জগন্নাথপুরে ধান কাটা শুরু চৈত্রের নিদান দূর করছে নতুন ধান

বিশেষ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওরে ধান কাটা শুরু হয়েছে। দেশীয় জাতের ধান বোরো কেটে কৃষকরা গোলায় তুলেছেন।
কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে,সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার হাওর অঞ্চলে এক সময় বোরো আবাদ বেশী হতো। অকাল বন্যা ও উচ্চ ফলনশীল বিভিন্ন জাতের ধানের ভীড়ে দেশীয় জাত বোরোর চাষাবাদ হাওর থেকে হারাতে বসেছে। তারপরও জগন্নাথপুরের হাওরপাড়ের গ্রামগুলোতে চৈত্রের নিদান দূর করছে বোরোধান।

 

 

 

 


গতকাল  নলুয়ার হাওর ঘুরে দেখা গেছে,হাওরে আধা পাকা সোনালী ধানের শীষ দুলছে। কিছু কিছুর জমির ধান সোনালি রঙ্গে রাঙ্গিয়েছে।কেউ কেউ এসব জমির ধান কেটে মাড়াই দিচ্ছেন। কেউবা নিজের জমির ফসল ঘুরে ঘুরে দেখছেন।
হাওরে কথা হয় নলুয়ানোওয়াগাঁও গ্রামের কৃষক জমির আলীর সঙ্গে।তিনি বলেন,বাপদাদার বুনিয়াদি ধান হচ্ছে বোরো।এই ধান সবার আগে চৈত্রমাসে পাকে। তিনি বলেন,চৈত্রমাসে হাওর এলাকায় কৃষকদের ঘরে (নিদান) খাবারের অভাব দেখা দেয় তাই নিদান থেকে রক্ষা পেতে বোরো আবাদ করা হয়।আমি এবার ১০ কেদার (৩০)শতাংশে এক কেদার জমি আবাদ করি তারমধ্যে চার কেদার জমিতে বোরো আবাদ করি। মঙ্গলবার দুই কেদার জমির ফসল কেটে ধান পেয়েছি মাত্র আট মণ।

 

 

 


ভূরাখালি গ্রামের কৃষক জুনেল মিয়া জানান,হাওরে যারা বোরো আবাদ করেছেন তারা এখন ধান কাটতে পারছেন।অন্য জাতের ধান কাটতে আরো কয়েকদিন সময় লাগবে।তিনি চার কেদার বোরো ফসল থেকে ধান পেয়েছেন মাত্র ১০ মণ।তারমতে আগাম জাতের কারনে চৈত্র মাসে নতুন ধানের ভাত খেতে পূর্বপুরুষের দেখানো পথ ধরে বোরো লাগিয়েছিলাম। যে ধান পেয়েছি তাতে খরচ উঠবে না।
একই গ্রামের প্রবীণ কৃষক আবু নছর বলেন,বোরোধান কেদারে কমপক্ষে সাত থেকে আট মণ হওয়ার কথা।খড়া ও সময়মতো বৃষ্টি না পাওয়ায় এবার বোরোধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, ফলে ফলন কম হয়েছে। তিনি দুই কেদার বোরো থেকে ছয় মণ ধান পেয়েছেন বলে জানান। আবু নছর জানান,সবার আগে দেশীয় এ ধান ঘরে তোলা যায়।চৈত্র মাসে অধিকাংশ কৃষকদের ঘরে খাবার সংকট দেখা দেয় বোরোধান সেই সংকট দুর করে নতুনধানের ভাতের স্বাদ দেয় কৃষকদের।
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা নির্মল দাস জানান,হাওর এলাকায় ক্ষুদ্র ও বর্গাচাষী কৃষকরা চৈত্রমাসের শেষ দিকে খাবার সংকটে পড়েন। এই সংকট থেকে দেশীয় ধান বোরো কৃষকদের রক্ষা করছে। নতুবা দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কম দামে ধান বিক্রি করে নিদানের মাস পার করতে হতো কৃষকদের।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্র জানায়,জগন্নাথপুর উপজেলায় এবার ২০ হাজার ৭২৫ হেক্টর জমিতে উচ্চ ফলনশীল, হাইব্রিড ও বোরো আবাদ করা হয়েছে তারমধ্যে বোরো আবাদ হয়েছে ১৮০ হেক্টর জমিতে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন গতকাল নলুয়ার হাওরঘুরে দেখেছি হাওরজুড়ে বোরোধান কাটার ধূম পড়েছে। প্রাকৃতিক নানা কারণে বোরোতে ফলন কম হলেও আগাম ধান তুলতে পারায় কৃষকরা খুশি। তিনি বলেন,আগামীতে এক সপ্তাহের মধ্যে হাওরে সব জাতের ধান কাটার ধূম থাকবে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম মাসুম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে

