সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৮:৫৪ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে নৌপথে বেপরোয়া ‘চাঁদাবাজি’,চাঁদা না দিলে শ্রমিকদের মারধর করে লুটে নেয় মালামাল মিরপুরের সেই প্রার্থী আপিলে ফিরলেন নির্বাচনী লড়াইয়ে মিরপুর ইউপি নির্বাচনে প্রার্থিতা প্রত্যাহার করলেন দুইজন, কাল প্রতিক বরাদ্দ পড়াশোনার পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের নামাজ শেখানো হয় যে বিদ্যালয়ে পানির নিচে প্রেমিকাকে বিয়ের প্রস্তাব দিতে গিয়ে মৃত্যু! সিলেটে চারদিনের রিমান্ডে পিযুষ যুক্তরাষ্ট্রে বন্দুকধারীর গুলিতে নিহত ২ জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা

জগন্নাথপুরে বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের নামে ফেসবুকে মিথ্যা অপপ্রচার

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ১৪ জুন, ২০১৫
  • ৬৭ Time View

আজিজুর রহমান আজিজ::জগন্নাথপুরে বিশিষ্ট ব্যক্তিবর্গের নামে সোস্যাল মিডিয়ার জনপ্রিয় যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে চলছে মিথ্যা অপপ্রচার ও ঘৃন্য অপতৎপরতা। ফলে সামজিক যোগাযোগের এই মাধ্যমটি নিয়ে জগন্নাথপুরবাসীর মধ্যে বিরূপ প্রতিক্রিয়ার সৃষ্টি হচ্ছে। সাম্প্রতিককালে একটি মহল জগন্নাথপুরের জনপ্রতিনিধি রাজনীতিবীদ,সাংবাদিক,শিক্ষকসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষের নামে ফেসবুকে ভূয়া আইডি খুলে মিথ্যা অপপ্রচার চালিয়ে জনমনে বিভ্রান্তির সৃষ্টি করছে। যা নিয়ে তৈরী হচ্ছে সামাজিক বিশৃঙ্খলা ও মামলা মোকদ্দমা। যোগাযোগের ইতিহাস বদলে দেয়ার শক্তিশালী মাধ্যম হিসেবে সারা দুনিয়ায় যখন ফেসবুক জনপ্রিয় হয়ে উঠছে। ঠিক তখনি জগন্নাথপুরে ফেসবুকে যুক্ত হচ্ছে ঘৃণ্যরুচির কিছু নরপিশাচ। তারা নিজেদের কথা চিন্তা না করে মিথ্যাচারের মাধ্যমে জগন্নাথপুরের বিশিষ্টজনদের নামে অপপ্রচার চালাচ্ছে। এ তালিকায় ইতিমধ্যে আক্রান্ত হয়েছেন আওয়ামীলীগ বিএনপি ও অঙ্গসহযোগী সংগঠনের একাধিক নেতা। উপজেলা পরিষদ, পৌর পরিষদের নির্বাচিত জনপ্রতিনিধি,সাংবাদিক,শিক্ষকসহ সুশীল সমাজের প্রতিনিধিবৃন্দ। অনুসন্ধানে জানা গেছে, বিকৃত রুচির কিছু মানুষ নামের নরপিশাচরা প্রতিনিয়ত ভালো মানুষরে চরত্রি হরণ করছে। বখাটের যেন এ নেশায় মত্ত হয়ে উঠেছে। প্রবাসী আত্বীয় স্বজনদের দয়া ও দানের পাওনা টাকা ও দামি মুঠোফোন ব্যবহার করে কোন কাজ না করে বেকার ঘুরাফেরা ও বখাটেপনা চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের কাছে আক্রান্ত হচ্ছে স্কুল কলেজ পড়–য়া মেয়েরা।ভূয়া নাম ব্যবহার করে ফেসবুক আইডি খুলে একের পর এক মিথ্যাচার চালিয়ে যাচ্ছে। লোকলজ্জার ভয়ে মেয়েরা মুখ না খুললেও প্রতিনিয়ত স্কুল ও কলেজ পড়–য়া মেয়েরা আক্রান্ত হচ্ছে বলে খবর মিলছে। ইতিমধ্যে রাজনৈতিক ও সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আকমল হোসেন,ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ মুক্তা,পৌরসভার মেয়র আক্তার হোসেন, প্যানেল মেয়র আবাব মিয়া, বিএনপি নেতা এডঃ জিয়াউর রহিম শাহীন.