মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:৩৭ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুর কালবৈশাখী ঝড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি ঘরের নীচে চাপা পড়ে এক জনের প্রাণহানি

Reporter Name
  • Update Time : রবিবার, ৫ এপ্রিল, ২০১৫
  • ১০৫ Time View

আজিজুর রহমান আজিজ :: জগন্নাথপুরে কালবৈশাখী ঝড়ে ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। কাঁচা ঘরবাড়ির পাশাপাশি বোরো ফসলের খুব বেশী ক্ষতি হয়েছে। বিশেষ করে ব্রিআর ২৮ জাতের ধানের ফলন ঝড়ো হাওয়ায় ঝড়ে গেছে। উপজেলার বিদ্যুৎ ব্যবস্থা ভেঙ্গে পড়েছে। শনিবার রাতে সাড়ে নয়টায় বয়ে যাওয়া কালবৈশাখী ঝড়ে উপজেলার বিভিন্ন গ্রামের সহ্রসাধিক কাঁচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্থ হয়েছে। ঘরের নিচে পড়ে মারা গেছেন পৌর এলাকার শেরপুর গ্রামের নূরজাহান বিবি(৭৫) নামের এক বৃদ্ধা মহিলা। প্রায় ঘন্টাব্যাপী স্থায়ী কালবৈশাখী ঝড়ে উপজেলার বিদ্যুৎব্যবস্থা ব্যপক ক্ষতিগ্রস্থ হয়। গাছপালা পড়ে খুঁিট ও তার ছিড়ে যাওয়ায় বিদ্যুৎ সংযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। কবে বিদ্যুৎ পাওয়া যাবে তা নিশ্চিত করতে পারছেনা স্থানীয় বিদ্যুৎ প্রকৌশল বিভাগ। কালবৈশাকী ঝড়ে জগন্নাথপুর পৌর এলাকার, শেরপুর,ভবানীপুর,যাত্রাপাশা,হবিবনগর,জগন্নাথপুর এলাকায় দুই শতাধিক ঘরবাড়ি দোকানপাট ভেঙ্গে গেছে। শেরপুর গ্রামের ঘরের নীচে চাপা পড়ে মারা যান তছর উল্যার স্ত্রী নূরজাহান বিবি(৭৫)। কৃষক নেতা আফছর উদ্দিন ভূঁইয়া জানান, ব্রি আর-২৮ জাতের ধান পেকে যাওয়ায় আমরা ধান কাটা শুরু করেছিলাম। কালবৈশাখী ঝড়ে ব্রিআর-২৮ জাতের ধানের ফলন ঝড়ে যাওয়ায় ঝড়ে যাওয়ায় আমাদের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। হবিবনগর এলাকার ব্যবসায়ী শাকিল মিয়া জানান, কালবৈশাখী ঝড়ে তার দোকান ঘরটি সম্পূর্ন ভেঙ্গ্ পড়ে গিয়ে মালামালসহ ব্যপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। তিনি জানান, এ ব্যবসার ওপর তার পরিবারের জীবিকা নির্বাহ করে। এখন তিনি দিশেহারা হয়ে পড়েছেন।
রানীগঞ্জ ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মজলুল হক জানান, ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে তিন শতাধিক ঘরবাড়ি চুরমার হয়ে গেছে। অনেকেই খোলা আকাশের নীচে রয়েছেন। চিলাউড়া-হলদিপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আরশ মিয়া জানান, কালবৈশাখী ঝড়ে ৭০টি ঘর পড়ে গেছে বলে প্রাথমিক তালিকায় জানা গেছে। তিনি ব্যক্তিগত উদ্যোগে কিছু সহায়তা ক্ষতিগ্রস্থদের মধ্যে করেছেন। কলকলিয়া ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সাজ্জাদ মিয়া জানান,ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামের শতাধিক কাঁচাঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। আমরা ক্ষয়ক্ষতির তালিকা তৈরী করছি। আশারকান্দি ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আইয়ুব খান জানান, শনিবার রাতে বয়ে যাওয়া কলবৈশাখী ঝড়ে ইউনিয়নের বিভিন্ন গ্রামে কমপক্ষে ৩০/৪০টি ঘর ভেঙ্গে গেছে। গাছপালার ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে বলে তিনি জানান। পাইলগাঁও ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আপ্তাব উদ্দিন জানান, পাইলগাঁও ইউনিয়নে ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। পাইলগাঁও বিএন উচ্চ বিদ্যালয়সহ এ পর্যন্ত প্রাপ্ত খবরে দুই শতাধিক কাঁচা ঘরবাড়ি ভেঙ্গে যাওয়ার খবর পাওয়া গেছে। গাছপালার খুব বেশী ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। পাটলী ইউনিয়নের চেয়ারম্যান সিরাজুল হক জানান, রসুলগঞ্জ বাজারের কয়েকটি দোকান ও বিভিন্ন গ্রামের অর্ধশতাধিক কাঁচাঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে বলে জানা গেছে।
জগন্নাথপুর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মোহাম্মদ হুমায়ুন কবির বলেন, কালবৈশাখী ঝড়ে ক্ষয়ক্ষতির তালিকা প্রনয়ন করতে সকল ইউনিয়ন চেয়ারম্যানদেরকে বলেছি। বিষয়টি আমি সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে জানিয়েছি।
জগন্নাথপুর উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান মুক্তাদীর আহমদ জানান, কালবৈশাখী ঝড়ে উপজেলা জুড়ে ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। আমরা ক্ষতিগ্রস্থ এলাকা ঘুরে দেখছি। ক্ষতিগ্রস্থদের সহায়তা করতে সবাইকে এগিয়ে আসতে হবে।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24