মঙ্গলবার, ২০ অগাস্ট ২০১৯, ১২:২১ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরের খাশিলা গ্রামের স্কুল ছাত্র সাঈদ খুনের সঙ্গে জড়িত গেদার স্ত্রী নুরজাহান খুনী স্বামীর সঙ্গ ত্যাগ করবেন

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৭ মার্চ, ২০১৫
  • ৩৬ Time View

সিলেট সংবাদদাতা০: জগন্নাথপুরের খাশিলা গ্রামের সন্তান সিলেট শহরে বসবাসকারী স্কুল ছাত্র সাইদ খুনের ঘটনায় জড়িত গেদার স্ত্রী খুনী স্বামী সঙ্গ ত্যাগ করার কথা বলেন। থানাহাজতে সোর্স গেদার সঙ্গ ছাড়ার ঘোষণা দিয়ে তার স্ত্রী নূরজহান বেগম বলেন, ‘আমার তিনটি সন্তান রয়েছে। ওদের নিয়ে আমি কোন খুনির সঙ্গে থাকতে পারি না। প্রয়োজনে গেদার সঙ্গ ত্যাগ করে ফেলবো।’ পুলিশের সন্দেহের কারণে এক রাত থানাহাজতে ছিলেন নূরজাহান বেগম। এ সময় তিনি পুলিশের কাছেও স্বীকার করেছিলেন, ‘২-৩ দিন ধরে গেদাকে বেশ অস্থির দেখাচ্ছিল। আমি বারবার কারণ জানতে চেয়েছি। কিন্তু গেদা কিছুই বলেনি।’ পুলিশের তদন্তে অপহরণ ও খুনের ঘটনার সঙ্গে স্ত্রী নূরজাহানের সম্পৃক্ততার বিষয়টি প্রমাণিত না হওয়ায় থানাহাজত থেকে ছেড়ে দেয়া হয়েছিল তাকে। কিন্তু হাজতে দেয়া কথা রাখেননি নূরজাহান। ১৪ই মার্চ নগরীর রায়নগর ঝেরঝেরিপাড়ার পুলিশ কনস্টেবল এবাদুরের বাসা থেকে স্কুলছাত্র আবু সাঈদের লাশ উদ্ধারের দিনই পুলিশ আটক করেছিল র‌্যাবের কথিত সোর্স আতাউর রহমান গেদা মিয়াকে। পরে পুলিশ গেদার স্ত্রী নূরজাহান বেগমকেও আটক করে। গেদা মিয়ার মূল বাড়ি ছাতক উপজেলার মঈনপুর গ্রামে। তার পিতা মৃত হাবিবুর রহমান। সিলেট নগরীর ঝরনার পাড় আবাসিক এলাকার ৭২ নম্বর জামাল উদ্দিন ও লুৎফুর রহমানের মালিকানাধীন বাসার নিচ তলায় সে বসবাস করতো। পুলিশ ওই বাসা থেকে আটক করেছিল গেদার স্ত্রীকে। প্রথমেই পুলিশের সন্দেহ হয়েছিল এ ঘটনার সঙ্গে গেদার স্ত্রী নূরজাহানের সম্পৃক্ততা থাকতে পারে। থানায় নিয়ে পুলিশ নূরজাহানকে ব্যাপক জিজ্ঞাসাবাদ করে। পুলিশ জানিয়েছে, থানাহাজতে গেদার মতো গেদার স্ত্রী প্রথমে পুলিশকে বিভ্রান্তি করার চেষ্টা চালায়। তবে, শেষ মুহূর্তে নূরজাহান তার তিনটি সন্তান রয়েছে বলে জানিয়েছে। ওই তিনটি সন্তানকে এত দিন গেদাই লালনপালন করতো। এখন থেকে তিনি লালনপালন করবেন। আর খুনি গেদার সঙ্গে কোন সম্পর্ক রাখবেন না। এ সময় পুলিশের কাছে নূরজাহান নিজেকে সন্তানসম্ভাবা বলেও দাবি করেন। গত দুই-তিন ধরে গেদাকে বেশ অস্থির দেখাতো দাবি করেন নূরজাহান। এ বিষয়ে প্রশ্ন করা হলে গেদা সেটিও এড়িয়ে যান। তদন্ত সংশ্লিষ্ট পুলিশ কর্মকর্তারা গতকাল জানিয়েছেন, ঘটনার সঙ্গে গেদার স্ত্রী নূরজাহানের সম্পর্কের কোন প্রমাণ মিলেনি। এ কারণে তাকে ছেড়ে দেয়া হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24