যুবলীগ নেতা শিক্ষক সাইফুল ইসলাম রিপন, উপজেলা ছাত্রলীগ সভাপতি মজিবুর রহমান মুজিব, ছাত্রলীগ নেতা সাফরোজ ইসলামসহ জগন্নাথপুরের বিশিষ্টজনদের নামে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হয়েছে । এদের মধ্যে বিএনপি নেতা জিয়াউর রহিম শাহীনকে ধরিয়ে দিন ঘোষনা দিয়ে তার ছবি সহ এলাকার চিহিৃত সন্ত্রাসী হেরোইন ব্যবসায়ীর গডফাদার হিসেবে উল্লেখ করে ফেসবুকে পোষ্ট করা হয়। ফেসবুকে মিথ্যাচারকারীদের ধারা আক্রান্ত হয়েছেন জগন্নাথপুরের দুই জনপ্রিয় সাংবাদিক জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমের সম্পাদক অমিত দেব বার্তা সম্পাদক আলী আহমদ। বিকৃত রুচির মানসিকতায় গড়া এসব বখাটেরা ফেসবুকে জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান,প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা সাবেক প্রধানমন্ত্রী খালেদা জিয়া প্রয়াত জাতীয় নেতা আব্দুস সামাদ আজাদ, আওয়ামীলীগ কেন্দ্রীয় নেতা অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নান ও জেলার প্রবীণ রাজনীতিবীদ সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগ সহ-সভাপতি সিদ্দিক আহমদের নামেও ঘৃন্য কমেন্ট করে ফেসবুকে অপপ্রচার করছে। ফেসবুকে অপপ্রচারের মাত্রাবৃদ্ধি পাওয়ায় বৃহস্পতিবার উপজেলা আইনশৃঙ্খলা কমিটির সভায় এনিয়ে ক্ষোভ প্রকাশ করে অবিলম্বে তথ্য প্রযুক্তির ব্যবহারের মাধ্যমে এদেরকে আইনের আওতায় আনার জোর দাবী জানানো হয়। পুলিশও ইতিমধ্যে মাঠে নেমেছে। জগন্নাথপুর থানায় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনে ইতিমধ্যে দুটি মামলা হয়েছে। একটি জাতীর জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে কটাক্ত করায় অপরটি সাংবাদিক অমিত দেব ও আলী আহমদ কে নিয়ে মিথ্যাচার করার অভিযোগে।
জগন্নাথপুরের ইকড়ছই সিনিয়র মাদ্রাসার শিক্ষক উপজেলা যুবলীগ নেতা সাইফুল ইসলাম রিপন জানান, বেশ কিছুদিন ধরে তাকে সামাজিকভাবে হেয় প্রতিপন্ন করতে ফেসবুকে মিথ্যা অপপ্রচার চালানো হচ্ছে। ভূয়া আইডির মাধ্যমে এসব করা হলেও এসব করছে তার রাজনৈতিক ও সামাজিক প্রতিপক্ষ বলে তিনি মনে করেন। তাঁর মতে জন্মপরিচয়হীন বখাটেরা যৌক্তিক সমালোচনা না করে মিথ্যা অপপ্রচার করছে। এদেরকে আইনের আওতায় আনার জোর দাবী জানান তিনি।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আকমল হোসেন বলেন, কিছু সংখ্যক বখাটে কুরুচিপূর্ণ মানুষের কারণে সামাজিক যোগাযোগের জনপ্রিয় মাধ্যমটি ক্ষতিগ্রস্থ করা হচ্ছে। যারা এসব করছেন তাদেরকে আইনের আওতায় আনতে হবে। এসব কারণে তিনি তাঁর ফেসবুক অ্যাকাউন্ট বন্ধ করে রেখেছেন বলে জানান।
ফেসবুকে মিথ্যা অপপ্রচার প্রসঙ্গে জগন্নাথপুরের বাসিন্দা সিলেট জজ কোর্ট থেকে সদ্য সুনামগঞ্জবারে যোগদানকারী আইনজীবি এডঃ জুয়েল মিয়া বলেন, মত প্রকাশের স্বাধীনতার নামে কারো সন্মানহানি করা হলে তাকে অবশ্যই আইনের আওতায় আসতে হবে। তথ্য যোগাযোগ প্রযুক্তি আইনের ৫৭ ধারা অভিযোগ একটি জামিনঅযোগ্য অপরাধ। এই ধারায় সর্বোচ্চ ১৪ বছর থেকে সর্বনি¤œ ৭ বছরের কারাদন্ডের বিধান রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, আইনটি সর্ম্পকে মানুষের ব্যাপক সচেনতনা সৃষ্টি না হওয়ায় অনেকেই না বুঝে এ অপরাধে অভিযুক্ত হন। এটি একটি কঠোর শাস্তিযোগ্য আইন।
জগন্নাথপুর থানার অফিসার ইনচার্জ আসাদুজ্জামান জানান, ভূয়া আইডি সনাক্ত করতে আমরা কাজ শুরু করেছি। প্রকৃত আইডির বিরুদ্ধে ইতিমধ্যে দুটি মামলা হয়েছে। পুলিশ ফেসবুকে মিথ্যা অপপ্রচারকারীদের বিরুদ্ধে কঠোর পদক্ষেপ নিতে কাজ করছে। তিনি বলেন, ভূয়া আইডি সনাক্ত করতে আমরা র‌্যাবের সহায়তা নিব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24