সোমবার, ১৯ অগাস্ট ২০১৯, ১০:১৬ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে ফসলরক্ষা বাঁধের বিল না পেয়ে বিপাকে আছেন পিআইসিরা

স্টাফ রিপোর্টার
  • Update Time : সোমবার, ১ জুলাই, ২০১৯
  • ৯৪ Time View

স্টাফ রিপোর্টার ::

জগন্নাথপুর উপজেলার নলুয়ার হাওরের ফসলরক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির ছয় নং প্রকল্পের সভাপতি আহমদ আলী তিন লাখ টাকা ধার করে ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে বাঁধের কাজ শেষ করেন। ফসল উত্তোলনের পর পর চুড়ান্ত বিল পাওয়ার কথা থাকলেও এখনো চুড়ান্ত বিল না পাওয়ায় তিনি এখন পাওনাদারদের চাপে পালিয়ে বেড়াচ্ছেন। শুধু আহমদ আলীই নন তার মতো অনেক প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি ধার দেনা করে ফসলরক্ষা বাঁধের কাজ শেষ করে বিল না পেয়ে কষ্টে আছেন।
জেলার অন্যতম বৃহৎ হাওর নলুয়ার হাওরসহ জগন্নাথপুরে  এবার ৫০ টি প্রকল্প বাস্তবায়ন
কমিটির মাধ্যমে ফসলরক্ষা বাঁধের কাজ করা হয়।
ফসলরক্ষা বাঁধের সাথে সম্পৃক্ত কৃষক ও পানি উন্নয়ন বোর্ড সূত্র জানায়, ১৫
ডিসেম্বর থেকে কাজ শুরু করে ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে কাজ শেষ করার কথা। ২৫ ভাগ করে চার কিস্তিতে বিল পরিশোধ করার নিয়ম থাকলেও এবার ২০ ভাগ করে তিন কিস্তির টাকা পরিশোধ করা হয়। ফসল উত্তোলনের পর চূড়ান্ত বিল অবশিষ্ট ৪০ ভাগ পরিশোধ করার কথা। এপ্রিল মাসে ধান কাটা শতভাগ শেষ হলে এখনো চূড়ান্ত বিল প্রদান করা হয়নি।
নলুয়ার হাওরে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির আরেক সভাপতি জুয়েল মিয়া
জানান, বাঁধের কাজ যথাসময়ে শেষ করার জন্য আমাদের পিআইসিদের মানসিক চাপ দেয়া হয়েছিল। শতভাগ কাজ শেষ করার পর এখন আমাদের চূড়ান্ত বিল না দেয়া দুঃখজনক।
নলুয়ার হাওরের ভূরাখালি গ্রামের বাসিন্দা আবুল কয়েছ বলেন, নিয়ম অনুযায়ী
২৫ ভাগ করে করে চার কিস্তিতে বিল দেয়ার কথা। কিন্তু এবার তিন কিস্তিতে ২০ ভাগ করে ৬০ ভাগ বিল দেয়া হয়। অবশিষ্ট ৪০ ভাগ টাকা ধান কাটার পর দেয়ার কথা থাকলেও এখনো বিল না দেয়ায় আমরা দিশেহারা হয়ে পড়েছি।
চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের নারী ইউপি সদস্য শানস্তা ইসলাম
জানান, নির্ধারিত সময় থাকার পরও কাজ শেষ করার জন্য উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আমাকে যেভাবে অপদস্ত করেন তা কখনো ভুলার নয়। তিনি ৩০ জুনের মধ্যে আমাদেরকে  চুড়ান্ত বিল দেয়ার প্রতিশ্রুতি দিলেও এখন বিল দিতে টালবাহানা করা হচ্ছে। আমরা ধারদেনা করে কাজ শেষ করেছি। পাওনাদারদের জ্বালায় কষ্টে আছি।
চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদ ইউপি চেয়ারম্যান আরশ মিয়া জানান, পিআইসি প্রথার আগে ঠিকাদারি প্রথায় যখন বাঁধের কাজ হতো তখন লুটপাট হতো। ৩০ জুনের মধ্যে ঠিকাদাররা সব বিল তুলে নিয়ে যেতেন। এখন পিআইসিরা শতভাগ কাজ করেও বিল পান না। তিনি বলেন, হাওর এলাকার প্রান্তিক কৃষক ও জনপ্রতিনিধিদের অধিকাংশই দরিদ্র। হাওরে যাদের জমি আছে তারা নিজেদের প্রয়োজনে ভাল করে বাঁধের কাজ করেন।
হাওর বাঁচাও সুনামগঞ্জ বাঁচাও আন্দোলন সংগঠনের জগন্নাথপুর উপজেলা কমিটির আহ্বায়ক সিরাজুল ইসলাম জানান, হাওরে ঠিকাদারি প্রথার চেয়ে পিআইসি প্রথায় ভাল কাজ হয় তা সর্বজনস্বীকৃত। পিআইসিদের (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) কাছ থেকে যথাসময়ে কাজ আদায় করবেন আবার সময়মতো বিল পরিশোধ করবেন না তা ঠিক না।
পানি উন্নয়ন বোর্ড জগন্নাথপুর উপজেলার মাঠ কর্মকর্তা মোহাম্মদ হাসান গাজী
বলেন, চূড়ান্ত বিলের জন্য পিআইসির সভাপতিরা প্রতিদিন ধর্ণা দিচ্ছেন আমাদের কাছে। আমরা বিলের জন্য আবেদন করেছি। অনুমোদন না পাওয়ায় বিল দেয়া যাচ্ছে না।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধ নির্মাণ
তদারক কমিটির সভাপতি মাহফুজুল আলম মাসুম  বলেন, হাওরের ফসলরক্ষা বাঁধের চূড়ান্ত বিল প্রদানের জন্য জেলার মাসিক সভায় আলোচনা হয়েছে। মন্ত্রণালয় থেকে অর্থ ছাড় না হওয়ায় পিআইসিদের চূড়ান্ত বিল দেয়া যাচ্ছে না।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24