সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:২৮ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
কাশ্মীরে নির্বিচারে ধরপাকড় চলছে স্মৃতির রত্নায় ঈদ ভাবনা || আব্দুল মতিন জগন্নাথপুরে আগুনে পুড়ল দুইটি ঘর,ক্ষয়ক্ষতি ১০ লাখ জগন্নাথপুর আদর্শ মহিলা কলেজের উদ্যােগে দুই যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে সম্মাননা প্রদান জগন্নাথপুরে শিক্ষক সংকট নিরসনে প্রবাসি সংগঠন নিয়োগ দিল ১২ প্যারা শিক্ষক যে ঘুষ খাবে সেই কেবল নয়, যে দেবে সেও অপরাধী: প্রধানমন্ত্রী বাস-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ৭ জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের

জগন্নাথপুরে টিসিবির পণ্য পাচ্ছেনা মানুষ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ৭ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ১৪ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি
কোরবানির ঈদকে সামনে রেখে নিত্যপণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে রাখতে দেশের ১৭৯ পয়েন্টে ট্রাক এবং ২ হাজার ৯’শ ২৪ জন ডিলারের মাধ্যমে দেশের বিভিন্ন স্থানে গত ৩১ আগস্ট থেকে সরকারি প্রতিষ্ঠান ট্রেডিং করপোরেশন অব বাংলাদেশের (টিসিবি) পণ্য বিক্রি শুরু করেছে। বিক্রয় চলবে ৮ সেপ্টেম্বর পর্যন্ত। কিন্তু এবারও সুনামগঞ্জে খোলাবাজারে ট্রাক দিয়ে পণ্য বিক্রয় হচ্ছে না। জেলার ২৬ ডিলারের মধ্যে কেবল জগন্নাথপুরের ২ জন, দোয়ারাবাজারের ১ জন ও শাল্লার ১ জন ডিলার মাল উত্তোলন করেছেন। টিসিবি কর্তৃপক্ষ বলছে,‘বার বার তাগাদা দিলেও মাল উত্তোলন করছেন না সুনামগঞ্জের ডিলাররা। অন্যদিকে ডিলাররা বলছেন,‘টিসিবি যে পরিমাণ মাল দেয়, গাড়ি ভাড়া দিয়ে এই মাল এনে বিক্রি করলে লোকসান গুনতে হয়’। এই অবস্থায় প্রান্তিক জনপদ সুনামগঞ্জের প্রায় ২২ লাখ মানুষ গত রমজান মাসের মতোই এই কোরবানির ঈদেও সরকারের কম মূল্যের মালামাল পাওয়া থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন।
জেলার ২৬ জন ডিলারের মধ্যে সোমবার পর্যন্ত কেবল জগন্নাথপুরের পলাশ ট্রেডার্স এবং সোহেল ট্রেডার্স, দোয়ারাবাজারের বিনয় চক্রবর্তী ও শাল্লার ত্রিপালি ভা-ার টিসিবির মালামাল তুলেছে। অন্যরা এখনো মালামাল তুলেনি। টিসিবি কর্তৃপক্ষ বলছেন,‘ফোন দেওয়া হলেও সুনামগঞ্জের ডিলাররা মাল তুলতে আসছে না’। সুনামগঞ্জ শহরে ট্রাক দিয়ে খোলা বাজারেও টিসিবি’র পণ্য বিক্রি হচ্ছে না। অথচ. বিভাগের অন্য তিন জেলায় টিসিবির পণ্য বিক্রি হচ্ছে ৩১ আগস্ট থেকেই।
সারা দেশের ১’শ ৭৯ টি পয়েন্টে ভ্রাম্যমাণ ট্রাক, এর মধ্যে বিভাগীয় শহরে ৫ টি ট্রাক, জেলা শহরে ২ টি ট্রাক এবং ২ হাজার ৯’শ ২৪ জন ডিলারের মাধ্যমে মসুর ডাল, ভোজ্য তেল ও চিনি বিক্রি করছে টিসিবি।
৩১ আগস্ট থেকে রাজধানী ঢাকা শহরসহ দেশের ৪ বিভাগীয় শহর এবং জেলা শহরগুলোয় ভ্রাম্যমাণ ট্রাকের মাধ্যমে টিসিবির পণ্য বিক্রয় শুরু হয়।
সিলেট বিভাগের ৪ জেলা এবং কুমিল্লার ব্রাম্মণবাড়িয়া জেলার টিসিবির আঞ্চলিক অফিস মৌলভীবাজারের শেরপুরে অনেক আগে থেকেই। সিলেট, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ, সুনামগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ার ৫৬ জন ডিলার সোমবার পর্যন্ত টিসিবি’র পণ্য তুলেছেন শেরপুর টিসিবি অফিস থেকে। ৫ জেলার মধ্যে সুনামগঞ্জেরই সবচেয়ে কম (৩ জন ডিলার) ডিলার মাল তুলেছেন।
