সোমবার, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০৩:১৩ অপরাহ্ন
শিরোনাম:

জগন্নাথপুরে বড়ফেচি বাজারের সেক্রেটারীর বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম,দুর্নীতি ও ব্যবসায়ীদের হয়রানী অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৫ জুলাই, ২০১৫
  • ২২ Time View

সরেজমিন-
স্টাফ রিপোর্টার::জগন্নাথপুর উপজেলার আশারকান্দি ইউনিয়নের বড়ফেচি বাজারের সেক্রেটারীর বিরুদ্ধে ব্যাপক অনিয়ম দুর্নীতি ও ব্যবসায়ীদের হয়রানীর অভিযোগ উঠেছে। বাজারের ব্যবসায়ীরা তার অত্যাচারে অতীষ্ট হয়ে উঠেছে। এনিয়ে সালিশ বৈঠকের আয়োজন করা হলেও বাজার সেক্রেটারী ও তার লোকজন সালিস বৈঠকে হামলা চালিয়ে ৫জনকে আহত করেছে।
এলাকাবাসী সূত্র জানায়, কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী বড়ফেচি বাজারটি নদী ভাঙ্গনে বিলীন হওয়ার পথে। ইতিমধ্যে শতাধিক দোকানঘর নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। যার প্রেক্ষিতে বাজারের পাশে সরকারী জায়গার ওপর নতুন বাজার নামে ব্যবসায়ীরা দোকান বসানোর কাজ শুরু করেন। আর এতে বাজার সেক্রেটারী স্থানীয় বিএনপি নেতা মোঃ ছালিক মিয়া ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে মোটা অংকের টাকা দাবী করেন। যারা তার কথামতো টাকা দিচ্ছেন তাদেরকে তিনি নতুন বাজারে ব্যবসা করার সুযোগ দিচ্ছেন। আর যারা টাকা দিতে অনীহা প্রকাশ করছেন তাদেরকে ব্যবসা করার সুযোগ না দিয়ে হয়রানী করছেন। তার অত্যাচার নির্যাতনের অতীষ্ঠ হয়ে ব্যবসায়ীরা বিষয়টি এলাকার গন্যমান্য ব্যক্তিবর্গকে অবহিত করেন। যার প্রেক্ষিতে গত ৬ জুলাই ফেচি বাজারে আশারকান্দি ইউনিয়ণ পরিষদের চেয়ারম্যান আইয়ুন খানের সভাপতিত্বে এক সালিস বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। সালিস বৈঠকে আলোচনাচলাকালে ছালিক মিয়ার ছেলে ছাত্রদল ক্যাডার শিবান মিয়া হামলা চালিয়ে ক্ষুর দিয়ে ৫জনকে রক্তাক্ত করে। পরে এলাকাবাসী আহতদেরকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রেরণ করেন। এঘটনায় আহত সেলিম মিয়া বাদী হয়ে জগন্নাথপুর থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। মামলা দায়েরের পর থেকে ছালিক মিয়ার লোকজন আরো বেপরুয়া হয়ে উঠেন। এলাকায় স্থানীয় প্রভাবকে কাজে লাগিয়ে অত্যাচার নির্যাতনের মাত্রা আরো বাড়িয়ে দেয়। তার অত্যাচারের বাজারের ১০/১৫জন ব্যবসায়ী ব্যবসা পরিচালনা করতে পারছেন না। সরেজমিনে বাজারে গেলে বাজারের ব্যবসায়ী দুরদ মিয়া,নুরুল আহমদ, হাবিল মিয়া, আলিফ খান,আলিম খান, মশাহিদ,ডাঃ শান্ত রায়,নিধির সূত্রধর, গৌরাঙ্গ দেব,জিতেন্দ্র চন্দ্র তালুকদার,বিপুল চন্দ্র রায়,নিকেশ সূত্রধর,জুনাব আলী,সামছুল,মামুন,জুয়েল,দ্বিপক দে,জিতু মিয়া,রসিক আদল, ফয়সল মিয়া,সুজাদ মিয়া নির্যাতনের চিত্র তুলে ধরে বলেন,বাজারের অবৈধ সেক্রেটারী ছালিক মিয়া বাজারের ব্যবসায়ীদের কাছ থেকে জোরপূর্বক টাকা আদায় করছেন। তার কথামতে না চললে তিনি ব্যবসায়ীদের সাথে দুব্যবহার করেন। তারা বিষয়টি প্রশাসনের সুদৃষ্টি কামনা করেন। বড়ফেচি বাজারের ব্যবসায়ী ফরহাদ মিয়া বলেন, ২০১১ সালে বাজারের ব্যবসায়ীরা ছালিক মিয়াকে দুই বছরের জন্য বাজার তদারক কমিটির সেক্রেটারী মনোনীত করেন। এরপর থেকে তিনি বাজারের ব্যবসায়ীদের ওপর অত্যাচার নির্যাতন শুরু করেন। তিনি নদীগর্ভে ভেঙ্গে যাওয়া সরকারী মাছ বাজারে ফিস সেটের মালামাল নিজ বাড়িতে নিয়ে যান। আরেক ব্যবসায়ী মঈন উদ্দিন বলেন,বাজারের নামে বরাদ্দকৃত সরকারী টিউবওয়েল তিনি তার বাড়ীতে নিয়ে বসিয়েছেন। আমরা এসব ঘটনার প্রতিবাদ করলে তিনি আমাদের সাথে দুব্যবহার করেন।
বাজারের ব্যবসায়ী সেলিম মিয়া বলেন, ছালিক মিয়ার নিকট আমি দুই কেদার জমি বন্ধক নিয়ে টাকা নিয়েছিলাম। তিনি এখন প্রভাব কাটিয়ে আমার ১০ কেদার জমি জোর পূর্বক দখল করে নিয়েছেন।
অভিযোগ প্রসঙ্গে ছালিক মিয়ার সাথে যোগাযোগ করা হলে তার ছেলে শিবান মিয়া বলেন, আমার পিতার বিরুদ্ধে যেসব অভিযোগ উঠেছে তা সঠিক নয়।
আশারকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব খান বলেন, ছালিক মিয়ার অত্যাচার নির্যাতনের ব্যবসায়ীরা অতীষ্ঠ এমন অভিযোগে আমরা সালিস ব্ঠৈকে গিয়েছিলাম। ওই বৈঠক চলাকালে তার ছেলে ব্যবসায়ীদের ওপর অমানবিক হামলা করে। তার বিরুদ্ধে আইনানুগ পদক্ষেপ নিতে প্রশাসনকে বলেছি।
জগন্নাথপুর থানার উপ-পরির্দশক মুজিবুর রহমান বলেন, বড়ফেচি বাজারের মামলাটি পুলিশ তদন্ত করছে। ইতিমধ্যে কয়েকজন আসামী জামিনে এসেছে। ডাক্তারী রিপোর্ট পাওয়ার পর চুড়ান্ত প্রতিবেদন্ দেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24