শনিবার, ১৭ অগাস্ট ২০১৯, ১১:০৫ অপরাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরের পাটলীতে জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে আলোচনা সভা জগন্নাথপুরে গাছ কাটার ঘটনায় যুবলীগ নেতার বিরুদ্ধে মামলা হচ্ছে জগন্নাথপুরে শিকল দিয়ে তিনদিন বেঁধে রাখার পর রিকশাচালকের মৃত্যু:হত্যা মামলা দায়ের ভারত বিনা যুদ্ধেই হারাচ্ছে জঙ্গি বিমান, নিহত হচ্ছেন পাইলট ২০০৫ সালের সিরিজ বোমা হামলার বিচার অবশ্যই হবে: পরিকল্পনামন্ত্রী সাপের ছোবলে শিশুর মৃত‌্যু বণাঢ্য আয়োজনে জনপ্রিয় দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের বর্ষপূর্তি উদযাপন দৈনিক সুনামগঞ্জের খবরের এবার বর্ষসেরা প্রতিনিধি হলেন আশিক মিয়া বঙ্গবন্ধুকে ‘ফ্রেন্ড অব দ্য ওয়ার্ল্ড, হিসেবে আখ্যা দিল জাতিসংঘ জগন্নাথপুরে তিন লাখ টাকা মূল্যের সরকারি গাছ ‘কেটে’ নিলেন যুবলীগ নেতা।

