মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ০৩:৪৬ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
সুনামগঞ্জে আ.লীগ নেতার ছেলে পিটালেন ডাক্তারকে সুনামগঞ্জ পৌর শহরে বিদ্যুৎ স্পৃষ্টে আহত ৩ জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা প্রতিষ্ঠানের উদ্যাগে সম্মাননা ক্রেষ্ট প্রদান জগন্নাথপুর আ,লীগের সন্মেলন কে স্বাগত জানিয়ে সৈয়দপুর বাজারে মিছিল জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামীলীগের সন্মেলন ১ ডিসেম্বর জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে ফের বুধবার থেকে ধর্মঘট, এলাকায় মাইকিং জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের থানায় মামলা জগন্নাথপুরে ভুয়া নাগরিক সনদপত্র সংগ্রহকারী ২৫ জন সনাক্ত জগন্নাথপুরে ফাঁদে পড়ে খাঁচায় বন্দি মেছোবাঘ সুনামগঞ্জে ওয়ার্ড-ইউনিয়ন সম্মেলন না করেই উপজেলা সম্মেলনের তারিখ ঘোষণায় দলের তৃণমূল পর্যায়ে প্রতিক্রিয়া

জগন্নাথপুরের প্রতিবন্ধি ক্ষুদে দুই শিক্ষা সংগ্রামী

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৯ নভেম্বর, ২০১৭
  • ৪১ Time View

স্টাফ রিপোর্টার ও কামরুল ইসলাম মাহি:: শিক্ষার আলো ছড়াতে শারীরিক প্রতিবন্ধকতার বাঁধা পেড়িয়ে জগন্নাথপুরের দুই ক্ষুদে শিক্ষা সংগ্রামী অংশ নিয়েছে এবারের প্রাথমিক সমাপনী পরীক্ষায়।

দুইজনের মধ্যে একজন দৃষ্টিহীন অপরজন বাকপ্রতিবন্ধী। তারা স্বপ্ন দেখছে পড়াশোনা করে নিজেদের ভবিষ্যৎ গড়ার পাশাপাশি আলোকিত সমাজ নির্মানে।

রোববার দুপুরে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া আটপাড়া উচ্চ বিদ্যালয়ের পিএসসি পরীক্ষা কেন্দ্র পরির্দশনকালে এ প্রতিবেদককে তাদের এমন আগ্রহের কথা জানিয়েছেন।

সরজমিন পরীক্ষার কেন্দ্র পরিদর্শনকালে দেখা যায়, কলকলিয়া ইউনিয়নের বালিকান্দি উপ-আনুষ্টানিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সমাপনী পরীক্ষার্থী অর্ধ দৃষ্টিহীন সাবির আহমদ ডান চোখে দেখে কিন্তু বা’চোখে দেখে না। তারপরও লেখার গাতি থামছে না। মনযোগ দিয়ে প্রথম দিনের ইংরেজী পরিক্ষা দিচ্ছে সাবির আহমদ। সে বালিকান্দি গ্রামের কৃুষক আরজ মিয়ার ছেলে।

একই পরীক্ষা কক্ষে আরেক বাকপ্রতিবন্ধি শিশু গভীর মনোযোগ দিয়ে উত্তরপত্র সুন্দারভাবে লিখে যাচ্ছে। তার নাম নাম হানিফা বেগম। বাকপ্রতিবন্ধি এ শিশুর বাবা বালিকান্দি গ্রামের দিনমজুর ফজর আলী।

পরীক্ষা শেষে অর্ধদৃষ্টিশক্তিহীন শিশু সাবির আহমদ বলেন, সব বাধাঁ পেড়িয়ে আমি উচ্চ শিক্ষায় শিক্ষিত হয়ে দৃষ্টিহীন মানুষের কল্যানে কাজ করতে চাই। এ জন্য আমি আরো কঠিন পরিশ্রম করব। যাতে লক্ষ্যস্থলে পৌছাতে পারি।

বাকপ্রতিবন্ধি শিশু হানিফা বেগম লেখা পড়া করে কী হতে চাও চানতে চাইলে সে একটি কাগজে লিখে জানায়, লেখাপড়া করে অসহায় নারীদের কল্যানে কাজ করতে চায়। তার ইচ্ছা সে উচ্চ শিক্ষা অর্জনের মাধ্যমে সমাজ ও দেশের উন্নয়নে কাজ করবে।

উভয় প্রতিবন্ধী পরীক্ষার্থীর স্কুলের শিক্ষিকা বালিকান্দি উপ-আনুষ্টানিক প্রাথমিক বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক রহিমা বেগমের জানান, কথা বলতে না পারলেও স্কুলের একজন মেধাবী ছাত্রী হানিফা। সে ভাল ফলাফলের পাশাপাশি ভবিষ্যতে আরও এগিয়ে যাবে। অপরদিকে দৃষ্টিপ্রতিবন্ধী সাবির একজন দুরন্ত প্রকৃতির শিশু। শিক্ষিকা রহিমা বেগম আরো বলেন, সাধ্য অনুযায়ী আমরা এই দুই শিক্ষার্থীদের সব রকম সুযোগ সুবিদাও দিচ্ছি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24