বুধবার, ১৭ জুলাই ২০১৯, ০৬:২৯ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে সড়কজুড়ে ধানের স্তুপ:

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৫ মে, ২০১৯
  • ১৬০ Time View

কামরুল ইসলাম মাহি ::

সুনামগঞ্জ জেলার পাগলা-জগন্নাথপুর আঞ্চলিক মহাসড়ক। এই সড়ক দিয়ে আগে গেলে দেখা মিলত শুধু ধুলাবালির। তবে এখন সড়কে দেখা মিলবে ধানের স্তুপ। একদিকে যানবাহন অন্যদিকে কৃষকের ধানমাড়াই ও খড় শুকনোর কাজ। পুরো সড়ক জুড়েই এখন ধান মাড়াইয়ের উৎসব। বর্তমানে সড়কটিই এখন ধানের নগরে পরিণত হয়েছে।

জেলা এই অঞ্চলটিতে ঘুরে দেখা যায় হাওরের ধানকাটা প্রায় শেষ হয়ে গেছে। বর্তমানে জমির ধান কেটে মাড়াই দিচ্ছেন। কাকডাকা ভোরে শুরু হয়ে সারাদিন চলে কৃষকের এই কাজ। ধান মাড়াইয়ের এই উৎসবে যোগ দিতে বাদ পড়ছেন না শিক্ষার্থীরা।

সুনামগঞ্জ জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্র জানায়, চলতি বোরো মওসুমে সুনামগঞ্জের ১১ টি উপজেলায় ২ লাখ ২৪ হাজার ৪৪০ হেক্টর জমিতে বোরো ধানের আবাদ হয়েছে। ধানের উৎপাদন লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে, ৯ লাখ ৭৫ হাজার মেট্রিক টন।

পাগলা-জগন্নাথপুর আঞ্চলিক মহাসড়কের খাশিলা নামক স্থানে ধান শুকাচ্ছেন লাদেন মিয়া নামের এক নিম্ন আয়ের কৃষক। তাঁর বাড়ির উঠোনে পর্যন্ত খালি জায়গা নেই। সেখানে জায়গা না হওয়ায় তিনি সড়কে এসে ধান শুকাচ্ছেন।

জগন্নাথপুর টোয়েন্টিফোর ডটকমকে তিনি জানালেন, এবার তাঁর ফসলি জমিতে ধান ভালো হয়েছে। এখন ধান শুকানোর কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। গত সপ্তাহে বৃষ্টিপাতের কারণে তিনি কিছুটা ধান শুকানো নিয়ে বিপাকে পড়েছিলেন।

মঙ্গলবার সকাল ১০টা থেকে বিকেল ৩টা পর্যন্ত এই সড়ক গুলে দেখা গেেছ খুব সতর্কতার সাথে সড়কে লাদেন মিয়াসহ অন্যানরা কষ্টের ফসল ধান মাড়াই, শুকানো ও খড় শুকানোর কাজ করছেন।

এদিকে যান চলাচলে কিছুটা দুর্ভোগ পোহাতে হলেও হাসি মুখে তা মেনে নিচ্ছেন যানবাহনের চালকেরা। এনাম আহমদ নামের এক চালক জগন্নাথপুর টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘আমাদের সাময়ীক কিছু সমস্যা হলেও মেনে নিচ্ছি। কারণ আমরাও কৃষক পরিবারের সন্তান। যখন রাস্তায় পাকা ধান দেখি মনে আনন্দ লাগে।’

কৃষকেরাও নিজের বাড়ির উঠান বা চাতালের মতো করে ব্যবহার করছেন ব্যস্ততম এই সড়কগুলো।

জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মাহফুজুল আলম মাসুম বলেন, ‘হাওরে ধানকাটা প্রায় শেষ। এখন কৃষকরা ধান শুকাতে কাজ করছেন।’

এব্যাপারে জেলা কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তরের উপপরিচালক বশির আহমদ সরকার জগন্নাথপুর টোয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, ‘সুনামগঞ্জ কৃষি নির্ভর একটি অঞ্চল। এখানকার মানুষ কৃষকদের প্রতি সবসময়ই আন্তরিক। যাদের বাড়ির উঠোনে পর্যাপ্ত জায়গা খালি নেই তারাই সড়কে ধান শুকান। এতে চালকদের সাময়িক কষ্ট হলেও তারা তা হাসিমুখে মেনে নিচ্ছেন।’

 

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24