মঙ্গলবার, ১৯ নভেম্বর ২০১৯, ০৬:১৯ পূর্বাহ্ন

জগন্নাথপুর বাজারে চলছে হালখাতার আয়োজন

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ১৫ এপ্রিল, ২০১৫
  • ২১৯ Time View

জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর ডেস্ক:: বাঙালি প্রাণের উৎসব পহেলা বৈশাখ। অতীতে বৈশাখের প্রথম দিনে দেশের ব্যবসায়ীরা বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানের মধ্য দিয়ে হালখাতার আয়োজন করত। অর্থনৈতিক কর্মকন্ডেও হালখাতার গুরুত্ব ছিলে অনেক বেশি। বছরের প্রথম দিন ব্যবসায়ীরা তাদের পুরনো বছরের দেনা-পাওনার হিসাব সমন্বয় করে নতুন খাতা খোলতেন। ক্রেতারা হালখাতার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করতেন। দেনা শোধ করে দোকানি বা ব্যবসায়ী প্রতিষ্ঠান থেকে মিষ্টিমুখে সম্মানিত হওয়ার বিষয়টি ছিল ভোক্তাদের কাছে মর্যাদার। বিষয়টি এতই প্রাণবন্ত ছিল যে, ভোক্তারা বকেয়া শোধ করে হালখাতায় অংশগ্রহণ করতে পারলে নিজেদের সৌভাগ্যবান মনে করতেন।হালখাতা। হিসাব হালনাগাদ করা থেকেই হালখাতা শব্দের উদ্ভব। আর আমাদের দেশে বাংলা সালের প্রথম দিনে আনুষ্ঠানিকভাবে দোকানপাটের হিসাব হালনাগাদ করার প্রক্রিয়াই ব্যবসায়ীদের কাছে পরিচিত হালখাতা হিসেবে। বছরের প্রথম দিনে দেশের গ্রামাঞ্চলসহ বিভিন্ন স্থানের পাইকারি বাজার ও আড়তে আগের বছরের হিসাব-নিকাশের ফয়সালা করেন ব্যবসায়ীরা। একই সঙ্গে নববর্ষের দিন থেকে নতুন খাতায় লেনদেনের তথ্য টুকে রাখতে শুরু করেন। তবে ঐতিহ্যবাহী এ প্রথার জৌলুস এখন আর আগের মতো নেই। তারপর জগন্নাথপুর বাজারের ঘরে ঘরে আজ চলছে হালখাতা উৎসব। মঙ্গলবার জাতীয়ভাবে বছরের প্রথম দিন উদডাপন করা হলেও সনাতন ধমালম্বীরা আজ শুভ নবর্বষ উদযাপন করছেন। সনাতন ধমালম্ভীদের ঘরে ঘরে ধমীয় আনুষ্ঠানিকতার পাশপাশি জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসা প্রতিষ্ঠানগুলোতে চলছে হালখাতা উৎসব। বছরের প্রথম দিন হিসেবে নতুন হিসেব খোলা এবং পুরাতন হিসেব নিকেষকে নতুনভাবে সংযোজন করা হচ্ছে।
হালখাতা নিয়ে আগের মতো মাতামাতি হয় না। দোকান বা ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে নিয়মিত ক্রেতাদের মিষ্টিমুখ করাতে আলাদা আয়োজনের দৃশ্য চোখে পড়ে না। ক্রেতাদেরও পরিবারের কনিষ্ঠ সদস্যদের নিয়ে দোকানে দোকানে গিয়ে লেনদেনের হিসাব চুকিয়ে দিতে খুব বেশী আগ্রহীভাব দেখা যায় না।
তবে ব্যবসায়ীদের সাথে কথা বলে জানা গেছে, হালখাতা উৎসব আয়োজনে ক্রেতাদের কাছ থেকে এখন আর সাড়া পাওয়া যায় না। ব্যস্ত নগরজীবনের জাঁতাকলে ভোক্তারা ওই দিনে দোকানে আসার সুযোগ পান না। এছাড়াও একই দিনে সকল দোকানে ‘হালখাতার আয়োজন করা হলে ক্রেতারা পাওনা টাকা দিতে ব্যর্থ হন। তাই পুরো বৈশাখ মাস জুড়েই চলে হালখাতার উৎসব।

