বৃহস্পতিবার, ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ০১:০৯ অপরাহ্ন

জগন্নাথপুরে হাইকোর্টের নির্দেশনাও মানছেন না ঠিকাদার- সড়কের কাজ না হওয়ায় লাখো মানুষ দুর্ভোগে

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৪ জুন, ২০১৭
  • ৬৬ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি :: ৩ বছরেও গুরুত্বপূর্ণ একটি সড়কের কাজ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান শেষ না করায় ভোগান্তি পোহাতে হচ্ছে জগন্নাথপুর উপজেলার কমপক্ষে ৩০ টি গ্রামের লক্ষাধিক মানুষকে। মহামান্য হাইকোর্টের দ্বিতীয় দফায় দেওয়া নির্দেশনাও মানছে না ঐ ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠানটি। প্রায় ৪ কোটি টাকার এই প্রকল্প এখন এলাকাবাসীর গলার কাঁটা। স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের নির্বাহী প্রকৌশলী সিদ্দিকুর রহমান বলেছেন,‘কাজ শেষ করার মেয়াদ অনেক আগেই শেষ হয়েছে, মহামান্য হাইকোর্ট ঠিকাদারকে পহেলা মার্চ থেকে ৩০ মে পর্যন্ত দ্বিতীয় দফায় সময় বাড়িয়ে দেবার পরও লক্ষাধিক মানুষের কাঙ্খিত এই সড়কের কাজ হচ্ছে না। আমরাও আদালতের শরণাপন্ন হবো।’
এলজিইডি সূত্র জানায়, জগন্নাথপুর উপজেলার বড় দুটি ইউনিয়নের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক ভবেরবাজার-নয়াবন্দর ও গোয়ালাবাজার সড়ক। এই সড়ক দিয়ে কেবল এই দুই ইউনিয়নের মানুষ নয় জগন্নাথপুর পৌরসভা এলাকাসহ জগন্নাথপুরের অন্যান্য এলাকার মানুষও যাতায়াত করেন। এই অঞ্চলের মানুষের জন্য বিভাগীয় শহর সিলেট বা রাজধানী শহর ঢাকায় আসতে এই সড়কটিই ভরসা। ২০১৫ সালের মে মাসে প্রায় ১১ কিলোমিটারের এই সড়ক নির্মাণের জন্য ৪ কোটি ২০ লাখ ৪৪ হাজার ৫৪৩ টাকার দরপত্র আহ্বান করা হয় । কাজ পান সুনামগঞ্জের ঠিকাদার সজিব রঞ্জন দাস। ঠিকাদারের সঙ্গে চুক্তি হয় ঐ মাসেরই ১৩ মে। সাইট বুঝিয়ে দেওয়া হয় ১৪ জুন। কাজ শুরু হয় ২৫ জুন। ঠিকাদারের পক্ষে এখানে কাজ করান উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য সৈয়দ মাসুম আহমদ। কাজ শেষ করার তারিখ ছিল ২০১৬ সালের ১৩ জুন। অথচ ১৩ জুন পর্যন্ত সাব ঠিকাদার মাসুম কাজ করেন ৩৫ শতাংশ।
তাও আবার নিয়ম অনুযায়ী ৫০০ মিটার ভেঙে ভেঙে কাজ করার কথা, অর্থাৎ ৫০০ মিটার ভেঙ্গে কাজ করার পর আও ৫০০
মিটার ভাঙ্গা যাবে। কিন্তু ঠিকাদার মেশিনের টাকা বাঁচানোর জন্য অফিসকে না জানিয়ে পুরো সড়ক একসঙ্গে ভেঙে রেখেছেন।
এই অবস্থায় এই সড়কে চলাচলকারী দুই ইউনিয়নের দাওড়াই, পাঠকুড়া, জামালপুর, তিলক, ষাড়পাড়া, মিলি, কালাম্ভরপুর, শুক্লাম্ভরপুরসহ কমপক্ষে ৪০ টি গ্রামের মানুষ মহাবিপদে পড়েছেন। না চলছে যানবাহন, না পায়ে হেঁটে চলাচল করতে পারছেন তারা।
সৈয়দপুর-শাহারপাড়া ইউনিয়নের সনাতনপুরের বাসিন্দা অ্যাড. জুয়েল মিয়া বলেন,‘এই সড়কটি’র বরাদ্দ আমাদের স্থানীয় সংসদ সদস্য, অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এম এ মান্নানের প্রচেষ্টায় হয়েছিল। লাখো মানুষের যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নয়নের লক্ষে এটি করা। যারা কাজ নিয়ে কাজ করতে টালবাহনা করছে তারা আবার নিজেদের সরকার দলেরও পরিচয় দেয়। এরা আসলে নৌকার ভাল চায় না। এই সড়কের কাজ না হলে, কেবল মানুষের দুর্ভোগ নয়। আগামী নির্বাচনে এই এলাকায় নৌকাও দুর্ভোগে পড়বে। তারা হয়তো এটিই চায়।’
