বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১১:১৭ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুরে ৫ গ্রামের কৃষকদের উদ্যোগে নলুয়া হাওরে যাতায়াতের একটি সড়কে পাকাকরন কাজ শুরু

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২০ ফেব্রুয়ারী, ২০১৯
  • ৭১ Time View

বিশেষ প্রতিনিধি::
সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুরের সর্ববৃহৎ নলুয়ার হাওরের পশ্চিমাংশের এলাকায় যাতায়াতের একটি সড়কে স্থানীয় কৃষকদের অর্থায়নে পাকাকরণের কাজ শুরু হয়েছে।
গতকাল মঙ্গলবার থেকে জগন্নাথপুর পৌর এলাকার ৫ গ্রামবাসীর অর্থায়নে নলুয়ার হাওরের শেরপুর থেকে হরতাজপুর পর্যন্ত ‘ত্রিশ’ নামের সড়কে এ কাজ শুরু হয়।
স্থানীয় কৃষকরা জানান, নলুয়ার হাওরের পশ্চিম অংশের জগন্নাথপুর পৌর এলাকার শেরপুর থেকে নলুয়ার হাওরের হরতাজপুর পর্যন্ত তিন কিলোমিটার কাঁচা সড়কটি যান চলাচলের অনুপযোগী থাকায় বোরো মৌসুমে কৃষকরা ওই সড়ক দিয়ে ক্ষেত্রের আবাদকৃত বোরো ধান উত্তোলন করতে সীমাহীন দুর্ভোগ পোহাতে হতো। কারণ বোরো ফসল গোলায় তোলার সময় মেঘ-বৃষ্টিতে কাঁচা এ সড়কটি চলাফেরায় অচল হয়ে পড়ে। ফলে পাকাফসল নিয়ে দুর্ভোগে পড়তে হয় কৃষকদের।
কৃষকরা জানান, ওই সড়ক দিয়ে প্রতি বছর জগন্নাথপুর পৌর এলাকার জগন্নাথপুর, ইকড়ছই, ছিলিমপুর, বলবল, ভবানীপুর, যাত্রপাশা গ্রামের কৃষকদের কমপক্ষে লক্ষাধিক মণ বোরো ধান উত্তোলন করেন।
বোরো ধান কাটার সময় বৃষ্টি হলে সড়ক কাঁদাযুক্ত হয়ে পড়ে কোন ধরনের যানবাহন চলাচল করতে পারেনা। কৃষকরা ধান পরিবহন নিয়ে বেকায়দায় পড়েন।
উদ্যোক্তাদের একজন জগন্নাথপুর পৌরসভার সাবেক কাউন্সিলর শেরপুর এলাকবার বাসিন্দা লুৎফুর রহমান জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন, এ সড়ক দিয়ে জগন্নাথপুর পৌর এলাকার ৫ টি গ্রামসহ উপজেলার আরো কয়েকটি গ্রামের কৃষকদের বোরো ধান উত্তোলন হয়ে থাকে। প্রতিবছর ধান আনতে যাতায়াত সুবিধা না থাকায় অবর্ণনীয় দুর্ভোগ পোহাতে হয়। দীর্ঘদিন ধরে আমরা সরকারি অর্থায়নে ডুবন্ত সড়ক নির্মানের দাবি জানিয়ে আসলেও তা বাস্তবায়ন না হওয়ায় কৃষকরা নিজ উদ্যাগে সড়ক পাকা করন কাজ শুরু করেছেন।
পৌর এলাকার যাত্রাপাশা গ্রামের বাসিন্দা পৌরসভার ৯ নং ওয়ার্ড কাউন্সিলর দ্বিপক গোপ জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, শেরপুর, যাত্রাপাশা, ভবানীপুর, বলবল, ইকড়ছই এই ৫ গ্রামের কৃষকরা নিজেদের অর্থায়নে সিমেন্ট, রড ও নগদ টাকা দিয়ে ৫ লাখ টাকার তহবিল সংগ্রহ করেছেন। স্থানীয় একজন ঠিকাদারের মাধ্যমে শেরপুর আকলিছ মিয়ার বাড়ির সামন থেকে ৮০০ ফুট কাজ করা হয়েছে। তারপরও হরতাজপুর পর্যন্ত আরো অবশিষ্ট অংশ অসমাপ্ত থাকবে। কৃষক বকুল গোপ বলেন, আমরা ৫ গ্রামের কৃষকরা নিজেদের অর্থায়নে কিছু অংশের কাজ করছি। অসমাপ্ত কাজ গুলো সরকারিভাবে করার দাবি জানাচ্ছি। না হলে আগামী বছর আরো টাকা তুলে কিছু অংশের কাজ করে এগুবো।
জগন্নাথপুর পৌরসভার প্যানেল মেয়র সফিকুল হক জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,কৃষকদের দাবির প্রেক্ষিতে আমরা নলুয়ার হাওরের শেরপুর থেকে হরতাজপুর পর্যন্ত স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর এলজিইডির মাধ্যমে ডুবন্ত সড়ক নির্মানের দাবি জানিয়েছিলাম। কিন্তু এলজিইডি কর্তৃপক্ষ উদ্যাগ না নেয়ায় কৃষকরা নিজেরাই উদ্যাগী হয়ে কাজ শুরু করেছেন যা নিসন্দেহে প্রশংসনীয়।
স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর জগন্নাথপুর উপজেলা কার্যালয়ের প্রকৌশলী গোলাম সারোয়ার জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডটকমকে বলেন,সাম্প্রতিককালে পরিকল্পনা মন্ত্রীর নির্দেশে ডুবন্ত সড়ক নির্মানের উদ্যাগ নেয়া হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24