বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ০২:৫২ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:

জগন্নাথপুরে বিদ্যুৎ দেয় আওয়ামীলীগ সরকারে টাকা খায় বিএনপি নেতায় !

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২০ সেপ্টেম্বর, ২০১৬
  • ৪২ Time View

অমিত দেব:: প্রবাসী অধ্যুষিত জগন্নাথপুর উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নে পল্লী বিদ্যুতের সংযোগের নামে দুই বিএনপি নেতার বিরুদ্ধে লাখ লাখ টাকা হাতিয়ে নেয়ার অভিযোগ উঠেছে। এলাকাবাসী সূত্র জানায়, স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও সুনামগঞ্জ পল্লী বিদ্যুতের কর্মকর্তারা প্রকাশ্য জনসভায় পল্লী বিদ্যুতের সংযোগে কাউকে টাকা না দেয়ার ঘোষনা দিলেও উপজেলার পাইলগাঁও ইউনিয়নের পূর্ব কাতিয়া গ্রামে পল্লী বিদ্যুতের নতুন সংযোগের নামে এলাকাবাসীর কাছ থেকে কয়েক লাখ টাকা হাতিয়ে নিচ্ছে একটি চক্র। জানা গেছে, স্থানীয় সংসদ সদস্য অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান আগামী বছরের ডিসেম্বর মাসের মধ্যে জগন্নাথপুর উপজেলার সবকটি গ্রামে শতভাগ বিদ্যুতায়নের অংশ হিসেবে পূর্ব কাতিয়া ও অলৈইতলী গ্রামে বিদ্যুতায়নের বিষয়টি প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। এসুযোগকে কাজে লাগিয়ে পল্লী বিদ্যুতের দুর্নীতিবাজ কর্মকর্তা ও স্থানীয় দালাল মিলে এলাকাবাসীর কাছ থেকে বিদ্যুৎ সংযোগের নামে টাকা উত্তোলন করছেন। ইতিমধ্যে উত্তোলনকৃত টাকার একটি অংশ স্থানীয় ইউপি সদস্য বিএনপি নেতা দুরদ মিয়া ও বিএনপি নেতা হাফিজ খান নামের দুই ব্যক্তি পল্লী বিদ্যুৎ কর্মকর্তার কথা বলে নিয়েছেন বলে ভূক্তভোগীরা জানিয়েছেন।
পূর্ব কাতিয়া গ্রামের বাসিন্দা স্থানীয় ওয়ার্ড আওয়ামীলীগ সভাপতি মামুন মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, পল্লী বিদ্যুতের সংযোগে কোন টাকা লাগেনা বিষয়টি এলাকাবাসীকে বললেও এলাকাবাসী দ্রুত সংযোগ পেতে গ্রামের ফান্ড থেকে ১২ লাখ টাকা ইতিমধ্যে স্থানীয় মেম্বার বিএনপি নেতা দুরদ মিয়া ও হাফিজ খানকে দিয়েছেন। তিনি বলেন, বিদ্যুৎ দেয় আওয়ামীলীগ সরকারে আর টাকা খায় বিএনপি নেতায় বিষয়টি নিয়ে আমরা প্রতিবাদ করলেও বিদ্যুৎ সংযোগ পেতে আগ্রহী অধিকাংশ গ্রামবাসীর মতামতের কারণে কোন কাজ হয়নি।
সাবেক মেম্বার সাব্বির আহমদ বলেন, টাকা দেয়ার বিষয়ে আমি বিরোধীতা করেছি। কিন্তুু অধিকাংশ গ্রামবাসী বিদ্যুৎ পেতে টাকা দিতে রাজী হওয়ায় বর্তমান মেম্বারের মাধ্যমে লেনদেন হচ্ছে।
পূর্ব কাতিয়া গ্রামের মাবিল খান বলেন, আমাদের গ্রামে বিদ্যুৎ সংযোগের জন্য বর্তমান মেম্বার দুরদ দিয়া ও হাফিজ খান নামের দুই ব্যক্তি ২৭ লাখ টাকায় চুক্তিবদ্ধ হয়ে ইতিমধ্যে ১২ লাখ টাকা নিয়েছেন। কিন্তুু চুক্তির সময় অনুযায়ী এখনো বিদ্যুৎ পাইনি। একই গ্রামের ইউসুফ খান একই অভিযোগ করে বলেন, গ্রামের তহবিল থেকে টাকা দেয়া হয়েছে কবে বিদ্যুৎ পাব তা বুঝে উঠতে পারছি না।
অভিযুক্ত ইউপি সদস্য দুরদ মিয়া ও বিএনপি নেতা হাফিজ খান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে টাকা নেয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, আমি কোন টাকা নেইনি। আমার নামে অপপ্রচার চলছে।
পল্লী বিদ্যুৎ সুনামগঞ্জের জিএম সুহেল পারভেজ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমরা পল্লী বিদ্যুতের সংযোগের নামে কাউকে কোন টাকা না দিতে প্রকাশ্য সভা সমাবেশে ঘোষনা দেয়ার পরও যারা পল্লী বিদ্যুতের নাম করে টাকা উত্তোলন করছেন তাদেরকে পুলিশে দেয়া উচিৎ। তিনি বলেন, লিখিত অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24