বলেন,উপজেলার প্রধান হাওর নলুয়ার হাওরে ধানকাটা শুরু হওয়ায় কৃষকদের মনে আনন্দ রয়েছে। প্রকৃতি অনুকূলে থাকলে এবার দ্রুত সময়ে ধান উঠবে বলে আশা করছি। তিনি বলেন কৃষকদের ধান গোলায়  উঠার আগ পর্যন্ত আমরা তাদের পাশে মাঠে আছি।

 

এ বিভাগের অন্যান্য সংবাদ



সর্বশেষ আপডেট



» পরীক্ষা কেন্দ্রে ছাত্রীকে যৌন হয়রানির অভিযোগে আটক-১

» দলকে না জানিয়ে এমপি হিসেবে শপথ নিলেন বিএনপির জাহিদুর

» ‘ক্রাইস্টচার্চে মসজিদে হামলার সঙ্গে শ্রীলঙ্কা হামলার সম্পর্কের প্রমাণ নেই’

» ক্লাসে শিক্ষকদের সিগারেট-পান নিষিদ্ধ

» জগন্নাথপুরে এক সন্তানের জননীর আত্মহত্যা

» জগন্নাথপুরে নিসচা’র উদ্যোগে লিফলেট বিতরণ

» জগন্নাথপুরের সাবেক ছাত্রলীগ নেতা যুক্তরাজ্য প্রবাসিকে আনহার মিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান

» জগন্নাথপুরে সু-সেবা নেটওয়ার্ক কমিটির ত্রিমাসিক পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত

» জগন্নাথপুরে যুক্তরাজ্য প্রবাসি গীতিকার আক্কাছ মিয়াকে সংবর্ধনা প্রদান

» হবিগঞ্জে প্রেমিক হত্যার পর খাটের নিচে মাটিতে পুতে রাখে প্রেমিকা

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

Desing & Developed BY PopularITLtd.Com
,

জগন্নাথপুরে ধান কাটা শুরু চৈত্রের নিদান দূর করছে নতুন ধান

বিশেষ প্রতিনিধি : সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওরে ধান কাটা শুরু হয়েছে। দেশীয় জাতের ধান বোরো কেটে কৃষকরা গোলায় তুলেছেন।
কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে,সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার হাওর অঞ্চলে এক সময় বোরো আবাদ বেশী হতো। অকাল বন্যা ও উচ্চ ফলনশীল বিভিন্ন জাতের ধানের ভীড়ে দেশীয় জাত বোরোর চাষাবাদ হাওর থেকে হারাতে বসেছে। তারপরও জগন্নাথপুরের হাওরপাড়ের গ্রামগুলোতে চৈত্রের নিদান দূর করছে বোরোধান।

 

 

 

 


গতকাল  নলুয়ার হাওর ঘুরে দেখা গেছে,হাওরে আধা পাকা সোনালী ধানের শীষ দুলছে। কিছু কিছুর জমির ধান সোনালি রঙ্গে রাঙ্গিয়েছে।কেউ কেউ এসব জমির ধান কেটে মাড়াই দিচ্ছেন। কেউবা নিজের জমির ফসল ঘুরে ঘুরে দেখছেন।
হাওরে কথা হয় নলুয়ানোওয়াগাঁও গ্রামের কৃষক জমির আলীর সঙ্গে।তিনি বলেন,বাপদাদার বুনিয়াদি ধান হচ্ছে বোরো।এই ধান সবার আগে চৈত্রমাসে পাকে। তিনি বলেন,চৈত্রমাসে হাওর এলাকায় কৃষকদের ঘরে (নিদান) খাবারের অভাব দেখা দেয় তাই নিদান থেকে রক্ষা পেতে বোরো আবাদ করা হয়।আমি এবার ১০ কেদার (৩০)শতাংশে এক কেদার জমি আবাদ করি তারমধ্যে চার কেদার জমিতে বোরো আবাদ করি। মঙ্গলবার দুই কেদার জমির ফসল কেটে ধান পেয়েছি মাত্র আট মণ।

