভিযান চালায়। তারা ঘনঘন স্থান পরিবর্তন করায়, অভিযান সফল হয়নি।
এরপর বিমানবন্দর থানার কনস্টেবল এবাদুর ও র‌্যাবের কথিত সোর্স গেদা মিয়ার মোবাইল ফোনে ট্র্যাকিং করে পুলিশ। কোন এলাকায় অপহরণকারী রয়েছে তাও সনাক্ত করা হয়। পুলিশ অভিযানে ওই রাতেই কনস্টেবল এবাদুরসহ বাকী ২ জনকে গ্রেপ্তার করে। ঝেরঝেরি পাড়ার ৩৭ নম্বর বাসায় অভিযান পাওয়া যায় মৃত সাঈদের বস্তাবন্দী লাশ। ৭ টি বস্তায়পুড়ে রাখা হয় সাঈদের লাশ। যাতে গলিত লাশের গন্ধ এলাকায় না ছড়ায় এজন্য। তবে লাশটি বস্তাবন্দী করার কারণে বাতাস ঢুকতে না পাড়ায় পঁচেগন্ধ বের হয়।
এদিকে, স্কুল ছাত্র সাঈদকে হত্যার ঘটনায় গত শনিবার রাতেই কোতোয়ালি থানায় অজ্ঞাত আসামী করে হত্যা মামলা-১৩ দায়ের করা হয়েছে।
সূত্র জানায়, মামলার প্রধান সন্দেহভাজন পুলিশ কনস্টেবল এবাদুর রহমান ২০১০ সাল থেকে সিলেট মহানগর পুলিশে যোগদান করেন। বর্তমানে তিনি বিমানবন্দর থানায় কনস্টেবল হিসেবে দায়িত্বরত ছিলেন। তার বাড়ি জকিগঞ্জ উপজেলার বাল্লাগ্রামে। এবাদুর রহমান বিভিন্নভাবে মানুষকে হয়রানী করে টাকা হাতিয়ে নেয়ার কাজ করেন দীর্ঘ দিন থেকে। তার অনিয়মের প্রধান সহযোগী র‌্যাবের সোর্স গেদা মিয়া, জেলা ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাকিবসহ আরো কয়েকজন।
পুলিশের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, কনস্টেবল এবাদুর রহমানের বিরুদ্ধে পুলিশের পক্ষ থেকে বিভাগীয় ব্যবস্থা নিতে গতকাল রোববার সকল প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে।
মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার (গণমাধ্যম) মো. রহমত উল্লাহ জানান, হত্যার সাথে সরাসরি জড়িত ছিল কনস্টেবল এবাদুর, র‌্যাবের সোর্স গেদা ও জেলা ওলামা লীগের সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাকিব। গেদা ও রকিব পুলিশ হেফাজতে রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, তাদের নিয়ে পুলিশ অভিযান দিচ্ছে। এ ঘটনায় আরো ২ জন জড়িত রয়েছে। আর কনস্টেবল এবাদুর রহমান আদালতে ১৬৪ ধারা স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে।
কোতোয়ালি থানার ওসি আসাদুজ্জামান জানান, পুলিশের প্রতি নিহত শিশু সাঈদের পরিবার সন্তুষ্ট। কিন্তু পুলিশ এ অভিযান দিয়ে সন্তুষ্ট নয়। কারণ হিসেবে তিনি বলেন, শিশুটিকে উদ্ধারে খুব বেশি পরিশ্রম করেছেন। একাধিক স্থানে অভিযান দিয়েছেন। কিন্তু তাকে জীবিত উদ্ধার করতে পরলেননা। এক প্রশ্নের জবাবে ওসি বলেন, ওই মামলা এমনভাবে তদন্ত করা হবে যাতে কোনো অপরাধি আইনের ফাঁক না পায়। শিশু সাঈদের পরিবার অবশ্যই সঠিক বিচার পাবে। আর এজন্য যা করা প্রয়োজন তাই করবে পুলিশ।
সিলেট নগরীর রায়নগর থেকে অপহরণ হওয়া ৯ বছরের শিশু সাঈদের মৃতদেহ নগরীর কুমারপাড়ার ঝেরঝেরি পাড়া ৩৭ নম্বর বাসার দ্বিতীয়তলা থেকে থেকে উদ্ধার করে পুলিশ। গত বুধবার সকাল ১১ টার থেকে বেলা সাড়ে ৩টার মধ্যে সাঈদকে অপহরণ করা হয়। এ ঘটনায় ওইদিনই তার পরিবারের পক্ষ থেকে কোতোয়ালি থানায় একটি সাধারণ ডায়রি করা হয়। যার নং-৫৬১।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24