রবিবার, ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৬:০৯ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
কেন্দ্রীয় ছাত্রলীগের নতুন ২ কাণ্ডারির পরিচিতি জনগণের মৌলিক অধিকার ও আইনের শাসনে গুরুত্ব দিতে হবে : প্রধানমন্ত্রী দ.সুনামগঞ্জে বিদেশী রিভলবারসহ গ্রেফতার ১ সাংবাদিক এ এস রায়হানের পিতার মৃত্যু, জানাজা সম্পন্ন পাটলী উইমেন্স কলেজ উন্নয়নে প্রবাসীদের ১২ লাখ টাকার অনুদান জগন্নাথপুরে শ্রমিক-ব্যবসায়ীদের দ্বন্দ্বের নিস্পত্তি, পরিবহন ধর্মঘট প্রত্যাহার বাংলাদেশে ঢুকে মসজিদ নির্মাণে বিএসএফ’র বাধা প্রদান জগন্নাথপুরে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান জাতীয় ফুটবল টুর্নামেন্টের ফাইনাল সম্পন্ন জগন্নাথপুরে সালিশী ব্যক্তিত্ব নুরুল ইসলাম আর নেই সুনামগঞ্জে বিয়ের খাবার খেয়ে অসুস্থ হয়ে ৮০ জন হাসপাতালে, ১ জনের মৃত্যু

জগন্নাথপুরে- আ.লীগ-বিএনপি দুই দলেরই চ্যালেঞ্জ

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ৯ ফেব্রুয়ারী, ২০১৭
  • ১৩ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: প্রবাসী অধ্যূষিত জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনের মনোনয়ন দাখিলের শেষ দিন আজ (বৃহস্পতিবার)। দীর্ঘ আট বছর পর বহুল প্রত্যাশিত এ উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি চ্যালেঞ্জ হিসাবে নিয়েছে।
আওয়ামী লীগ দলীয় প্রার্থী হিসাবে মঙ্গলবার চেয়ারম্যান পদে উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি, বর্তমান চেয়ারম্যান আকমল হোসেন, ভাইস চেয়ারম্যান পদে বিজন কুমার দে ও মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে বর্তমান মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান হাজেরা বারী’র নাম ঘোষণা করা হয়েছে।
বিএনপি’র কেন্দ্রীয় সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক কলিম উদ্দিন আহমদ মিলন বৃহস্পতিবার দুপুরে জানিয়েছেন জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে বিএনপি’র প্রার্থী করা হয়েছে জেলা বিএনপি’র সাবেক সহসভাপতি আতাউর রহমানকে, ভাইস চেয়ারম্যান পদে সোহেল খান টুনু এবং মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান পদে ফারজানা আক্তারকে দলীয় মনোনয়ন দেওয়া হয়েছে।
স্থানীয় একাধিক রাজনৈতিক কর্মী জানিয়েছেন, জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনকে এবার চ্যালেঞ্জ হিসাবে নিয়েছে আওয়ামী লীগ ও বিএনপি। বিগত উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে আকমল হোসেন এবং আতাউর রহমানের মধ্যেই প্রতিদ্বন্দ্বিতা হয়েছিল এবং অল্প ভোটের ব্যবধানে জয় পরাজয় নির্ধারিত হওয়ায় এবার বিএনপি এবং আওয়ামী লীগ নির্বাচনকে চ্যালেঞ্জ হিসাবে নিয়েছে।
নির্বাচন কমিশন ঘোষিত তফসিলে আজ (বৃহস্পতিবার, ৯ ফেব্রুয়ারি) জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের মনোনয়নপত্র দাখিলের শেষ দিন নির্ধারণ করা হয়েছে। মনোনয়নপত্র বাছাই ১০ ফেব্রুয়ারি, ১৭ ফেব্রুয়ারি প্রার্থীতা প্রত্যাহার ও ৬ মার্চ ভোট গ্রহণের দিন নির্ধারণ করা হয়েছে।
