বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০৭:৩৩ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরের ২৭টি মন্ডপে চলছে প্রতিমা তৈরীর প্রস্তুুতি

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ৩০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ২৭ Time View

স্টাফ রিপোর্টার:: জগন্নাথপুর উপজেলার ২৭টি পূজামন্ডপসহ সুনামগঞ্জের ১১টি উপজেলায় ৩শতাধিক মন্ডবে পালিত হবে হিন্দু ধর্মের প্রধান উৎসব দূর্গাপূজা। দেশের অন্যান্য স্থানের মত জেলায় ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে ৭অক্টোবর দূর্গাপূজা র্স্বাথক ও সফল করে তুলতে এবং প্রয়োজনীয় সকল কাজ সম্পন্ন করতে সকাল থেকে মধ্য রাত পর্যন্ত ব্যস্থ সময় পার করছে সবাই। প্রতি বারেই প্রতিমা তৈরিতে সৌন্দর্য,চাকাচিক্য,ভিন্নতার মধ্য দিয়ে সর্বাধিক প্রশংসার অধিকার লাভ করার জন্য মন্ডপে মন্ডপে চলছে নীরব প্রতিযোগীতা মন্ডপের আয়োজকদের মাঝে। আর প্রতি বারই প্রতিমা তৈরিতে কারু শিল্পীরা তাদের নিজেস্ব শৈল্পীক সৌন্দর্যের নিখুত কারুকার্য প্রদর্শনের সর্বোচ্চ চেষ্টায় ব্যস্ত সময় পার করছে এখন। দেবী দূর্গার পাশা পাশি লক্ষী,সরস্বতী,গনেশ,অসুর,মহিষ,কার্তিক,সিংহের মৃন্ময় মূর্তি তৈরিতে আনা হচ্ছে আধুনিকতার চমক। কোন কোন মন্ডপে দেবী দূর্গার এবারের আগমন ও গমননের প্রতীকী ঘটনা সহ পৌরাণিক কাহিনীকে নানা আদলে ফুটিয়ে তুলার চেষ্টা চলছে। বিদ্যুৎতের সাহায্যেও ফুটিয়ে তুলার চেষ্টা চলবে দেব রাজ্যের নানা কল্প কাহিনী। এবার চোখ ধাদানো সুন্দর্য প্রকাশের জন্য মন্ডবের সাজ-সজ্জাতেও থাকছে ভিন্নতা। তার জন্য রাত দিন কঠোর পরিশ্রম করছে কারু শিল্পী সহ সংশ্লিষ্টগন।
জানাযায়-এবার সুনামগঞ্জ জেলার ১১টি উপজেলায় ৩শতাধিক মন্ডপে পূজা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। এর মধ্যে জেলা সদরে ১৬টি,দক্ষিন সুনামগঞ্জে ১৭টি,জগন্নাথপুরে ২৭টি,ছাতকে ২৬টি,ধর্মপাশায় ১৩টি,মধ্যনগরে ২১টি,বিশ্বাম্ভরপুরে ১৭টি,দিরাইয়ে ৪৭টি,দোয়ারা বাজারে ১০টি,জামালগঞ্জে ৪০টি,তাহিরপুরে ২২টি এবং শাল্লায় ২১টি পূজা মন্ডপ তৈরি করা হচ্ছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি শংকল দেব ও সাধারণ সম্পাদক প্রনব কুমার বণিক জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান,জগন্নাথপুরের সবকটি মন্ডপে শান্তিপূর্ণভাবে চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ। ইতিমধ্যে প্রতিমাগুলোর আশিভাগ কাজ শেষ হয়ে গেছে। এখন শুধু রংতুলির কাজ অবশিষ্ট রয়েছে। জেলা পূজা উদযাপন পরিষদের নেতা বিমান তালুকদার জানান,প্রতি বছরের মত এবারও জেলা পূজা উদযাপন পরিষদ,জেলা প্রশাসন,উপজেলা প্রশাসন ও পুলিশ প্রশাসনের পক্ষ থেকেও নেওয়া হচ্ছে শান্তি শৃংখলা রক্ষায় বিভিন্ন পদক্ষেপ। দূর্গা পূজা শান্তিপূর্ন,সুশৃংখল ও উৎসব মুখর করার জন্য জেলা ও বিভিন্ন উপজেলায় পূজা উদযাপন কমিটি,স্থানীয় এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গদের নিয়ে যে কোন বিশৃংখলা প্রতিরোধে পুলিশের কয়েকটি ইউনিট কাজ করবে। প্রতি বছরের মত জেলা প্রশাসকের কার্যালয়ে এক জন ম্যাজিস্ট্রেট এর নেতৃত্বে খোলা হবে একটি নিয়ন্ত্রন কক্ষ। কারু শিল্পীরা জানান-প্রতিমা তৈরি করা প্রায় শেষের দিকে সম্পূর্ন্ন শেষ করার পর রং তুলির নিখুঁত আচঁড়ে ফুটিয়ে তুলা হবে প্রকৃত অবয়ব। ফুটিয়ে তুলা হবে নাক,কান,চোখ,মূখ ইত্যাদি। এরপর শুরু হবে পোষাক পরিচ্ছদ পরিদানের মাধ্যমে আরো আকর্শনীর করার কাজ। প্রতি বছরের মত এবারও দূর্গাপূজা কে সামনে রেখে জেলা ও উপজেলা প্রশাসন,পুলিশ প্রশাসন আইন-শৃংখলা রক্ষায় সংশ্লিষ্ট প্রসাশনের সর্বাত্বক সাহায্য ও সহযোগীতা পাওয়ার আশাবাদ ব্যক্ত করে জানান, এবার জেলায় প্রায় তিন শতাধিক মন্ডপে পূজা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24