রবিবার, ২০ অক্টোবর ২০১৯, ০৫:৩৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
ভোলায় পুলিশ-জনতা সংঘর্ষ, নিহত ৪, শতাধিক আহত জগন্নাথপুরে মাদ্রাসা ছাত্র সাব্বিরের হত্যাকারীদের ফাঁসির দাবীতে বিক্ষোভ মিছিল জগন্নাথপুরে পৃথক দুই হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় এখনও মামলা হয়নি সাংবাদিকতার উজ্জ্বল পরিম-লে কামকামুর রাজ্জাক রুনু এক স্বপ্নচারী পুরুষ শেখ রাসেলের জন্মবার্ষিকী উপলক্ষে জগন্নাথপুরে আ.লীগের আলোচনাসভা জগন্নাথপুরে শ্রমিকলীগের কমিটি বিলুপ্ত জগন্নাথপুরের তিন রাজনীতিবীদ জেলা আ,লীগের উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য মনোনীত হলেন জগন্নাথপুরে দুইপক্ষের বিরোধে বলি হলো মাদ্রাসার ছাত্র সাব্বির জগন্নাথপুরে ছিনতাইকৃত গ্রামীণফোনের রিচার্জ কার্ড-অর্থসহ ডাকাত গ্রেফতার জগন্নাথপুরে দুই পক্ষের সংঘর্ষে গুলিবিদ্ধ হয়ে শিশু নিহত

জগন্নাথপুরে প্রথমবারের মতো ব্র্রুকোলি চাষ করে সফল হয়েছেন আশরাফুল

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৫ এপ্রিল, ২০১৮
  • ৮৮ Time View

স্টাফ রিপোর্টার ::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার কলকলিয়া ইউনিয়নের বালিকান্দি গ্রামে কৃষক আশরাফুল ইসলামের বাড়ি। কৃষক বাবার পথ অনুসরন করেই তিনি গত কয়েক বছর ধরে কৃষি কাজ শুরু করছেন।
গত দুই বছর পর পর অকাল বন্যায় বোরো ফসল হারিয়ে তিনি এক ছটাক ধান তুলতে পারেননি। দিশেহারা হয়ে পড়েন পরিবার পরিজন নিয়ে। কৃষি বিভাগের পরামর্শে শুরু করেন ব্যাপকভাবে সবজির আবাদ। গ্রামের এক যুক্তরাজ্য প্রবাসীর পতিত জমিতে শুরু করেন ফুলকপি,বেগুন, লাউ, চাষ। এসব সবজির ফলন তাকে অভাব অনটনের সংগ্রাম থেকে পরিবার পরিজন নিয়ে কোন রকম খেয়ে না খেয়ে চলার সুযোগ করে দেয়।
এবার তিনি কৃষি বিভাগের পরামর্শে শুরু করেন এ উপজেলাবাসীর কাছে অপরিচিত সবজি ব্রকোলি চাষ। দেখতে ফুলকপির মতো হলেও এক ধরনের সবুজ সবজি ব্রকোলি খেতে খুব সুস্বাদু। প্রথমে অনেক ভয়ে ব্রকোলির চাষ করেন আশরাফুর। যদি বিক্রি করতে না পারেন তাহলে ক্ষতির সন্মখিন হবে। কিন্তু ব্রকোলি চাষ আশরাফুলের আশ পুরন করেছে। একজন সফল সবজি চাষী হিসেবে সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসক সাবিরুল ইসলামের হাত থেকে ফেব্রয়ারি মাসে পেয়েছেন সফল সবজিচাষীর পুরস্কার।