জগন্নাথপুরের কাতিয়া’র বাসিন্দা অ্যাড. শফিকুল আলম বলেন,‘মাননীয় অর্থ ও পরিকল্পনা প্রতিমন্ত্রী এমএ মান্নানের প্রচেষ্টায় এই সড়কে প্রায় ৪ কোটি টাকা বরাদ্দ হয়েছে। তিনি সড়কের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করেছেন। এখন ঠিকাদারের টালবাহনায় মানুষ কষ্ট পাবে, এটা হতে পারে না। ঠিকাদার আদালত থেকে ৩০ মে পর্যন্ত সময় নিয়েছিলেন। ঐ সময়ের মধ্যে কাজ না করে তিনি আদালতের আদেশও মানলেন না। দুর্ভোগের শিকার মানুষ এখন যাকাতের টাকা দিয়ে সড়কের কাজ করিয়ে পায়ে হেঁটে চলাচল উপযোগি করছে।’
এলজিইডি’র এই প্রকল্পের দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান বলেন,‘আমরা চার বার তাগিদপত্র দিয়ে ৩৫ শতাংশের স্থলে কাজ ৪২ শতাংশ করিয়েছিলাম। পরে গত বছরের ২০ অক্টোবর আমরা চুক্তি বাতিলের চিঠি দিয়েছি ঠিকাদারকে। পরে ঠিকাদার ২০১৬ সালের ১৭ নভেম্বর মহামান্য হাইকোর্টের শরণাপন্ন হয়ে কাজের মেয়াদ বাড়ানোর রিট পিটিশন (নম্বর ১৪০৬৬/২০১৬) দায়ের করেন। আদালত ঐ আবেদনের প্রেক্ষিতে ১৭ নভেম্বর ২০১৬ থেকে ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৭ পর্যন্ত সময় বাড়িয়ে দেন। ঐ সময় পর্যন্ত তিনি সড়কের ৫.৭ কিলোমিটার অংশের কাজ করান। অর্থাৎ মোট কাজের ৫৬ শতাংশ কাজ শেষ করেন। এই কাজের বিপরীতে তিনি মোট বরাদ্দের ৫২ শতাংশ বিল এক কোটি ৯৭ লাখ ৯২ হাজার ৫৪২ টাকা গ্রহণ করেন। এরপর আবার মহামান্য হাইকোর্টে সময় বাড়ানোর রীট পিটিশন (নম্বর ১৪০৬৬/২০১৬) দায়ের করেন। আদালত এই পর্যায়ে পহেলা মার্চ২০১৭ থেকে ৩০ মে ২০১৭ পর্যন্ত ৩ মাস সময় বাড়িয়ে দেন।
এলজিইডি’র সহকারী প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান বলেছেন,‘এই সময়ে একদিনের জন্যও ঠিকাদারের লোকজন সাইটে যায়নি।’
এ বিষয়ে ঠিকাদারের পক্ষে কাজ করার দায়িত্বে থাকা (সাব কন্ট্রাকটর) সৈয়ম মাসুম আহমদ বলেন,‘দরপত্রের সঙ্গে কাজের মিল নেই। কাজ শুরু করার সময় বন্যায় সড়কের ক্ষতি হয়েছে। সড়কের ধরণ পরিবর্তন হয়েছে। বড় বড় গর্ত হয়েছে। এসব বিষয়ের প্রমাণপত্র অফিসেও দেওয়া আছে। আমি যেটুকু কাজ করেছি, এই কাজের বিল না দিয়ে কাজ বাতিল করার চিঠি দেওয়ায় আমি মহামান্য হাইকোর্টের শরণাপন্ন হয়েছি। আদালতের দেওয়া সময়ে আমি কাজও করিয়েছি। এরপর বৃষ্টি হওয়ায় কাজ করাতে পারিনি। এছাড়া আমার বিল পেতেও হয়রানির শিকার হতে হয়েছে।’
এলজিইডি’র সহকারী প্রকৌশলী হাবিবুর রহমান বলেন,‘এই কাজের ঠিকাদার যত তাড়াতাড়ি বিল পেয়েছেন, সাধারণত, এভাবে কারো বিল হয় না। কাজের সাইট বুঝিয়ে দেবার পর সড়কের ধরণ পরিবর্তন হলে, এটি ঠিকাদারেরই নির্মাণ করার দায়িত্ব। তিনি এই বিষয়ে এলজিইডি’র নয়, ইন্সুরেন্স কোম্পানীর দ্বারস্ত হতে পারেন।’
এলজিইডি’র নির্বাহী প্রকৌশলী সিদ্দিকুর রহমান বলেন,‘ঐ সড়কটি খুবই জরুরি, ঠিকাদার মহামান্য হাইকোর্টের কাছ থেকে সময় নিয়েও কাজ করাননি। আমরা মহামান্য আদালতকে বিষয়টি অবহিত করে করণিয় বিষয়ে নির্দেশনা চাইবো।’

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24