শুক্রবার, ২৩ অগাস্ট ২০১৯, ০৫:৫৮ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে বেড়িবাঁধ নির্মাণের টাকা হরিলুটের অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১৫ মার্চ, ২০১৬
  • ৭৪ Time View

অমিত দেব/ আলী আহমদ :: জগন্নাথপুরে ফসল রক্ষা বেড়িবাঁধের বরাদ্দ হরিলুটের প্রচেষ্ঠা চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। বাঁধে নামমাত্র মাঠি ফেলে বাঁধ নির্মাণ করে শেষ দেখিয়ে বরাদ্দের অর্থ লুটপাটের মহাৎসবে মেতে উঠছেন সংশ্লিষ্ট দায়িত্বপ্রাপ্তরা এমন অভিযোগ পাওয়া গেছে।

সরেজমিন নলুয়ার হাওর ঘুরে কৃষকদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, এবার প্রতিটি বাঁধেই নামমাত্র মাঠি ফেলানো হয়েছে। পিআইসির সদস্যরা পূর্বের বাঁধে সামান্য মাঠি ফেলে দায়িত্ব শেষ করছেন। পাউবোর মাঠ কর্মকর্তারাও তাদের কাছ থেকে বাড়তি সুবিধা নিয়ে কোন কথা বলছেন না। বরং তাদের পক্ষ নিয়ে বলছেন এবার বরাদ্দ এসেছে শুধু ভাঙ্গা গর্ত বন্ধ করার। তাই হাওর রক্ষা বাঁধের কাজ অন্যবারের মতো পুরোপুরি করা যাচ্ছে না।

পানি উন্নয়ন বোর্ড সুনামগঞ্জ সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে জগন্নাথপুর উপজেলার ২২টি পিআইসির অনুকুলে ১ কোটি ২০ লাখ টাকা বরাদ্দ আসে অপরদিকে চারটি ঠিকাদারী গ্রুপের মাধ্যমে দেড় কোটি টাকার কাজ হওয়ার কথা। প্রতিটি পিআইসি কাজের বিবরণ উল্লেখ করে সাইনবোর্ড সাটাঁনোর কথা থাকলেও কোন কল্পেই নেই সাইনর্বোড। জেলার অন্যতম বৃহৎ হাওর নলুয়া হাওরসহ ছোটবড় সবকটি হাওরে এবার ২৫ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো আবাদ করা হয়। সঠিকভাবে বাঁধ নির্মাণ না হওয়ায় কৃষকরা অকাল বন্যার ভয়ে ফসল নিয়ে চিন্তিত।

কৃষক ও পাউবো সূত্র মতে, ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে কাজ শেষ করা কথা থাকলেও জগন্নাথপুরের সবকটি বাঁধে কাজেই শুরু করা যায়নি। বর্তমানে সময়সীমা বাড়ানো হলেও কাজ চলছে মন্থরগতিতে। পাউবোর প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতিদের দায়িত্বকালীন সময়েরর শেষ প্রকল্প হিসেবে প্রকল্প কমিটির চেয়ারম্যান ইউপি সদস্য ও পাউবো কর্মকর্তার মধ্যে গড়ে উঠেছে আর্থিক সর্ম্পক। ফলে বরাদ্দের অধিকাংশ টাকা লুটপাট হচ্ছে। একইভাবে ঠিকাদারদের সাথে আতাঁত করে পাউবোর কর্মককর্তারা বরাদ্দকৃত টাকা লুটপাটে ব্যস্ত। কৃষকরা ঠিকাদারদের কাজের বিষয়ে প্রতিবাদ করলে প্রভাব দেখিয়ে ঠিকাদারের লোকজন কাজ করছেন। অভিযোগ উঠেছে, বেতাউকা নিতাইখালের বাঁধে নিন্মমানের কাজ হয়েছে। এছাড়াও স্লুইস গেইটের উত্তর অংশ থেকে বেড়াখালি গাছ পযর্ন্ত নামমাত্র মাঠি ফেলা হয়েছে। এবিষয়ে প্রকল্প কমিটির চেয়ারম্যান ইউপি সদস্য লেবু মিয়া বলেন, আমার কাজ চলমান রয়েছে আরো মাটি কাঁটা হবে। এছাড়াও ভূরাখালি গুদারাঘাট থেকে সালিকা পর্যন্ত পুরোবাঁধের কাজ না করে ভাঙ্গা গর্ত বন্ধ করা হয়েছে। নলুয়ার হাওরে সবচেয়ে ঝুঁকিপূর্ন বাঁধ এটি। ওই বাঁধ ভেঙ্গে কয়েক বছর আগে পুরো নলুয়ার হাওর তলিয়ে যায়। এ বাঁধে নামরক্ষার কাজ হওয়ায় কৃষকরা চিন্তিত। এছাড়াও দাসনোওয়াগাঁও থেকে ভূরাখালি স্লুইস গেট পযন্ত মেশিন দিয়ে মাঠি কাঁটা হয়েছে। কৃষকদের অভিযোগ নলুয়ার হাওরে যে বাঁধ নির্মাণ হয়েছে সামান্য বৃষ্টি কিংবা অকাল বণ্যা দেখা দিলে এসব বাঁধ ঠিকবে না। নলুয়ার হাওর পাড়ের ভূরাখালি গ্রামের কৃষক দিলদার হোসেন বলেন, নলুয়ার হাওর রক্ষা বেড়িবাঁধ এবার নামমাত্র কাজ হয়েছে। পিআইসি,ঠিকাদার ও পাউবো মিলে এবার হাওর রক্ষা বাঁধের টাকা লুটপাট করতে মরিয়া হয়ে উঠেছেন। পিআইসির সভাপতি ইউপি সদস্যদের ৫ বছর মেয়াদ শেষ হওয়ায় তারা আবারও নির্বাচন করতে বাঁধের টাকা দিয়ে তহবিল তৈরী করতে ব্যস্ত।
দাসনোওয়াগাঁও গ্রামের কৃষক লিটন দাস বলেন, নলুয়ার হাওরের ফসল নিয়ে আমরা খুব চিন্তিত। কারণ এবছর যেভাবে বাঁধের কাজ হয়েছে তা অত্যন্ত নিন্মমানের।

