রবিবার, ২২ সেপ্টেম্বর ২০১৯, ০১:৪৩ পূর্বাহ্ন
শিরোনাম:
জগন্নাথপুরে ৩৯টি মন্ডপে দুর্গাপূজার প্রস্তুতি,চলছে প্রতিমা তৈরীর কাজ জগন্নাথপুর মডেল সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের কমিটির বিরুদ্ধে অপপ্রচারে প্রতিবাদ সভা অনুষ্ঠিত জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা জগন্নাথপুরে ৬ মাসেও বকেয়া টাকা মিলেনি, ঋণের চাপে দিশেহারা পিআইসিরা বেড়াতে গিয়ে বাড়ি ফেরার পথে মোটরসাইকেল দুর্ঘটনায় প্রাণ গেল জগন্নাথপুরের এক যুবকের মাথায় ৪ ইঞ্চি লম্বা শিং এই বৃদ্ধের! চাঁদাবাজির অভিযোগ দুই যুবলীগ নেতা গ্রেফতার দিরাইয়ে বিদেশীসহ গ্রেফতার-২ জগন্নাথপুর উপজেলা ফুটবল এসোসিয়েশনের নতুন কমিটি গঠন সংর্ঘষে নিহত ২,দ. সুনামগঞ্জর হরিপুর এখন পুরুষ শূণ্য

জগন্নাথপুরে হাওরগুলো অরক্ষিত, বরাদ্দের অর্থ লুটপাটের অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : শনিবার, ১১ মার্চ, ২০১৭
  • ৫৩ Time View

আলী আহমদ : জগন্নাথপুরের সব ক’টি হাওর অরক্ষিত হয়ে পড়েছে। নির্ধারিত সময় পেরিয়ে গেলেওএখনও শেষ হয়নি বাঁধের নির্মান কাজ। এমনিতইে বাঁধ নিয়ে শংকিত কৃষকরা এর মধ্যে শুক্রবার রাতে এ উপজেলা ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া বছরের প্রথম কাল বৈশাখী ঝড় হওয়ায় ফসল নিয়ে দুঃশ্চিন্তার যেন শেষ নেই কৃষকদের। একদিকে বাঁধের কাজ অসমাপ্ত থাকায় অপর দিকে প্রাকৃতিক দূর্যোগের আশংকায় কৃষদের চোখের ঘুম হারাম হয়ে গেছে।
গতকাল শুক্রবার সরজমিন নলুয়ার হাওর ঘুরে দেখা যায়, শালিকার বাঁধে এখনো কোন মাঠি পড়েনি। এছাড়া হালেয়ার পতিত, রাজনগরের পতিত, ডুমাখালি বাধেঁর পূর্বে মংলা বাড়ির সামনের ভাঙন ও ভুরাখালি রাখাল গাছের নিকটবর্তী স্থানে মাঠির কোন কাজ হয়নি। এর মধ্যে ২০১০ সালে শালিকার বাধঁ ভেঙ্গে পুরো নলুয়ার হাওরের পাকা ফসল পানিতে তলিয়ে যায়। নলুয়ার হাওরের ভুরাখালির রাখাল গাছ, ডুমাখালি, আমআমি বাধেঁ মোটামুটি কাজ ভাল হয়েছে। তবে এখনো বাধঁগুলোর পুরো কাজ শেষ হয়নি। কৃষকদের অভিযোগ বাধঁ নির্মানে অনিয়ম দূনীতির মহোৎসব চলছে।
শালিকার বাঁধ পরির্দশনকালে কথা হয় হাওরপাড়ের কৃষক নেতা সিদ্দিকুর রহমানের সঙ্গে। তিনি জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন,, শালিকার বাঁধ নলুয়ার হাওরের ফসলরক্ষার জন্য সব চেয়ে ঝুকিপূর্ন। এ বাঁধ ভেঙ্গে বিগত বছরে পুরো হাওরের ফসল পানিতে নিমজ্জিত হয়। আমরা খুবই শংকিত এই বাঁধসহ হাওরের অধিকাংশ বাঁধে এখনো মাঠি পড়েনি। এ সব স্থানে কোন কাজ না করে পানি উন্নয়ন বোর্ডের অসাধু ব্যক্তিরা বরাদ্দের অর্থ লুটপাটের চেষ্টা করছেন। তিনি হাওরের ফসল বাচাঁতে দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য দাবী জানান সংশ্লিষ্ট কৃর্তপক্ষের নিকট।
প্রতিটি পিআইসি (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) কাজের বিবরণ উল্লেখ করে সাইনবোর্ড সাটাঁনোর কথা থাকলেও সরজমিনে কোন প্রকল্পেই সাইনর্বোড চোখে পড়েনি।
