মঙ্গলবার, ১৭ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ১০:৩০ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে পঞ্চাশ ঊর্ধ্ব ব্যক্তির বয়স ২৪ বছর! এ অভিযোগে মনোনয়ন বাতিল, গেলেন আপিলে জগন্নাথপুরে নদীর পাড় কেটে মাটি উত্তোলনের দায়ে দুই ব্যক্তির কারাদণ্ড জগন্নাথপুর বাজার সিসি ক্যামেরায় আওতায় আনতে এসআই আফসারের প্রচারণা জগন্নাথপুরে নিরাপদ সড়ক ও যানজটমুক্ত রাখতে প্রশাসনের মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুর উপজেলা ক্রিকেট এসোসিয়েসনের নতুন কমিটি গঠন মিরপুরে আ.লীগ প্রার্থী আব্দুল কাদিরের সমর্থনে কর্মীসভা অনুষ্ঠিত ফেসবুকে ক্ষমা চেয়েছেন ছাত্রলীগের সাবেক সম্পাদক রাব্বানী প্রায়ই বিদ্যালয়ে অনুপস্থিত থাকেন শিক্ষক জগন্নাথপুরে যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে ফেসবুকে অপপ্রচার, থানায় জিডি সংস্কারের দাবীতে জগন্নাথপুর-বিশ্বনাথ সড়কে মঙ্গলবার থেকে আবারও অনিদিষ্টকালের জন্য পরিবহন ধর্মঘট

জগন্নাথপুরে এলজিইডি অফিস থেকে এমবি বই নিয়ে ঠিকাদারের চম্পট

Reporter Name
  • Update Time : বৃহস্পতিবার, ২৫ জুন, ২০১৫
  • ৩০ Time View

স্টাফ রিপোটার: সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলা স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি কার্যালয় থেকে চুড়ান্ত বিল প্রস্স্তুতকৃত মাপ বহি (এমবি) ঠিকাদার কৌশলে নিয়ে চম্পট দিয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। এঘটনায় স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডির অফিস সহকারী কাম কম্পিউটার অপারেটর বাদী হয়ে জগন্নাথপুর থানায় একটি লিখিত অভিযোগ দায়ের করেছেন। উক্ত লিখিত অভিযোগটি আইনগত সহায়তার জন্য স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের ্উপজেলা প্রকৌশলী রফিকুল ইসলাম জগন্নাথপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তাকে অনুরোধ করেছেন্। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডি জগন্নাথপুর কার্যালয় ও লিখিত অভিযোগ সূত্র থেকে জানা যায়, জগন্নাথপুর উপজেলার চিল্উাড়া- সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের নতুন ভবন নির্মাণ কাজের ঠিকাদার মেসার্স আর এফ কোং প্রোঃ মোঃ আরেফ আহমদ গোল্ডেন টাওয়ার তৃতীয় তলা পূর্ব আম্বরখানা সিলেট এই ঠিকানার ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান ৩৫ লাখ টাকা বরাদ্দে কাজ পান। কাজ শেষ হওয়ার পর তার পাওনা চুড়ান্ত শেষ বিল ৪ লাখ ৬১ হাজার টাকা নেয়ার জন্য এলজিইডি কার্যালয় থেকে বার বার যোগাযোগ করা হলে ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানের ঠিকাদার বৃহস্পতিবার সকালে এলজইডি কার্যালয়ে আসেন। এসময় উপজেলা প্রকৌশলী একটি কাজ পরির্দশনে উপজেলার রসুলগঞ্জ বাজারে ছিলেন। ্এসময় অফিস সহকারী ধীরেন্দ্র কুমার সূূত্রধরের নিকট তার এমবি বহি দেখতে চান। তিনি এমবি বহি বের করে দিয়ে বাথরুমে গেলে সেখান থেকে এসে দেখেন ঠিকাদার এমবি বহি নিয়ে চম্পট দিয়েছে। সাথে সাথে তিনি মুুুঠোফোনে যোগাযোগ করলে ঠিকাদার আর ফোন রিসিভ করেননি।
জগন্নাথপুুর উপজেলা প্রকৌশলী এলজিইডি মোঃ রফিকুল ইসলাম বলেন, অফিস থেকে এমবি এনিয়ে চলে যাওয়ার পথে আমাকে মুঠোফোনে ওই ঠিকাদার বলে আমার বিল লাগবে না আমি পেয়ে গেছি জীবনে অনেক টাকা রুজি করেছি আর টাকা লাগবে না আমি অনেক অনুরোধ করার পরও ঠিকাদার না আসায় বাধ্য হয়ে টাকা ফেরৎ দিয়েছি। তিনি বলেন, জুুন মাসের মধ্যে ওই টাকা দিতে হবে তাই আমি ব্যক্তিগতভাবে ওই ঠিকাদারের সাথে বার বার যোগাযোগ করে বিল নিতে অনুুুরোধ করি। তারপরও কেন এরকম করলেন বুঝতে পারিনি। তিনি বলেন, ওই ঠিকাদার এর আগে এরকম কাজ করেছেন।
জগন্নাথপুর থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ওসি তদন্ত খান মোহাম্মদ মাইনুল জাকির জানান, অভিযোগের বিষয়ে আইনানুগ পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24