জগন্নাথপুরে এক পশলা বৃষ্টি,স্বস্তির বদলে শঙ্কা

বিশেষ প্রতিনিধি ::
রোববার বিকেলে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার ওপর বয়ে যাওয়া এক পশলা বৃষ্টিতে কৃষকদের মধ্যে স্বস্তি দেখা দিলেও হাওরের বোরো ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণকাজের দায়িত্বে থাকা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) মধ্যে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, জগন্নাথপুর উপজেলার কৃষকরা একমাত্র বোরো ফসলের ওপর নির্ভরশীল। কৃষকরা হাওরজুড়ে বোরো আবাদ করেছেন। বোরোর চারায় বাড়তে শুরু করেছে। একটু বৃষ্টির ছোঁয়া পেলেই চারাবৃদ্ধি পাবে এবং চারা থেকে ধানের থোড় বের হবে। তাই গত কয়েকদিন ধরে কৃষকরা বৃষ্টির জন্য অপেক্ষা করছিলেন।
জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওরপাড়ের কৃষক আলমগীর হোসেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওর এলাকায় বোরোর চারায় এই সময়ে বৃষ্টির খুব প্রয়োজন। আমরা বৃষ্টির অপেক্ষায় ছিলাম। এক পশলা বৃষ্টি আমাদেরকে অনেকটা স্বস্তি দিয়েছে। কিন্তু বাঁধের কাজ শেষ না হওয়ায় আমরা চিন্তিত।
নলুয়ার হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ৮ নং প্রকল্প কমিটির সভাপতি কয়েছ আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,বৃষ্টির কারনে গতকাল আমাদের কাজে বিঘিœত ঘটেছে। প্রতিদিন ১৬ ঘন্টা কাজ হলেও বৃষ্টির কারনে গতকাল মাত্র ছয়ঘন্টা কাজ হয়।

জগন্নাথপুর উপজেলা হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক সিদ্দিকুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওরের ফসল রক্ষার বাঁধ নির্মাণ কাজের ধীরগতিতে আমরা চিন্তিত। ঝড়বৃষ্টি বেশী হলে বাঁধের কাজের গতি আরো ব্যাহত হবে। এখনো পুরো হাওরের কাজ শেষ হতে কমপক্ষে ১৫/২০ দিন সময় লাগবে। গতকাল সকাল ও বিকেল দুই দফা বৃষ্টি আমাদের শঙ্কা বাড়িয়ে দিয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারী প্রকৌশলী হাসান গাজী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুর উপজেলায় এবার ৫০ টি প্রকল্পে ৫ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বরাদ্দে ৩২ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ৬০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। ২৮ ফেব্রুয়ারি শতভাগ কাজ শেষ হওয়ার কথা। তিনি বলেন, আজকের বৃষ্টি বাঁধের মাটিকে আরো শক্তিশালী করবে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুর উপজেলার বৃহৎ হাওর নলুয়া সহ ছোট বড় ১৫ টি হাওরে এবার ২২ হাজার ৫০০ হেক্টর বোরো জমিতে আবাদ করা হয়। এই সময়ে এক পশলা বৃষ্টি কৃষকদের বোরো চারার জন্য খুব উপকারি।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ পর্যবেক্ষণ উপজেলা কমিটির সভাপতি মাহ্ফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডকমকে বলেন,আমরা বাঁধের কাজ শেষ করতে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ও সম্পাদক কে তাগাদা দিয়ে যাচ্ছি। আশা করছি যথাসময়ে কাজ শেষ হবে।

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» জগন্নাথপুরের বীর মুক্তিযাদ্ধা আব্দুল কাদির শিকদার আর নেই, পরিকল্পনামন্ত্রীর শোক

» সুনামগঞ্জে তিন দিনে তিন খুন, ভাবাচ্ছে সকলকে

» হানিফ পরিবহনের ২ বাসের সংঘর্ষে নিহত-৩

» নিউজিল্যান্ডের রেডিও-টিভিতে জুমার আজান সম্প্রচারের ঘোষণা দিলেন দেশটির প্রধানমন্ত্রী

» ব্যবসায়ী নজরুল ইসলাম হত্যা: ১৫ আসামির মৃত্যুদণ্ড

» ইউসুফ (আ.)-এর কবরের পাশে তিন ফিলিস্তিনি যুবককে গুলি করে হত্যা

» জগন্নাথপুরে চার জুয়াড়ি আটক

» নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলন ২৮ মার্চ পর্যন্ত স্থগিত