 

 

 


ভূরাখালি গ্রামের কৃষক জুনেল মিয়া জানান,হাওরে যারা বোরো আবাদ করেছেন তারা এখন ধান কাটতে পারছেন।অন্য জাতের ধান কাটতে আরো কয়েকদিন সময় লাগবে।তিনি চার কেদার বোরো ফসল থেকে ধান পেয়েছেন মাত্র ১০ মণ।তারমতে আগাম জাতের কারনে চৈত্র মাসে নতুন ধানের ভাত খেতে পূর্বপুরুষের দেখানো পথ ধরে বোরো লাগিয়েছিলাম। যে ধান পেয়েছি তাতে খরচ উঠবে না।
একই গ্রামের প্রবীণ কৃষক আবু নছর বলেন,বোরোধান কেদারে কমপক্ষে সাত থেকে আট মণ হওয়ার কথা।খড়া ও সময়মতো বৃষ্টি না পাওয়ায় এবার বোরোধান ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে, ফলে ফলন কম হয়েছে। তিনি দুই কেদার বোরো থেকে ছয় মণ ধান পেয়েছেন বলে জানান। আবু নছর জানান,সবার আগে দেশীয় এ ধান ঘরে তোলা যায়।চৈত্র মাসে অধিকাংশ কৃষকদের ঘরে খাবার সংকট দেখা দেয় বোরোধান সেই সংকট দুর করে নতুনধানের ভাতের স্বাদ দেয় কৃষকদের।
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সংগঠনের যুগ্ম আহ্বায়ক মুক্তিযোদ্ধা নির্মল দাস জানান,হাওর এলাকায় ক্ষুদ্র ও বর্গাচাষী কৃষকরা চৈত্রমাসের শেষ দিকে খাবার সংকটে পড়েন। এই সংকট থেকে দেশীয় ধান বোরো কৃষকদের রক্ষা করছে। নতুবা দাদন ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে কম দামে ধান বিক্রি করে নিদানের মাস পার করতে হতো কৃষকদের।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি বিভাগ সূত্র জানায়,জগন্নাথপুর উপজেলায় এবার ২০ হাজার ৭২৫ হেক্টর জমিতে উচ্চ ফলনশীল, হাইব্রিড ও বোরো আবাদ করা হয়েছে তারমধ্যে বোরো আবাদ হয়েছে ১৮০ হেক্টর জমিতে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন গতকাল নলুয়ার হাওরঘুরে দেখেছি হাওরজুড়ে বোরোধান কাটার ধূম পড়েছে। প্রাকৃতিক নানা কারণে বোরোতে ফলন কম হলেও আগাম ধান তুলতে পারায় কৃষকরা খুশি। তিনি বলেন,আগামীতে এক সপ্তাহের মধ্যে হাওরে সব জাতের ধান কাটার ধূম থাকবে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহ্ফুজুল আলম মাসুম জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে

বলেন,উপজেলার প্রধান হাওর নলুয়ার হাওরে ধানকাটা শুরু হওয়ায় কৃষকদের মনে আনন্দ রয়েছে। প্রকৃতি অনুকূলে থাকলে এবার দ্রুত সময়ে ধান উঠবে বলে আশা করছি। তিনি বলেন কৃষকদের ধান গোলায়  উঠার আগ পর্যন্ত আমরা তাদের পাশে মাঠে আছি।

 

© 2018 জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃক সর্বস্বত্ত্ব সংরক্ষিত

সম্পাদক ॥ অমিত দেব, মোবাইল ॥ ০১৭১৬-৪৬৫৫৩৫,
ই-মেইল ॥ amit.prothomalo@gmail.com
বার্তা সম্পাদক ॥ আলী আহমদ, মোবাইল ॥ ০১৭১৮-২২২৯৭৫,
ই-মেইল ॥ ali.jagannathpur@gmail.com,
ওয়েবসাইট ॥ www.jagannathpur24.com, ই-মেইল ॥ jpur24@gmail.com

error: ভাই, কপি করা বন্ধ আছে।