বুধবার, ২১ অগাস্ট ২০১৯, ১০:৩৬ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে বোরো চাষাবাদে লড়ছেন কৃষকরা

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২১ জানুয়ারী, ২০১৮
  • ৩৪ Time View
Exif_JPEG_420

কামরুল ইসলাম মাহি::

হাওরাঞ্চলের কৃষকরা শীতে কাবু হয়ে শেষমেষ যুদ্ধের মত বোরো রোপনে মাঠে নেমেছেন জগন্নাথপুর উপজেলার কৃষকরা। তারা সকাল থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত বোরো জমিতে ব্যস্ত সময় পাড় করতে দেখা গেছে। তবে বোরোর ভরা মৌসুমে হাওরাঞ্চলে মৃদু শৈত্যপ্রবাহ ও ঘনকুয়াশা থাকায় কাজে ব্যাঘাত ঘটছে অনেক কৃষকদের।

কৃষকরা জানিয়েছেন, শীতের তীব্রতা বেশি হওয়ার কারণে জমিতে থাকা কাদা-পানিতে হালের গরু নামছে না। হাওরে গরু নিয়ে রওয়ানা দিলে গরু হাঁটছে না এমনকি কুয়াশার কারণে রাস্তাও দেখা যায় না।

কৃষক সমুজ আলী (৪৫) জানালেন, গত কয়েকদিন থেকে হাওর থেকে পানি না নামায় চাষাবাদে বিলম্বিত হয়েছে। এখন শীতের তীব্রতায় কাজ করতে সমস্যা হচ্ছে।

নলুয়ার হাওয়রের অপর আরেক কৃষক আব্দুর রউফ (৭৫) বলেন, গজবের লাখান শীত আইছে (এসেছে)। এর লাগি (এজন্য) রোদ ওঠার পর বন্দো (খেতে) যাই।

এদিকে অতিরিক্ত শীত পড়ায় হাওরে কৃষি শ্রমিকও মিলছে না। উপজেলার বিভিন্ন হাওরে গিয়ে দেখা গেছে অনেক কৃষক পরিবারের স্কুল পড়ুয়াদের নিয়ে হাওরে চাষাবাদে নেমেছেন।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা যায়, এ বছর উপজেলার সর্ববৃহৎ নলুয়ারসহ ছোট-বড় ১৭টি হাওরে প্রায় ২৫ হাজার হেক্টর জমিতে বোরো ফসলের চাষাবাদ করা হয়েছে।

সরেজমিনে উপজেলার হাওরাঞ্চলের বিভিন্ন এলাকা ঘুরে দেখা যায়, হাওরে কৃষকদের কেউ বীজ তলা থেকে চারা তুলছেন, অনেকে চারা রোপন করছেন। সূর্যের দেখা পেলে তারা চারা রোপনে নামছেন। আর আগাম তৈরি বীজতলা থেকে এবারও কৃষকরা শীতের শুরুতেই আগাম চারা রোপনের কাজ শুরু করেছেন। ক্ষেত প্রস্তুত করার লক্ষ্যে জমিতে সেচ ও হাল চাষের কাজেও ব্যস্ত দেখা গেছে কৃষকদের। যার ফলে কৃষকরা কালবৈশাখীর ভয়াল থাবা থেকে তাদের কষ্টার্জিত ফসল আগে ভাগে কেটে ঘরে তুলতে পারবেন বলে আশা করছেন।

কথা হয় হামালুতার হাওরের কৃষক রমা কান্ত’র (৬০) সাথে তিনি জানালেন, গত বছর হাওয়রডুবিতে তার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। শেষ সম্বলটুকু গরু বিক্রি করেছ তার এক ছেলে এক মেয়ের লেখাপড়ার খরচ চালিয়েছেন। পাননি সরকারী কোন সহায়তা। এবার ৫ একর জমি বোরো চাষ করেছেন। তবে প্রচন্ড শীতের কারণে নিয়মিত জমিতে নামতে পারেননা তিনি।

কৃষক রমা আরো বলেন, এবার তাড়াতাড়ি চারা রোপনের কাজ শুরু করেছি। কালবৈশাখীর ঝড় থেকে যদি কষ্টে ফসল রক্ষা হয় তবে কিছুটা ক্ষতি কাটিয়ে উটতে পারব।

জগন্নাথপুর উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা শওকত ওসমান মজুমদার বলেন, শৈত্যপ্রবাহ ও ঘনকুয়াশা থাকায় কৃষকদের কাজে কিছুটা ব্যাঘাত ঘটছে। তবে এখন কৃষকরা বোরো রোপনে ব্যস্ত সময় পার করছেন।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24