সোমবার, ২০ জানুয়ারী ২০২০, ০৭:৪৯ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
’সরকারি চাকরিতে ৩ লাখ ১৩ হাজার পদ শূন্য’ জগন্নাথপুরের মিরপুর ইউনিয়ন আ.লীগের সম্মেলন আজ জগন্নাথপুরের লহরী গ্রামে শীতবস্ত্র বিতরণ আদালতের আদেশে জগন্নাথপুরের বিএন উচ্চ বিদ্যালয়ের শতবর্ষ উৎসব আবারো স্থগিত মিরপুরে বর্নিল সাজে দুইদিন ব্যাপি প্রাক্তন শিক্ষার্থীদের পুনর্মিলনী অনুষ্ঠান সম্পন্ন মৌলভীবাজারে স্ত্রী-মাসহ ৪ জনকে হত্যার পর আত্মহত্যা জগন্নাথপুরে ইউনিয়ন আ,লীগের সম্মেলন সফল করার লক্ষে প্রস্তুতিসভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ডাক্তার-নার্সের অবহেলায় শিশুর মৃত্যুের অভিযোগে তদন্ত কমিটি গঠন মুঠোফোনে প্রেমের ফাঁদে ফেলে কিশোরগঞ্জের তরুণী কে জগন্নাথপুর এনে ধর্ষণ নান্দনিক আয়োজনে ঐতিহ্যবাহি মিরপুরের উচ্চ বিদ্যালয়ে সাবেক শিক্ষার্থীদের মিলনমেলায় বাঁধাভাঙা উচ্ছ্বাস

জগন্নাথপুরে অভিযোগ তদন্ত করতে গিয়ে মারধরের অভিযোগে পুলিশ অবরুদ্ধ ক্ষমা চেয়ে মুক্ত

স্টাফ রিপোর্টার
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২ জানুয়ারী, ২০২০
  • ৫৩৩ Time View

স্টাফ রিপোর্টার –
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে একটি অভিযোগের তদন্ত করতে গিয়ে এক ব্যক্তিকে মারধর করার অভিযোগে এলাকাবাসীর কাছে ৩০ মিনিট অবরুদ্ধ থাকার পর ক্ষমা চেয়ে মুক্ত হয়েছেন জগন্নাথপুর থানার এএসআই শিপলু মজুমদার ও কনস্টেবল ফরহাদ আহমেদ । ঘটনাটি ঘটেছে বুধবার দুপুরে উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের ইসলামপুর গ্রামে।
প্রত্যক্ষদর্শী ও এলাকাবাসী সূত্র জানায় ইসলামপুর গ্রামের চেরাগ আলী বাদী হয়ে একই গ্রামের সুন্দর আলীর বিরুদ্ধে জগন্নাথপুর থানায় মালিকানা জায়গা থেকে গাছ কেটে নেওয়ার অভিযোগে একটি লিখিত অভিযোগ দেন। এঘটনায় জগন্নাথপুর থানার সহকারী পুলিশ এএসআই শিপলু মজুমদার ও কনস্টেবল ফরহাদ আহমেদ ঘটনার তদন্তে যান। তদন্তে গিয়ে পুলিশ অভিযুক্ত সুন্দর আলীর খোঁজ করতো থাকেন। সুন্দর আলী ঘর থেকে বের হলে পুলিশ কর্মকর্তা সুন্দর আলীর ভাই নজির মিয়ার ঘরে মুঠোফোনে বাজানো গান বন্ধ করতে বলেন। এতে বিলম্ব হওয়ায় নজির মিয়া কে ঘর থেকে ডেকে পুলিশ মারধর শুরু করেন। অন্যায়ভাবে নজির মিয়া কে মারধর করায় প্রতিবেশী ও পরিবারের লোকজন পুলিশ সদস্যদেরকে একটি কক্ষে তালাবদ্ধ করে রাখেন। পরে নিজের ভূল বুঝতে পেরে পুলিশ কর্মকর্তা ক্ষমা প্রার্থী হলে তাদের ছেড়ে দেওয়া হয়।
সুন্দর আলী বলেন, এক মাস আগে আমার বিরুদ্ধে থানায় অভিযোগ দেওয়া হয়েছিল বিষয়টি এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গ আপোষে নিস্পত্তি করে দেন। তিনি তদন্তে গিয়ে আমার ভাই কে অন্যায়ভাবে মারধর করেন এতে ক্ষুব্ধ হয়ে লোকজন তাদের কে আটক করে পরে ক্ষমা চেয়ে রক্ষা পান এবং চিকিৎসার জন্য এক হাজার টাকা দিয়ে আসেন। তিনি বলেন পুলিশের এমন আচরণে আমরা হতভম্ব।
এবিষয়ে অভিযুক্ত এএসআই শিপলু মজুমদার বলেন, অবরুদ্ধের মতো কোন ঘটনা ঘটেনি। আমরা সাথে থাকা কনস্টেবলের সাথে সামান্য কথা কাটাকাটি হয়েছে। বিষয়টি মীমাংসা হয়ে গেছে।
জগন্নাথপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি ইখতিয়ার উদ্দিন চৌধুরী বলেন, এধরণের কোন ঘটনা ঘটেনি।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24