বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ০৬:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ‘ম্যাজিস্ট্রেট’র গাড়ির ধাক্কায় শিশু আহত জগন্নাথপুরে আইনশৃঙ্খলা সভায়-প্রভাবশালী মাদক কারবারিদের গ্রেফতারের দাবী জাতীয় নিরাপদ খাদ্য দিবসে জগন্নাথপুরে র‌্যালি ও আলোচনাসভা অনুষ্ঠিত এক নজরে বাংলাদেশের ২৪০ জমিদার বাড়ি সুনামগঞ্জ প্রতিবাদে-বিক্ষোভে বিচার দাবী ঘাতকদের শিশু তুরিন খুন: চাচা ও ভাই খুনের কথা স্বীকার করেছে মীরপুরে মেম্বার পদে ১নং ওয়ার্ডে ১ প্রার্থীর ১ ভোট ! মীরপুরে বিশাল ব্যবধানে সংরক্ষিত নারী সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন নাজমিন যুক্তরাজ্যে দিরাই পৌরসভার মেয়র’র মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত মীরপুর ইউপি নির্বাচনে আ.লীগ প্রার্থীর পরাজয়ের নেপথ্যে যত কারণ

জগন্নাথপুরের নলুয়া হাওরে অগ্রিম টাকা দিয়ে ধান কাটার শ্রমিক মিলছেনা, পাকা ফসল নিয়ে দুশ্চিন্তায় কৃষকরা

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৮ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১০১ Time View

আলী আহমদ ::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে হাওরে হাওরে এখন বোরো ফসলের পাকা ধানের শীষ বাতাসে দোলছে। এরই মধ্যেই উপজেলার সব ক’টি হাওরে ধান কাটা শুরু হয়ে গেছে। এর মধ্যে জেলার অন্যতম হাওর জগন্নাথপুরের সর্বৃবহৎ নলুয়া হাওরে ধান কাটার তীব্র শ্রমিক সংকট দেখা দিয়েছে। এ হাওরে এখনও ৯০ শতাংশ পাকা ধান মাঠে রয়েছে।
বুধবার নলুয়া হাওরের অনেকজন কৃষক জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন, অগ্রিম টাকা দিয়েও শ্রমিক পাওয়া যাচ্ছে না। তবে ধান কাটার আধুনিক যন্ত্র কম্বাইন হারভেষ্টার কিছুটা সংকট দূর করলেও প্রয়োজনের তুলনায় নিতান্তই কম থাকায় এ মেশিনটি চাহিদা অনুযায়ী পাওয়া যাচ্ছে না।
নলুয়া হাওরের দাসনাগাও গ্রামের কৃষক গৌরাঙ্গ দাস জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওরের ফসলডুবির কারনে গত দুই বছরে ধরে গোলায় ধান তুলতে পারিনি। এবার বাস্পার ফলন হয়েছে। ধান কাটার জন্য সিলেটের জৈন্তাপুর থেকে ৪০জন শ্রমিক আসার কথা ছিল। তাদেরকে ব্যাপারিকে অগ্রিম ১০ হাজার টাকাও দিয়েছি। কিন্তুু শ্রমিকরা আসিনি। ফলে গতকাল থেকেই নিজের লোকজন নিয়ে ধান কাটা শুরু করেছি। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানিয়েছেন এবার তিনি ৬০ কেদার জমিনে বোরো ফসলের আবাদ করেছেন।
একই এলাকার আরেক কৃষক উপেন্দ্র দাস জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ৩৬ কেদার জমিনের ধান পেঁকে গেছে। শ্রমিক সংকটের কারনে কাটা যাচ্ছে না। ধান কাটার মেশিনও গত দুই/তিন ধরে খোঁজেও মিলছেনা। তিনিও ৩০ জন শ্রমিকের জন্য জৈন্তাপুরে একজন শ্রমিক সরদারকে ৬ হাজার টাকা অগ্রিম দিয়েছেন। কিন্তুু শ্রমিকরা আসেনি। এক দুইদিনের মধ্যে নিজের পরিবার আর স্বজনদের নিয়ে ধান কাটা শুরু করবেন বলে জানিয়েছেন।
নলুয়া হাওরের ভুরাখালি গ্রামের কৃষক দিলদার হোসেন বলেন, কয়েকদিন ধরে অনেক খোঁজাখুজি করেও শ্রমিক না পেয়ে শেষে স্থানীয় ৫ জন শ্রমিক নিয়ে প্রতি এক কেদার (৩০ শতাংশে এক কেদার) জনপ্রতি দুই হাজার টাকা দিয়ে ধান কাটা শুরু করেছি। তিনি এবার ২০ কেদার জমিতে আবাদ করেছেন।
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের জগন্নাথপুর উপজেলা শাখার যুগ্ম আহবায়ক সিদ্দেকুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুরের প্রধান নলুয়াসহ উপজেলার বিভিন্ন হাওরে শ্রমিক সংকট রয়েছে। এর মধ্যে তীব্র সংকট রয়েছে নলুয়া হাওরে। ফলে পাকা ধান কাটছে পারছেন না কৃষকরা। ধান কাটার আধুনিক যন্ত্র কম্বাইন হারভেষ্টারের সংকট আছে। ফলে দুই বছর যাবত ফসলহারা কৃষকা পাকা ধান নিয়ে দু:শ্চিতায় পড়েছেন।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওরের শ্রমিক সংকট রয়েছে। ধান কাটার যন্ত্র নলুয়া হাওরসহ উপজেলার সব ক’টি হাওরে ১২টি কম্বাইন হারভেষ্টার মেশিন রয়েছে। এ সব আধুনিক যন্ত্রের দ্বারা কিছুটা হলেও সংকট মোচন করছে। কৃষকের কষ্টের ফসল গোলায় তুলতে আমরা সার্বক্ষনিকভাবে তাদের পাশে রয়েছে। উপজেলা কৃষি অফিস সুত্র জানায়, এবার জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়া,মইয়া ও পিংলার হাওরসহ সব ক’টি হাওরে ২১ হাজার ৫শত হেক্টর বোরো ফসল আবাদ করা হয়েছে। জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরগুলোতে এখন পাকা ধানের ঝিলিক। কৃষি শ্রমিক সংকটের কারণে এসব ধানকাটা যাচ্ছে না। হাওর অঞ্চলের জন্য হারবেষ্টার মেশিন খুবই প্রয়োজন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24