শুক্রবার, ০৬ ডিসেম্বর ২০১৯, ১০:২৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ২২তম ক্রিকেট টুর্নামেন্টের উদ্বোধন সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সেই সড়কে ২৩ কোটি টাকার টেন্ডার সম্পন্ন, নতুন বছরের শুরুতেই কাজ শুরু হতে পারে জগন্নাথপুরে ১৫ দিন পর অবশেষে ধান কেনা শুরু জগন্নাথপুরে গলায় ফাঁস দিয়ে দুর্বৃত্তরা হত্যা করল স্টুডিও’র মালিক আনন্দকে সিলেট জেলা আ’লীগের নেতৃত্বে লুৎফুর-নাসির, মহানগরে মাসুক-জাকির প্রতিবন্ধীদের জন্য প্রতিটি উপজেলায় সহায়তা কেন্দ্র: প্রধানমন্ত্রী জগন্নাথপুর পৌরশহরে স্টুডিও দোকানদারের মরদেহ পাওয়া গেছে হিন্দুরাষ্ট্রের পথে ভারত: সংসদে বিজেপি নেতা জামিন শুনানি পেছালো, এজলাসে হট্টগোল, আইনজীবীদের অবস্থান মানবজাতির প্রতি কোরআনের অমূল্য উপদেশ

জগন্নাথপুরে আমনের ফলনে কৃষক খুশি

বিশেষ প্রতিনিধি::
  • Update Time : সোমবার, ১৮ নভেম্বর, ২০১৯
  • ৩৩০ Time View
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার হাওরজুড়ে শুরু হয়েছে আমন ধান কাটার উৎসব। নবান্নের মাস অগ্রহায়ণ শুরু হতেই কৃষকরা পাকা ধান কাটার প্রস্তুতি গ্রহণ করেছেন। অনেকেই ধান কেটে গোলায় তুলতে শুরু করেছেন। হাওরজুড়ে এখন পাকা আধাপাকা ধানের শীষ দোলছে। কোন কোন কৃষক ধান কাটছেন আবার কোন কোন কৃষক বাড়ির আঙ্গিনা প্রস্তুত রাখছেন।
কৃষকরা জানান,পোকামাকড়ের আক্রমণ ও কোন ধরনের প্রাকৃতিক বিপর্যয়ে না পড়ায় আমনের ফলন হয়েছে ভাল। এখন ধান গোলায় তুলতে পারলে তাদের কষ্টার্জিত স্বপ্ন বাস্তবায়িত হবে। তবে ধানের নায্যদাম না পাওয়ার শঙ্কা রয়েছে কৃষকদের মনে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কার্যালয় সূত্র জানায়, জগন্নাথপুর উপজেলার আটটি ইউনিয়ন ও একটি পৌরসভায়  এবার ৮১৬০ হাজার হেক্টর জমিতে আমন আবাদ করা হয়েছে।
গতকাল রোববার জগন্নাথপুর উপজেলার বিভিন্ন  ইউনিয়নে হাওর ঘুরে সরেজমিনে দেখা যায়,হাওরে হাওরে পাকা আধাপাকা ধানের শীষ দোলছে। হাওরে হাওরে চলছে ধান কাটার উৎসব।  জামাইকাটা হাওরে কথা হয় বড়কাপন গ্রামের কৃষক দিপন পালের সঙ্গে তিনি বলেন,এবার আমনের বাম্পার ফলন হয়েছে তাই কৃষকরা খুশি। তিনি ছয় কেদার ৩০ শতকে এক কেদার জমির মধ্যে তিন কেদার জমির ধান কেটে ৪০মণ ধান পেয়েছেন।
পাটলী ইউনিয়নের শ্যামহাট গ্রামের বাসিন্দা কৃষক সুরুজ আলী জানান, আমনের ফলনে খুশি হলেও নায্য দাম না থাকায় কৃষকরা ভাল নেই। তিনি গত বোরো মৌসুমেও কৃষকরা ধানের নায্য দাম পাননি।এখনো বাজারে ৬০০ টাকা দরে ধান বিক্রি হচ্ছে।
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলনের আহ্বায়ক সিরাজুল হক জানান, আমন ধান আমাদের হাওর অঞ্চলের জন্য অন্যতম ঐতিহ্য। এ ধানের নতুন চাল দিয়ে ঘরে ঘরে পিঠা পায়েশের আয়োজন চলত। গ্রামে গ্রামে হতো নবান্নের উৎসব। এখন অনেকটা ম্লান হয়ে গেলেও গ্রামীণ জনপদের মানুষ এখনো তা ধরে রেখেছে। তিনি কৃষকদের কে বাঁচাতে ধানের নায্য দাম নিশ্চিতের দাবি জানান।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুর উপজেলায় এবার আমন উৎপাদনের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭৯০০ হেক্টর। তারমধ্য লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৮১৬০ হেক্টর আবাদ হয়েছে। ইতিমধ্যে ৩৫০০ হেক্টর জমির ধান কাটা হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24