বিভাগীয় শহরে ৫ টি ট্রাক, মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় দুটি করে ভ্রাম্যমাণ ট্রাকে টিসিবি’র পণ্য বিক্রয় হচ্ছে। কিন্তু সুনামগঞ্জে টিসিবি ডিলার না থাকায় কেউ মালামাল তুলেনি কিংবা টিসিবির আঞ্চলিক অফিস থেকেও সুনামগঞ্জ জেলা শহরে ভ্রাম্যমাণ ট্রাক দিয়ে টিসিবি’র পণ্য পাঠানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়নি।
জগন্নাথপুরের রানীগঞ্জের ডিলার পলাশ ট্রেডার্স’এর পরিচালক ধনেশ রায় বলেন,‘চিনি, তেল ও ডাল মিলে আমাদের দেওয়া হয়েছে মাত্র ৭০০ কেজি, মাল কম আছে জানিয়ে আমাদের এই স্বল্প পরিমাণ মালামাল দেওয়া হয়েছে, এগুলো তুলে বেকায়দায় পড়েছি আমরা। লোকজন বলাবলি করছে মালামাল তুলে আমরা তাদের কাছে বিক্রি করতে চাচ্ছি না। বিষয়টি জেলা প্রশাসককেও জানিয়েছি আমরা’। একই কথা বলেছেন, রানীগঞ্জের সোহেল ট্রেডার্সের পরিচালক সোহেল মিয়াও।
জেলার দোয়ারাবাজারের বিনয় ট্রেডার্সের পরিচালক টিসিবি ডিলার বিনয় চক্রবর্তী বলেন,‘ মঙ্গলবার আমি ৫০০ কেজি চিনি, ৩০০ কেজি মুশুরী ডাল, ৩২০ কেজি সুয়াবিন তৈল তুলেছি। তবে মালের গুণগত মান ভাল নয়। এতো কম মালামাল তুললে লোকসান গুনা ছাড়া উপায় নেই। তাছাড়া জিনিসের মান খারাপ থাকায় এগুলোর বিক্রি নিয়েও সন্দিহান আমি’।
টিসিবির সিলেট অঞ্চলের আঞ্চলিক প্রধান জামাল উদ্দিন আহমদ বলেন,‘কোরবানির ঈদ সামনে রেখে ৩টি পণ্য ভ্রাম্যমাণ ট্রাকের মাধ্যমে সিলেট নগরে এবং দুটি করে ট্রাকের মাধ্যমে মৌলভীবাজার, হবিগঞ্জ ও ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা শহরে বিক্রি করা হচ্ছে। এরমধ্যে প্রতি কেজি দেশি চিনি ৫৫ টাকায় (ভোক্তা প্রতি সর্বোচ্চ ৪ কেজি), মসুর ডাল ৮৯ টাকা ৯৫ পয়সা (ভোক্তা প্রতি ২ কেজি), এবং সয়াবিন তেল প্রতি লিটার ৮০ টাকায় ( ভোক্তা প্রতি ৫ লিটার) বিক্রি করা হচ্ছে।
দৈনিক ট্রাক প্রতি চিনি ৩০০ থেকে ৪০০ কেজি, মসুর ডাল ১৫০ কেজি থেকে ২০০ কেজি, সয়াবিন তেল ৩০০ থেকে ৪০০ লিটার বরাদ্দ রয়েছে’।
টিসিবি’র এই কর্মকর্তা জানান, এবার মালামাল কম থাকায় চাহিদা অনুযায়ি ডিলারদের মালামাল দেওয়া যাচ্ছে না। শেরপুর থেকে ব্রাম্মণবাড়িয়ায় নিয়ে খোলা বাজারে টিসিবি’র মাল বিক্রয় হচ্ছে। অথচ. সড়ক পথে এর চেয়েও কম দূরত্বের জেলা সুনামগঞ্জে টিসিবি’র মালামাল কেন বিক্রি করা যাচ্ছে না? এই প্রশ্নের জবাবে টিসিবি’র এই কর্মকর্তা বলেন-‘সুনামগঞ্জে কোন ডিলার নেই। জেলার অন্য ডিলারদের শহরে ট্রাকে করে বিক্রির জন্য বলা হয়েছে, কেউই এতোদূর থেকে ট্রাকে মালামাল নিয়ে বিক্রি করতে চাচ্ছে না, এজন্য সুনামগঞ্জ শহরে খোলাবাজারে টিসিবির’র মালামাল বিক্রয় করা যাচ্ছে না। আমাদের অফিসেও লোকবল কম, আমরা নিজস্ব উদ্যোগেও এটি করা সম্ভব হচ্ছে না’।
প্রসঙ্গত. এর আগে রমজান মাসেও সুনামগঞ্জের কোন টিসিবি ডিলার মালামাল তুলেননি। শহরে ট্রাক দিয়ে খোলা বাজারেও টিসিবি’র পণ্য বিক্রয় হয়নি। সূত্র সুনামগঞ্জের খবর

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24