এক কেদার জমিতে ব্রকোলি চাষ করে তিনি বাম্পার ফলন পেয়েছেন। প্রথমে স্থানীয় বাজারে ক্রেতারা কিনতে না চাইলেও ক্রেতাদেরকে বুঝানোর পর এখন তিনি বিক্রি করে কুল পাচ্ছেন না। বাজারে নিয়ে গেলে নিমিষেই শেষ হয়ে যাচ্ছে তাঁর উৎপাদিন নতুন সবজি ব্রকোলি।
আশরাফুল জানান,জগন্নাথপুর ডিগ্রী কলেজে এইচএসসি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ না হতে পেয়ে তিনি বাবার সাথে কৃষি কাজে জড়িয়ে পড়েন। বাবার মৃত্যুর পর কৃষি কাজ করেই তাকে সংসারের হাল ধরতে হয়। এবার ব্রকোলি চাষ তাকে সবজি চাষে আরো বেশী উৎসাহি করে তুলেছে। তিনি আরো বড় পরিসরে নতুন নতুন সবজির আবাদ করে উপজেলাবাসীর কাছে পৌঁছে দিতে চান।
আশরাফুর ইসলাম আরো বলেন, উপজেলা কৃষি অফিস থেকে ডিসেম্বর মাসের প্রথম সপ্তাহে চারা ও সার সরবরাহ করা হলে আমি এক কেদার জমিকে ট্রাস্কর দিয়ে হালচাষ করে সমতল করে উপযোগী করি। পরে বীজ রোপন করি। ২১দিন পর চারা বের হলে আমি গোবর দিয়ে চারার যত্ন নেই। ক্রমশেই বাড়তে থাকে চারা। তিন মাস পর মার্চ মাসের প্রথম দিকে ব্রকোলি বিক্রির উপযোগী হয়ে উঠে। এক একটি ব্রকোলি এক থেকে দেড় কেজি ওজনের হয়।
প্রতিটি ব্রকোলি আমি ৩০ থেকে ৩৫ টাকায় বিক্রি করছি। তিনি জানান,এক কেদার জমিতে ব্রকোলি চাষ করতে তার ব্যয় হয়েছে ১০ হাজার টাকা। ব্রকোলি পেয়েছেন এক হাজার সাতশত।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার কে বলেন,আশরাফুল একজন পরিশ্রমি সবজিচাষী। কৃষি বিভাগ তাকে যেরকম পরামর্শ দিয়েছে সেভাবে কাজ করেই তিনি ব্রকোলি চাষে সফল হয়েছে। তিনি বলেন নতুন এ সবজিকে আমরা জগন্নাথপুরে পরিচিত করে তুলতে উপজেলা সদরসহ আশপাশের কয়েকটি হাটবাজারে প্রদর্শনীর ব্যবস্থা করি। তিনি বলেন, আমি নিজে উপস্থিত হয়ে ব্রকোলির গুনাগুন বিষয়ে বুঝানোর পর ক্রেতারা খুব আগ্রহভরে নিয়েছেন। তিনি বলেন,ব্রকোলি চাষ করে আশরাফুল সফল হয়েছেন। আগামীতে আরো ব্যাপকভাবে তিনি ব্রকোলির চাষ করবেন।


জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, সুনামগঞ্জের হাওর অঞ্চলে প্রকৃতির যে বিরূপ অবস্থা সেক্ষেত্রে বোরো আমনের পাশাপাশি সবজি চাষ প্রয়োজন। এ উপজেলায় অনেক পতিত জমি রয়েছে যেগুলোতে কোন ধরনের চাষাবাদ হয় না। এসব জমিতে সবজি চাষ করা গেলে কৃষকরা উপকৃত হবে। কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের মতে
ব্রোকলি ( Broccoli) একটি জনপ্রিয় সবজি ।এর ডাট এবং ফুল সাধারণত সিদ্ধ করে এবং বিভিন্ন ভাবে রান্না করে খাওয়া হয়ে থাকে। অনেকে কাঁচাও খেয়ে থাকেন।এটি এমন একটি সবজি যাতে ক্যালোরির পরিমাণ খুবই কম কিন্তু ব্রোকলি ভিটামিন, মিনারেল আর ফাইবার এ পরিপূর্ণ। প্রত্যেকদিন খাবারে ব্রোকলি রাখলে তা আপনার সুস্বাস্থ্যের কারণ হতে পারে। ব্রোকলিতে রয়েছে অধিক পরিমাণে পটাশিয়াম, যা স্নায়ুতন্ত্রের রক্ষণাবেক্ষণ করে একে সুস্থ আর রোগমুক্ত রাখে।
জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উদ্ধিদ সংরক্ষন কর্মকর্তা তপন চন্দ্র শীল জানান, আশরাফুলের ব্রকোলির গল্প কলকলিয়া ইউনিয়ন ছাড়িয়ে উপজেলাজুড়ে ছড়িয়ে পড়েছে। অনেকেই তার ব্রকোলির বাগান দেখতে যাচ্ছেন। আগামীতে আরো অনেক সবজি চাষে ব্রকোলিতে আগ্রহী হবেন। তিনি বলেন কৃষক পর্যায়ে জগন্নাথপুর উপজেলায় প্রথমবারেরমতো আশরাফুল ব্রকোলিতে আশা জাগানিয়া সাফল্য অর্জন করেছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24