» তৃতীয় শ্রেণি পর্যন্ত পরীক্ষা না রাখার নির্দেশ দিলেন প্রধানমন্ত্রী

» বাসচাপায় নিহত আবরারের পরিবারকে ১০ লাখ টাকা ক্ষতিপূরণ দেয়ার নির্দেশ

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জগন্নাথপুরে এক পশলা বৃষ্টি,স্বস্তির বদলে শঙ্কা

বিশেষ প্রতিনিধি ::
রোববার বিকেলে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার ওপর বয়ে যাওয়া এক পশলা বৃষ্টিতে কৃষকদের মধ্যে স্বস্তি দেখা দিলেও হাওরের বোরো ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণকাজের দায়িত্বে থাকা প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির (পিআইসি) মধ্যে শঙ্কা দেখা দিয়েছে।
কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, জগন্নাথপুর উপজেলার কৃষকরা একমাত্র বোরো ফসলের ওপর নির্ভরশীল। কৃষকরা হাওরজুড়ে বোরো আবাদ করেছেন। বোরোর চারায় বাড়তে শুরু করেছে। একটু বৃষ্টির ছোঁয়া পেলেই চারাবৃদ্ধি পাবে এবং চারা থেকে ধানের থোড় বের হবে। তাই গত কয়েকদিন ধরে কৃষকরা বৃষ্টির জন্য অপেক্ষা করছিলেন।
জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওরপাড়ের কৃষক আলমগীর হোসেন জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওর এলাকায় বোরোর চারায় এই সময়ে বৃষ্টির খুব প্রয়োজন। আমরা বৃষ্টির অপেক্ষায় ছিলাম। এক পশলা বৃষ্টি আমাদেরকে অনেকটা স্বস্তি দিয়েছে। কিন্তু বাঁধের কাজ শেষ না হওয়ায় আমরা চিন্তিত।
নলুয়ার হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ৮ নং প্রকল্প কমিটির সভাপতি কয়েছ আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,বৃষ্টির কারনে গতকাল আমাদের কাজে বিঘিœত ঘটেছে। প্রতিদিন ১৬ ঘন্টা কাজ হলেও বৃষ্টির কারনে গতকাল মাত্র ছয়ঘন্টা কাজ হয়।

জগন্নাথপুর উপজেলা হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক সিদ্দিকুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, হাওরের ফসল রক্ষার বাঁধ নির্মাণ কাজের ধীরগতিতে আমরা চিন্তিত। ঝড়বৃষ্টি বেশী হলে বাঁধের কাজের গতি আরো ব্যাহত হবে। এখনো পুরো হাওরের কাজ শেষ হতে কমপক্ষে ১৫/২০ দিন সময় লাগবে। গতকাল সকাল ও বিকেল দুই দফা বৃষ্টি আমাদের শঙ্কা বাড়িয়ে দিয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারী প্রকৌশলী হাসান গাজী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুর উপজেলায় এবার ৫০ টি প্রকল্পে ৫ কোটি ৪৭ লাখ টাকা বরাদ্দে ৩২ কিলোমিটার বাঁধ নির্মাণ করা হচ্ছে। ইতিমধ্যে ৬০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। ২৮ ফেব্রুয়ারি শতভাগ কাজ শেষ হওয়ার কথা। তিনি বলেন, আজকের বৃষ্টি বাঁধের মাটিকে আরো শক্তিশালী করবে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, জগন্নাথপুর উপজেলার বৃহৎ হাওর নলুয়া সহ ছোট বড় ১৫ টি হাওরে এবার ২২ হাজার ৫০০ হেক্টর বোরো জমিতে আবাদ করা হয়। এই সময়ে এক পশলা বৃষ্টি কৃষকদের বোরো চারার জন্য খুব উপকারি।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ পর্যবেক্ষণ উপজেলা কমিটির সভাপতি মাহ্ফুজুল আলম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডকমকে বলেন,আমরা বাঁধের কাজ শেষ করতে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ও সম্পাদক কে তাগাদা দিয়ে যাচ্ছি। আশা করছি যথাসময়ে কাজ শেষ হবে।

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।