বৃহস্পতিবার, ২২ অগাস্ট ২০১৯, ১২:০১ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরে ১০ মাসের অন্তস্বত্ত্বা স্ত্রীর সাথে স্বামীর এ কেমন অমাবনিক আচরণ

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ২২ মার্চ, ২০১৫
  • ৫৩ Time View

স্টাফ রিপোর্টার- দশমাসের অন্তসত্ত্বা স্ত্রীকে মিথ্যা অপবাদ দিয়ে ঘর থেকে বের করে দিয়েছে তার স্বামী। এই অমানবিক ঘটনাটি ঘটেছে সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার রানীগঞ্জ ইউনিয়নের বাঘময়না গ্রামে। দরিদ্র পরিবারের পাঁচ সন্তানের জননী ওই নারী সমাজপতিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরেও পাননি কোন সুবিচার আশ্রয়হীন হয়ে রবিবার রাতে জগন্নাথপুর থানায় এলে পুলিশ তাকে হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন।
পুলিশ ও এলাকাবাসী সূত্র জানায়, বাঘময়না গ্রামের আউয়াল মিয়া এর স্ত্রী রুহেনা বেগম(৩৫) দীর্ঘদিন ধরে অত্যাচার নির্যাতন সহ্য করে স্বামীর সংসার করছিলেন। বর্তমানে তিনি আবারও সন্তানসম্ভাবা হলে তার স্বামী আউয়াল মিয়া মিথ্যা অপবাদ দিয়ে তার সাথে দুব্যবহার শুরু করে। গত মঙ্গলবার আউয়াল মিয়া তাকে জোর করে মারধর করে ঘর থেকে বের করে দেন। এরপর থেকে প্রতিবেশীদের বাড়িতে থেকে গ্রামের সমাজপতিদের দ্বারে দ্বারে ঘুরে ন্যায় বিচার প্রার্থনা করলে এনিয়ে গ্রামে সালিস বৈঠক বসে। সালিস বৈঠকের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী তাকে ঘরে আশ্রয় দেয়ার কথা থাকলেও তার স্বামী তা না মেনে তাকে মারধর করে। নিরুপায় হয়ে তিনি জগন্নাথপুর থানায় এলে থানার দায়িত্বরত পুলিশ কর্মকর্তা অন্তস্বত্ত্বা ওই নারীর শারিরিক অবস্থা খারাপ দেখে থাকে হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেন। পরে প্রতিবেশীদের সহায়তায় তিনি হাসপাতালে গিয়ে ভর্তি হন। জগন্নাথপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি ওই নারী জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকম কে জানান, আমি খুব দরিদ্র পরিবারের মেয়ে। আমাকে দেখাশুনা করার কেউ নেই। তাই বাধ্য হয়ে সব নির্যাতন সহ্য করে স্বামীর বাড়িতে ছিলাম। এখন আমি কীভাবে বাঁচব বুঝতে পারছি না। তিনি বলেন, তার স্বামীর প্রবাসী বোন জামাইয়ের অপকর্মের প্রতিবাদ করায় তার ওপর এই নির্যাতন নেমে এসেছে। সালিস বৈঠকে থাকা বাঘময়না গ্রামের সমাজপতি কাজী নজরুল ইসলাম হিরা মিয়া বলেন, ওই নারীর শারিরিক অবস্থা দেখে গ্রামবাসী তাকে স্বামীর বাড়িতে রাখার জন্য অনুরোধ করলেও তিনি তা না মানায় আমরা নিজেরাই বিপাকে পড়েছি। মানবিক দিক বিবেচনা করে অন্তস্বত্ত্বা ওই নারীকে হাসপাতালে ভর্তির ব্যবস্থা করেছি।
জগন্নাথপুর থানার এস.আই আব্দুল কাদির বলেন, ওই নারীর শারিরিক অবস্থা দেখে তাকে হাসপাতালে ভর্তির পরামর্শ দেয়া হয়েছে। পরে তাকে থানায় লিখিত অভিযোগ দিতে বলেছি।
রানীগঞ্জ ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান মজলুল হক বলেন, ঘটনাটি শুনেছি। অমানবিক এঘটনাটি পুলিশকে তদন্ত করে প্রকৃত ঘটনার সুবিচার করতে অনুরোধ করব।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24