জগন্নাথপুরে বেকার ছয় শতাধিক অটোচালক

বিশেষ প্রতিনিধি::
  • Update Time : সোমবার, ২৯ জুলাই, ২০১৯
  • ১৮০ Time View

সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরে বন্যায় যোগাযোগ ব্যবস্থা বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে।
এতে করে জনদুর্ভোগের পাশাপাশি প্রায় ৬ শতাধিক সিএনজি চালিত অকোরিকশার
চালকরা বেকার হয়ে পড়েছেন। দেখা দিয়েছে  অর্থকষ্ট । কবে আবার সড়কে গাড়ি
নিয়ে ওঠবে পারবে না জানা নেই তাদের। ফলে দু;শ্চিতায় কাটছে শ্রমিকদের জীবন।
শ্রমিকদের সঙ্গে আলাপ করে জানা যায়, অব্যাহত বৃষ্টি আর উজান থেকে নেমে
আসা ঢলে জগন্নাথপুরে কয়েকটি সড়ক পানিতে তলিয়ে গেছে। সড়কগুলো হচ্ছে
জগন্নাথপুরের ভবেরবাজার-কাঠাঁলখাই-নয়াবন্দর সড়ক, জগন্নাথপুর-শিবগঞ্জ-কাতিয়া-বেগমপুর সড়কসহ অসংখ্যা গ্রামীণ রাস্তা-ঘাট।
এরমধ্যে গত দুই সপ্তাহ ধরে ভবেরবাজার-কাঠাঁলখাই-নয়াবন্দর সড়ক ও জগন্নাথপুর-শিবগঞ্জ-বেগমপুর সড়ক বন্যার পানিতে তলিয়ে যাওয়া যান চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে। যে কারণে লাখো মানুষের সীমাহীন দুর্ভোগ যেভাবে বেড়েছে। এমনি ওই দুই সড়কের ৬শতাধিক অটোরিকশার শ্রমিকরা বেচার হয়ে পড়েছেন।
ভবেববাজার-সৈয়দ-কাঠালখাই-নয়াবন্দর সড়কে দুইটি অটোরিকশা ষ্ট্যান্ড রয়েছে।
এরমধ্যে ভবেরবাজার-সৈয়দপুর স্ট্যান্ডে অটোরিকশা গাড়ি রয়েছে ৮০টি। এবং
সৈয়দপুর-গোয়ালাবাজার স্ট্যান্ডে আছে ২৫০টি অটোরিকশা। সড়কের বিভিন্ন স্থানে পানি থাকায় যানবাহন চলাচল বিঘ্নিত ঘটে।এজন্য এই সড়কের ৩৩০টি অকোরিকশার চালক গত ১৫দিন ধরে বেকার আছেন।
ভবের বাজার-সৈয়দপুর সড়কের অটোরকিশা চালক বাবুল মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে  বলেন, বন্যার পানিতে সড়ক তলিয়ে যাওয়ায় গত ১৫দিন ধরে গাড়ি চালাতে পারছি না।  গাড়ির আয়ের ওপরই পরিবারের ৮ সদস্যের জীবন-জীবিকা পরিচালিত হয়। ধার কর্য করে সংসার খুব কষ্ট করে সংসার চালাচ্ছেন বলে তিনি জানান।
ভবের বাজার-সৈয়দপুর স্ট্যান্ডের অটোরিকশার সভাপতি ইন্তাজ মিয়া জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, আমাদের ষ্ট্যান্ডে ৮০টি অকোরিকশা রয়েছেন। এসব গাড়ির চালকরা বর্তমানে বেকার হয়ে পড়েছেন। সংস্কারহীন সড়কটি বর্তমানে পানিতে তলিয়ে যাওয়ায় গাড়ি
চলাচল বন্ধ হয়ে গেছে।
সৈয়দপুর-নয়াবন্দর সড়কের অকোরিকশার স্ট্যান্ডের সভাপতি লুকেশ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এসড়ক
দিয়ে সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়ন, আশারকান্দি ইউনিয়ন ও পাইলগাঁও ইউনিয়নের একাংশের লাখো মানুষ উপজেলা সদরের সঙ্গে ও গোয়ালাবাজার হয়ে সিলেটসহ
বিভিন্ন স্থানে যোগাযোগ করে আসছেন প্রতিনিয়ত। দীর্ঘদিন ধরে ভাঙাচোরা
থাকায় এসড়কের বিভিন্ন স্থানে বন্যার পানিতে তলিয়ে যান চলাচল বন্ধ রয়েছে।
যায়। তিনি জানান, গত ১৫ দিন ধরে তাদের ষ্ট্যান্ডের ২৫০টি অটোরিকশার চালক
গাড়ি চালােেত পারছে  ন া। ফলে আর্থিক সংকটে ভোগচ্ছেন তাঁরা।
জগন্নাথপুর-শিবগঞ্জ-বেগমপুর সড়কের অটোরিকশা শ্রমিক সমিতির সভাপতি আব্দুল
মুকিত জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এ সড়কে ২৫০ অটোরিকশা প্রতিদিন উপজেলা সদরের সঙ্গে যোগাযোগ
করে আসছিল। এই সড়কটি দীর্ঘদিন ধরে বেহালদশা বিরাজ করছিল।এরমধ্যে চলমান বন্যায় সড়কের একাধিক স্থান তলিয়ে যায়। এ কারনে গত দুই সপ্তাহ ধরে গাড়ি চলাচল বন্ধ
থাকায় আমাদের ষ্ট্যান্ডের ২৫০ অকোরিকশার চালক মানবেতর জীবন যাপন করছেন।
আমাদের সমিতির পক্ষ থেকে ইতিমধ্যে কিছু চালককে আমরা আর্থিকভাবে সহযোগিতা
করেছি। গতকাল পর্যন্ত সড়কের পানি কমেনি।
জগন্নাথপুর উপজেলা প্রকৌশলী (এলজিইডি) গোলাম সারোয়ার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ইতিমধ্যে আমরা
ভবেরবাজার-কাঠাঁলখাই-নয়াবন্দর সড়ক ও জগন্নাথপুর-শিবগঞ্জ-বেগমপুর সড়কসহ
জগন্নাথপুরের বিভিন্ন সড়কের ক্ষতিগ্রস্থের তালিকা তৈরী করেছি। এ পর্যন্ত
১০০ কিলোমিটার সড়ক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এতে ১০কোটি টাকার ক্ষতি হয়েছে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24