জানা গেছে, ২০০৯ সালের ২২ জানুয়ারী জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদের ফলাফল নিয়ে দুই প্রার্থী উপজেলা আওয়ামী লীগের তৎকালীন সাধারণ সম্পাদক আকমল হোসেন ও বিএনপি নেতা আতাউর রহমানের মধ্যে বিরোধ দেখা দেয়। পরে নির্বাচন কমিশন দুই বিজয়ী ভাইস চেয়ারম্যানের ফলাফল গেজেট আকারে প্রকাশ করে এবং ২০০৯ সালের ৯ ফেব্রুয়ারি চেয়ারম্যান পদের ফলাফল স্থগিত ঘোষণা করা হয়। পরে নির্বাচন কমিশন বিচারবিভাগীয় তদন্ত করে সিদ্ধান্ত ঘোষণা করেন উপজেলার ৬০ নম্বর শাহারপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পুন:ভোট গ্রহণ হবে। নির্বাচন কমিশনের এই সিদ্ধান্তের বিরুদ্ধে বিএনপি নেতা আতাউর রহমান হাইকোর্টে রিট করেন। এই রিটের প্রেক্ষিতে ২৫ মে হাইকোর্ট নির্বাচন স্থগিত করে কেন আতাউর রহমানকে চেয়ারম্যান নির্বাচিত করা হবেনা এই মর্মে নির্বাচন কমিশনের উপর রুল জারী করেন। দীর্ঘ আইনী লড়াই শেষে হাইকোর্টের বিচারপতি এ এইচ এম শামসুদ্দিন চৌধুরী ও দেলোয়ার হোসেনের সমন্বয়ে দ্বৈত বেঞ্চ চেয়ারম্যান প্রার্থী আতাউর রহমানের দায়ের করা রিট আবেদন খারিজ করে দেন। ফলে নির্বাচন কমিশনের বিচার বিভাগীয় তদন্ত প্রতিবেদনের প্রেক্ষিতে উপজেলার ৬০ নম্বর শাহারপাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভোট গ্রহণে আইনী বাধা অপসারিত হয় এবং ওই কেন্দ্রে ২০১০ সালে পুনঃ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। পুনঃনির্বাচনে আকমল হোসেন চেয়ারম্যান নির্বাচিত হন।
পরবর্তীতে দায়িত্ব গ্রহণ করে তিনি নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি হিসেবে ৫ বছর মেয়াদ পূরণের জন্য আদালতের শরণাপন্ন হলে আদালত ৫ বছর দায়িত্ব পালনের আদেশ দেন। চলতি বছরের ১২ জানুয়ারি তাঁর ৫ বছর মেয়াদ পূরণ হয়।
আওয়ামী লীগ ও বিএনপি’র প্রার্থীতা ঘোষণার পর জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে হাওয়া লেগেছে। উপজেলা জুড়েই এখন একই আলোচনা। স্থানীয় আওয়ামী লীগ ও বিএনপি নির্বাচনকে গুরুত্বের সঙ্গে দেখছে।
বিএনপি মনোনীত প্রার্থী আতাউর রহমান বলেন,‘বিগত নির্বাচনে ৭২ ভোট বেশি পেয়ে আমি বেসরকারীভাবে নির্বাচিত হয়েছিলাম। আদালতে এই পয়েন্টে আমাকে প্রতিদ্বন্দ্বিরা হারাতে পারেননি। পরে শাহাড়পাড়া সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোট কেন পাশের উচ্চ বিদ্যালয়ে গ্রহণ করা হলো এই পয়েন্ট আইন-সঙ্গত হয়নি উল্লেখ করে মামলা হয় এবং সেই মামলার রায় অনুযায়ী পুনঃনির্বাচন হয়। সেই নির্বাচনে অল্প ভোটের ব্যবধানে আকমল হোসেন জয়ী হয়েছেন। তখন আমি ন্যায় বিচার পাইনি’।
আওয়ামী লীগের প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আকমল হোসেন বলেন,‘বিগত নির্বাচনে ফলাফল ঘোষণার পর সকল গণমাধ্যমে প্রচার হয় ৩১০ ভোটের ব্যবধানে আমি এগিয়ে। পরবর্তীতে রীট করেন আতাউর রহমান। আদালতের আদেশে পরে উপ-নির্বাচন হয়। ঐ নির্বাচনেও আমি জয়ী হই’।
এদিকে, জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে উপজেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক, বর্তমান ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদির আহমদ মুক্তা এবং যুক্তরাজ্য প্রবাসী হরমুজ আলী চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন দাখিল করবেন বলে জানা গেছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24