স্থানীয কৃষি অফিস ও কৃষকরা জানান, এ বছর এ উপজেলার সর্ব বৃহৎ নলুয়ার, মইয়া, পিংলাসহ ছোট বড় ১৫টি হাওরে প্রায় ২৫ হাজার হেক্টর জমিনে বোরো ফসলের চাষাবাদ করা হয়েছে। বছরের ১ লা জানুয়ারী হইতে ২৮ ফেব্রুয়ারীর মধ্যে হাওরের কাজ শেষ হওয়ার কথা থাকলেও এখন পযর্ন্ত হাওরের কাজ শেষ হয়নি।স্থানী কৃষকরা জানিয়েছেন নলুয়া হাওরের ফিল্টার-২ এর কুশিয়ারা নদীর তীরবর্তী রানীগঞ্জ- বাগময়না- হলিকোনা সড়কের নলুয়া হাওরের ৪টি পিআইসির কাজ এখনও হয়নি। এর মধ্যে একটি সিআইসিতে সামান্য মাঠির কাজ হলেও অপর তিনটি পিআইসিতে কোন মাঠি পড়েনি। পিআইসির সদস্যরা দায়সারভাবে কাজ করলেও ঠিকাদারদের চেহারা এ পর্যন্ত দেখাই যাচ্ছে না । কৃষকরা দাবী করেছেন ৩০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে ।
নলুয়ার হাওর পাড়ের ভূরাখালি গ্রামের কৃষক আব্দুস সবুর বলেন, আর কয়েকদিন পর ফসল ঘরে তোলার ধুম পড়বে। কিন্তুু হাওরের বাঁধগুলোর কাজ এখনও শেষ না হওয়ায় আমরা দুঃশ্চিতায় আছি। গত বছর শিলা বৃষ্টির কারনে ১২ কেদার জমির সর্ম্পূন ফসল নষ্ট হয়ে যায়। অনেক কষ্ট করে সংসার চালাতে হচ্ছে। এ বছর যদি ফসল গোলায় না তুলতে পারি তাহলে না খেয়েই হয়ত মরতে হবে। একই গ্রামের আরেক কৃষক এনামুল হক বলেন, তিনিও গত বছর ফসল ঘরে তোলতে পারেননি। জমিনের সব পাকা ফসল শিলা বৃষ্টিতে বিনষ্ট হয়ে যায়। এ বছর তিনি ২০ কেদারা জমিনে আবাদ করেছেন। কিন্তু বেড়িবাঁধের কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় শংকিত পড়ে পড়েছেন তিনি। তাদের দাবী দ্রুত বাঁধগুলো নির্মান কাজ শেষ করে হাওরের ফসল রক্ষায় এগিয়ে আসার জন্য সংশ্লিষ্টদের প্রতি আহবান জানান।
এ ব্যাপারে জগন্নাথপুরের ইউএনও মোহাম্মদ মাসুম বিল্লাহ সঙ্গে যোগাযোগ করা হলে তিনি বেরিবাঁধের কাজ সঠিকভাবে না হওয়ায় অসন্তোষ প্রকাশ করে জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, হাওরের বেড়িবাঁধের কাজ মন্ত্ররগতিতে চলছে। দ্রুত কাজ শেষ করার জন্য সংশ্লিষ্টদের বলা হয়েছে।
পানি উন্নয়ন বোর্ড সুনামগঞ্জ সূত্র জানায়, চলতি মৌসুমে জগন্নাথপুর উপজেলার ৩৩টি পিআইসির (প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি) অনুকুলে ৩ কোটি ৮০ লাখ টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। অপরদিকে দুই জন ঠিকাদারের মাধ্যমে তিন কোটি টাকা বরাদ্দ দেয়া হয়।
পানি উন্নয়ন বোর্ড জগন্নাথপুর অঞ্চলের মাঠ কর্মকর্তা (এসও) মোসোদ্দেক আহমদ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে বলেন, অনিয়ম দূর্নীতির অভিযোগ অস্বীকার করে বলেন, এবার বরাদ্দ অপ্রতুল থাকায় কাজ শেষ করতে দেরি হচ্ছে। তিনি হাওরের ৭০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে বলে দাবী করে বলেন, অপর ৩০ ভাল কাজ ১৫ দিনের মধ্যে শেষ করা হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24