রবিবার, ১৮ অগাস্ট ২০১৯, ০৯:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের এবার বর্ষসেরা প্রতিনিধি হলেন আশিক মিয়া বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড, হিসেবে আখ্যা দিল জাতিসংঘ জগন্নাথপুরে তিন লাখ টাকা মূল্যের সরকারি গাছ ‘কেটে’ নিলেন যুবলীগ নেতা।

জগন্নাথপুরের হাওরে চাহিদা বেড়েছে ধান কাটার আধুনিক যন্ত্র কম্বাইন হারভেষ্টারের

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ২০ এপ্রিল, ২০১৮
  • ১৩৩ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি ::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরে ধান কাটার শ্রমিক সংকটের কারনে চাহিদা বেড়েছে কম্বাইন হারভেষ্টার যন্ত্রের। এই আধুনিক মেশিনটি এক সঙ্গে ধানকাটা ,মাড়াই ঝাড়া ও বস্তাবন্দী করার এ যন্ত্রটি হাওরের কৃষকদের কাছে খুব জনপ্রিয় হয়ে উঠেছে। তবে চাহিদা মোতাবেক যন্ত্র না থাকায় কৃষকরা পর্যাপ্ত সুফল পাচ্ছেন না।

শুক্রবার দলুয়ার হাওরে কম্বাইন হারভেষ্টার মেশিন দিয়ে ধান কাটার দৃশ্য দেখা যায়। একসঙ্গে ধানকাটা, মাড়াইঝাড়া ও বস্তাবন্দী করার এ যন্ত্র দিয়ে ধানকাটা, মাড়াই, ঝাড়া ও বস্তাবন্দী করার দৃশ্য দেখতে কৃষকদের ভীড় লক্ষ্য করা যায়।
কৃষকরা জানান, ধান কাটার প্রচলিত প্রদ্বতির চেয়ে এ যন্ত্র দিয়ে ধান কাটলে খরচ কম ও সময় সাশ্রয় হয়। এছাড়াও মাঠে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা ধানের অপচয় হয়না। এযন্ত্র দিয়ে ধান কাটলে এক দিনে ১০ কেদার বোরো জমির ধান, কাটা, মাড়াই ,ঝাড়া ও বস্তাবন্দী করা যায়। প্রচলিত পদ্ধতিতে এক দিনে ১০ জন কৃষি শ্রমিক আড়াই থেকে তিন মণ ধান কাটতে পারেন। বর্তমানে জনপ্রতি কৃষিশ্রমিকের প্রতিদিনের মজুরী রয়েছে ছয় থেকে সাতশত টাকা। হারভেষ্টার যন্ত্রদিয়ে কেদার প্রতি ধানকাটাহচ্ছে এক হাজার ৫০০ টাকায়।
দলুয়ার হাওরের হবিবপুর গ্রামের বাসিন্দা কৃষক আলী আকবর জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমি দুইলাখ ২০ হাজার টাকা দিয়ে এবছর ধান কাটার জন্য এযন্ত্রটি সরকারী ৭০ ভাগ ভুর্তকি সুবিধা নিয়ে এনেছি। প্রথমে নিজের ২৫ কেদার জমির ধানকাটা, মাড়াই, ঝাড়া ও বস্তাবন্দী করতে শুরু করেছি। যা দেখে অনেক কৃষক ভাড়ায় এ যন্ত্রটি নিতে অগ্রিম টাকা দিতে চাইছেন। তিনি কৃষকদেরকে সুবিধা মতো এক হাজার ৫০০ টাকা কেদারে মেশিন দিয়ে ধান কেটে দিচ্ছেন। তিনি গত এক সপ্তাহে নিজের ১০ কেদার সহ৫০ কেদারের বেশী জমির ধান কেটেছেন বলে জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান।
টিয়ার গাঁও গ্রামের বাসিন্দা কৃষক আনর মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওরে এ বছর এমনিতেই কৃষি শ্রমিক সংকট রয়েছে। এযন্ত্রটি আমাদের খুব উপকারে আসছে। এরকম যন্ত্র পর্যাপ্ত থাকলে কৃষকদের ধানকাটা, ঝাড়া, মাড়াই ও বস্তাবন্দীর কষ্ট সময় ব্যয় সাশ্রয়হতো।
সৈয়দপুর গ্রামের কৃষক নুর আলী বলেন, কৃষক আলী আকবর এর হারভেষ্টার মেশিন দলুয়ার হাওরের কৃষকদেরকে এবার উপকৃত করেছে। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমি ওই যন্ত্র দিয়ে ১০ কেদার জমির মধ্যে ছয় কেদার জমির ধান কেটে বস্তাবন্দী করে বাড়ি নিয়ে গেছি। শ্রমিক দিয়ে ধানকাটালে,ঝাড়া ,মাড়াই দেয়া, বস্তাবন্দী করাসহ নানা ঝামেলা পোহাতে হতো। তাই এ যন্ত্রটি কৃষকদের জন্য উপকারী।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কার্যালয় সূত্র জানায়, সরকারীভাবে এ যন্ত্রটি কৃষকদের মধ্যে জনপ্রিয় করে তুলতে সরকার ৭০ ভাগ ভুর্তকির মাধ্যমে যন্ত্রটি প্রদান করছে। গত বছর প্রথমবারের মতো এ উপজেলায় একটি যন্ত্র দেয়া হয়। এবার উপজেলার১২ জন কৃষক৭০ ভাগ ভুর্তকির মাধ্যমে এ যন্ত্র পেয়েছেন।

জগন্নাথপুর উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্ভিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা তপন চন্দ্র শীল জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, জগন্নাথপুর উপজেলায় ছোটবড় ১৫টি হাওরে এবার আবাদ করা হয়েছে। উপজেলায় হারভেষ্টার যন্ত্র রয়েছে মাত্র ১২টি। দলুয়ার হাওরে রয়েছে মাত্র একটি যন্ত্র। যা চাহিদার তুলনায় অপ্রতুল। তিনি বলেন, ক্রমানয়ে যন্ত্রটির বিষয়ে কৃষকদের আগ্রহ বাড়ছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আতাউর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, কৃষিকাজে আধুনিকতার বিকল্প নেই। তাই বেশী করে হাওরে হারভেষ্টার মেশিন বিতরণ করা দরকার। তিনি বলেন,হাওর অঞ্চলে অকাল বন্যাসহ নানা প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে অনেক সময় পাকাধান কৃষকরা কাটতে পারেন না। তাই এসব দিক বিবেচনা করে কৃষি বিভাগের তত্বাবধানে কম খরচে ধানকাটার ব্যবস্থা করলে হাওরের কৃষকর াউপকৃত হবেন।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরগুলোতে এখন পাকা ধানের ঝিলিক। কৃষি শ্রমিক সংকটের কারণে এসব ধানকাটা যাচ্ছে না। হাওর অঞ্চলের জন্য হারবেষ্টার মেশিন খুবই প্রয়োজন।

 

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24