শনিবার, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৯:৪৮ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরের হাওরগুলোতে অবাধে চলছে পোনা নিধন

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২৯ আগস্ট, ২০১৪
  • ৭২ Time View

জগন্নাথপুর২৪ ডেস্ক.
জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরগুলোতে অবাধে পোনা নিধন হচ্ছে। সচেতনতার অভাব ও মৎস্য বিভাগের জনবল সংকটের কারণে পোনা নিধন রোধ করা যাচ্ছে না। তবে পোনা নিধন বন্ধে ভ্রাম্যমান আদালতের মাধ্যমে বিশেষ অভিযান চালানোর পাশাপাশি বিভিন্ন পদক্ষেপ গ্রহণ করা হয়েছে বলে জানিয়েছে উপজেলা মৎস্য বিভাগ।
সরেজমিনে জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়া ও মইয়ার হাওর ঘুরে দেখা গেছে, মৎস্য শিকারীরা নৌকাযোগে অবৈধ বেড় জাল,কাপড়ি জাল ও বেলজাল বসিয়ে পোনা নিধন করছে। আর এসব পোনা মাছ জগন্নাথপুর মৎস্য আড়তের মাধ্যমে সিলেট বিভাগের বিভিন্ন বাজারে বিক্রি হচ্ছে। এছাড়াও জগন্নাথপুর,ভবেরবাজার,কলকলিয়া,রানীগঞ্জ,রসুলগঞ্জ বাজারে প্রতিদিন পোনা মাছ বিক্রি হচ্ছে।
উপজেলা মৎস্য কার্যালয় সূত্র জানায়, মৎস্যজীবিদের সচেতন করতে হাওরগুলোতে নৌকাযোগে মাইকিং করে প্রচারণা চালানো হয়েছে। পাশাপাশি অভিযান চালিয়ে বিভিন্ন হাট বাজার থেকে পোনা জব্দ করে জলাশয়ে অবমুক্ত করা হয়।
মৎস্য কার্যালয় সূত্র আরও জানায়, বৈশাখ থেকে শ্রাবণ মাস পর্যমত্ম মাছের প্রজনন মৌসুম। এ মৌসুমে হাওরে মাছ ধরা নিষেধ। এবিষয়ে মৎস্যজীবিদের সচেতন করে তুলতে তাদের নিয়ে সভা-সমাবেশ র‌্যালী, মাইকিং করে নৌকা যোগে প্রচারণা চালানো হয়। এছাড়াও ওই মৌসুমে মৎস্যজীবি পরিবারের জন্য বিকল্প কর্মসংস্থান হিসেবে তাদেরকে সেলাই মেশিন প্রদান করা হয়েছে।
জগন্নাথপুর কোকিলা মৎস্যজীবি সমবায় সমিতির সাধারণ সম্পাদক বাবুল দাস বলেন, উপজেলার প্রতিটি মৎস্যজীবি সমিতিদের নিয়ে মৎস্য বিভাগ থেকে সভা করে পোনা নিধন বন্ধে সচেতনতা সৃষ্টির উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে। এরপরও কিছু অসাধু মৎস্যজীবি ভোররাতে লুকিয়ে পোনা মাছ ধরছেন।
জগন্নাথপুর বাজারের মাছের আড়তদারের কর্মী দীনু দাস বলেন, প্রতিদিনই বিভিন্ন এলাকা থেকে আড়ত ও হাট বাজারে পোনা আসছে। এসব পোনা দেখলে খুব কষ্ট লাগে। ওই পোনাগুলোকে রক্ষা করা গেলে মাছের অভাব দূর হতো।
জগন্নাথপুর উপজেলা সহকারী মৎস্য কর্মকর্তা একে এম মহসীন বলেন, জনবল সংকটের কারণে সব সময় সব জায়গায় অভিযান চালানো যায় না। এরপরও উপজেলার জগন্নাথপুর, রানীগঞ্জ, ভরেরবাজার কেশবপুর,রসুলগঞ্জ বাজারে অভিযান চালিয়ে পোনা আটক করে জলাশয়ে অবমুক্ত করেছি। এধরনের অভিযান শ্রাবণ মাস পর্যমত্ম চলবে।
সুনামগঞ্জ জেলা মৎস্য কর্মকর্তা সুলতান আহমদ বলেন, মাছের প্রজনন মৌসুমে যাতে কেউ পোনা নিধন করতে না পারে সেজন্য জেলাব্যাপী সচেতনতা সৃষ্টিতে প্রচারণা চালানো হয়েছে। হাওর অঞ্চলে পোনা নিধন বন্ধে এবার আমরা কঠোর পদক্ষেপের পাশাপাশি বিকল্প কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করেছি। এরপরও কিছু উপজেলায় জনবল সংকটের কারণে তা বিঘ্নিত হচ্ছে।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24