শুক্রবার, ১৮ অক্টোবর ২০১৯, ১২:২২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে শুক্রবার সকাল ৬টা ১২টা ও শনিবার ৮ থেকে বিকাল ৪টা পর্যন্ত বিদ্যুৎ থাকবে না জগন্নাথপুরে ফ্রি মেডিকেল ক্যাম্প ও উঠান বৈঠক অনুষ্ঠিত প্রমাণ পেলে বহিরাগতদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেব- জগন্নাথপুরে ডিসি জগন্নাথপুরে কলেজছাত্রীর ছবি ফেসবুকে ছড়িয়ে দেয়ার অভিযাগ,বখাটের হুমকিতে নিরাপত্তাহীনতায় পরিবার জগন্নাথপুরে দিনভর বিভিন্ন উন্নয়ন প্রকল্প পরির্দশন শেষে ডিসি-জনগনের দোরগোড়ায় সেবা পৌছে দেয়া হচ্ছে জগন্নাথপুর উপজেলা আওয়ামী লীগের সন্মেলন ৬ নভেম্বর যুবলীগের চেয়ারম্যানের গণভবনে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা! সৌদিতে সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩৫ তুহিন হত্যা:জড়িতদের দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবীতে মানববন্ধন কলকলিয়া ইউনিয়ন আ,লীগ সেক্রেটারী দীপাল বাবুর শ্রাদ্ধ আজ

জগন্নাথপুরের হাওরগুলোতে এখন সবুজের সমারোহে সোনালী বাতাস

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৩ এপ্রিল, ২০১৬
  • ১১৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি:: জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরগুলোতে এখন সবুজের সমারোহে সোনালী আভা দেখা দিয়েছে। আর ক’দিন পরই শুরু হবে ধান কাটার মহোৎসব। হাওরগুলোতে লাগানো সবুজের সমারোহেতে সোনালী আভায় এক অন্যরকম দৃশ্য অনুভূত হচ্ছে। সরেজমিনে উপজেলার বৃহৎ হাওর নলুয়া, মইয়া ও পিংলার হাওর ঘুরে দেখা গেছে বোরো ধানের সবুজ সমারোহ যেন হাওরবাসীকে আনন্দে উদ্বেলিত করছে। চোখ যতদূর যায় শুধু সবুজ ধানের চারা বাতাসে দুলছে। কিছু কিছু সবুজে সোনালী আভা দেখা দিয়েছে। দুই এক দিনের মধ্যেই এসব সবুজ চারা সোনালী রঙ্গে রাঙ্গিয়ে কৃষকের গোলায় উঠবে। কৃষকরা কষ্টার্জিত ফসল ঘরে তুলে তৃপ্তির ঢেকুর তুলবেন। শস্যভান্ডর বলে খ্যাত এ উপজেলায় নলুয়া, মইয়াসহ ছোটবড় ১৫টি হাওরে এবার প্রায় ২৫ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়েছে। হাওরগুলোতে লাগানো সবুজ চারায় অরণ্যে কৃষকরা দুলছেন। ধান তুলতে পারলেই এ জেলার কৃষকরা ধনী। আর না তুলতে পারলে দুঃখ কষ্টের শেষ তাকে না। একমাত্র বোরো ফসলের ওপর নির্ভরশীল এ জেলার কৃষকরা। কৃষকরা জানান, কোন ধরনের প্রাকৃতিক বিপর্য়য় না হলে এবার হাওরে বাম্পার ফলন হয়েছে। ধান তুলতে পারলে কৃষকদের মাথার গাম পায়ে ফেলার কষ্ট সার্থক হবে।নলুয়ার হাওরের কৃষক বেতাউকা গ্রামের জুয়েল মিয়া বলেন, হাওরপাড়ের কৃষকদের চোখে এখন অন্যরকম আনন্দ। একদিকে সবুজ চারায় সোনালী আভার দুল। অন্যদিকে প্রাকৃতিক বিপর্য়য়ের শংকা। তার মতে কোন ধরনের প্রাকৃতিক সমস্যা না হলে একমাসের মধ্যে কৃষকরা সব ধান ঘরে তুলতে পারবেন।

Boru-Dhan-Photo-Chunarughat-copy-300x156
এবার নলুয়াসহ এ উপজেলার হাওর রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজে সরকার প্রায় চার কোটি টাকা বরাদ্দ দিয়েছে। পিআইসি ও ঠিকাদারের মাধ্যমে এসব কাজ করানো হয়েছে। এ প্রসঙ্গে হাওর রক্ষা সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান বলেন, একমাত্র সৃষ্টিকর্তার ওপর ভরসা করেই কৃষকরা হাওরের দিকে চেয়ে আছেন। কোন ধরনের প্রাকৃতিক সমস্যা হলে এসব বাঁধের কাজে হাওর রক্ষা হবে না। তার মতে এবার হাওর রক্ষা পাউবো নিয়ম রক্ষায় শুধু সংষ্কার কাজ করেছে। পানি উন্নয়ন বোর্ডের মাঠ অফিসার মোসাদ্দেক বলেন, পাউবো ঠিকাদারও পিআইসিকে নিয়ে হাওর রক্ষা বাঁধ নির্মাণে নিরলসভাবে কাজ করছে। আশা করি বড় ধরনের প্রাকৃতিক বির্পযয় না হলে কৃষকরা নিবিঘ্নে ধান তুলতে পারবেন। উপজেলা কৃষি অফিসার আসাদুজ্জামান বলেন, হাওরে এবার বাম্পার ফলন হয়েছে। কৃষকদেরকে ধান পাকা মাত্রই কেটে আনতে হবে।
জগন্নাথপুর উপজেলার ইউএনও মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির অতিসম্প্রতি নলুয়ার হাওর ঘুরে কৃষকদের সবুজ সমারোহের আনন্দযজ্ঞের অনুভূতি প্রকাশ করে বলেন, হাওরপাড়ে এখন অন্যরকম চিত্র। যা বাংলার সবুজ শ্যামল প্রকৃতির চিত্রকে জাগিয়ে তুলছে। কয়েকদিনের মধ্যে এই সবুজ সমারোহ সোনালী শীষে দুলবে। বাম্পার ফলন হয়েছে। আশা করি কৃষকরা সুষ্ঠভাবে গোলায় ধান তুলতে পারবেন। তিনি কৃষকদের জন্য শুভ কামনা জানিয়ে বলেন, হাওরে ধান পাকার সাথে সাথেই কেটে আনতে সচেতনতা সৃষ্টিতে উপজেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে মাইকিং করার ব্যবস্থা করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24