দিরাই উপজেলার রাজনগর গ্রামের কৃষক, মোবারক হোসেন, মাসুক মিয়া, সেফি মিয়া বলেন, নলুয়ার হাওরে আমাদের তিনজনের ২১ কেদার জমি রয়েছে। আমাদের পরিবারগুলো সবসময় এ হাওরের ফসলের ওপর নির্ভরশীল। এভাবে বাঁধের কাজ হতে কখনো দেখিনি। তাই রাতের ঘুম হারাম হয়ে গেছে। ফসল ঘরে তুলতে না পারলে আমাদের জীবন সংগ্রাম অত্যন্ত দুরহৃ হয়ে পড়বে। বেতাউকা গ্রামের কৃষক জুয়েল মিয়া বলেন, বেতাউকা নিতাইখাল এলাকায় ঠিকাদারের নিন্মমানের কাজের প্রতিবাদ করেছিলাম তারা আরো বড় বড় কথা বলে প্রভাব বিস্তার করে খেয়াল খুশি মতো কাজ করছে। বিষয়টি পাউবোর কর্মকর্তাকে জানিয়ে কোন লাভ হয়নি। জগন্নাথপুর উপজেলা হাওর উন্নয়ণ সংগ্রাম পরিষদের সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকুর রহমান বলেন, জগন্নাথপুরের নলুয়ার হাওরে এবার নামমাত্র কাজ হয়েছে। শুধু গর্তগুলো ভরাট করেছে পিআইসি। আর ঠিকাদাররা মেশিন দিয়ে মাটি কেটে দায়িত্ব পালন করছে। এসব বাঁধ সামান্য বৃষ্টি কিংবা অকাল বন্যা হলে ঠিকবে না। যেকারণে কৃষকরা শঙ্কায় আছেন। চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া, বলেন, নলুয়ার হাওরের বাঁধ নির্মাণ কাজ চলছে খুব জোরেশোরে। যেসব বাঁধে সমস্যা রয়েছে সেগুলো পিআইসির মাধ্যমে সমাধানের চেষ্ঠা করে যাচ্ছি। জগন্নাথপুর উপজেলার হাওর রক্ষা বেড়িবাঁধ নির্মাণ কাজের তদারক কমিটির সদস্য শিক্ষক ফররুখ আহমদ বলেন, বেড়িবাঁধের কাজ সরেজমিনে ঘুরে দেখে সন্তুষ্ট হতে পারিনি। হাওর রক্ষা করতে হলে বাঁধের কাজ আরো ভালোভাবে করতে হবে বলে সংশ্লিষ্টদের বলেছি।
পানি উন্নয়ন বোর্ডে সুনামগঞ্জের মাঠ কর্মকর্তা (এসও) মোসোদ্দেক আহমদ ‘জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম’ কে বলেন, ‘‘জগন্নাথপুরে আমরা দিনরাত হাওররক্ষা বাঁধের কাজ শেষ করতে নিরলসভাবে চেষ্ঠা করছি। যেসব বাঁধে কাজ শেষ হয়নি সেগুলো সঠিকভাবে ৩১ মার্চের মধ্যে শেষ হবে’’।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24