জগন্নাথপুর বাজারের ব্যবসায়ী বকুল গোপ বলেন, ঐতিহ্যবাহী হালখাতার আয়োজন এখন আর আগের মতো জমে উঠে না। কারণ বিক্রেতারা গ্রাহকদের কাছ থেকে সারা না পাওয়ায় আগের মতো এখন আর হালখাতা পালন করা হয় না। আবার একই গ্রাহক বাজারের কয়েক দোকানের ক্রেতা থাকায় বিক্রেতারা একই দিনে (পহেলা বৈশাখ) হালখাতার অনুষ্ঠানের আয়োজন করে না। তবে পুরো বৈশাখ মাস জুড়েই হালখাতা অনুষ্ঠান হয় বলে জানান তিনি।

জানা গেছে, পহেলা বৈশাখের অনুষ্ঠানের মূল আয়োজন থাকতো হালখাতা। দুই দশক আগেও বৈশাখের প্রথম দিনে গ্রামাঞ্চলের হাটবাজারে অবস্থিত ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকরা মূলত এর আয়োজন করতো। অনুষ্ঠানের এক সপ্তাহ আগে থেকেই ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের মালিকরা কার্ডের মাধ্যমে নববর্ষের শুভেচ্ছা জানানোর পাশাপাশি হালখাতার আমন্ত্রন দিতেন। সেই আমন্ত্রণপত্রে বকেয়া অর্থের কথা উলে¬খ থাকতো। আর পহেলা বৈশাখের দিন রঙ-বেরঙের কাগজের নকশা দিয়ে সাজানো হতো ব্যবসা প্রতিষ্ঠানকে। সকাল থেকে প্রতিটি মানুষ তাদের পাওনা পরিশোধ করতে দোকানে আসতেন। তা চলতো রাত পর্যন্ত। আর প্রতিষ্ঠানের মালিকরা মিষ্টি দিয়ে আপ্যায়ন করতেন আগত ক্রেতাদের। এই পরিবেশ আর নেই। আবার কোনো কোনো ব্যবসা প্রতিষ্ঠান বা দোকান মালিক কখনো কখনো হালখাতা করেন বছরের যে কোনো একটা সময়।
জগন্নাথপুর বাজারের শাহজালাল এন্ড জাকারিয়া এন্টার প্রাইজের মালিক জামাল মিয়া তালুকদার বছরের প্রথম দিনের আগেই বণাঢ্য আয়োজনে হালখাতা পালন করেছেন। ব্যবসায়ীরা জানান, হালখাতা পালন করতেন বাংলা পঞ্জিকা অনুযায়ী। পুরনো রীতিতে নতুন বছরে নতুন খাতায় হিসাব খোলেন তারা। যথাসম্ভব আদায় করে নেন পাওনা টাকা। দোকান সাজাতেন বর্ণিল সাজে। পাওনাদার এলেও হাসিমুখে তুলে দিতেন মিষ্টি। এদিন তারা বেচাকেনা ভুলে মেতে উঠতেন আনন্দ-উৎসবে। ক্রেতাদের সাথে ব্যবসায়ীদের সুসম্পক অব্যাহত রাখার একটি প্রয়াস ছিল এধারা।
বিষয়টি স্বীকার করে জগন্নাথপুর বাজার বণিক সমিতির সাধারণ সম্পাদক তাজউদ্দিন আহমেদ বলেন, হালখাতা উৎসব হিন্দু মুসলিম মিলিয়ে সবজনীণ ছিল।নান কারণে ক্রমেই তা ম্লান হতে যাচ্ছে। তবে হিন্দু ব্যবসায়ীরা লাল কাপড়ে বাঁধানো খাতায় এখনও হালখাতার রেওয়াজ ধরে রেখেছেন। তিনি বলেন জগন্নাথপুর বাজারের বিভিন্ন ব্যবসাকেন্দ্রে এখনও হিন্দু-মুসলিম নির্বিশেষে জাঁকজমকভাবে হালখাতার অনুষ্ঠান হয়ে থাকে।
ভারতবর্ষে মোগল সাম্রাজ্যের তৃতীয় সম্রাট জালাল উদ্দিন মোহাম্মদ আকবরের শাসনামল থেকে নতুন বছরের শুরুতে হালখাতার প্রচলন শুরু হয়।

শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ জাতীয় আরো খবর
জগন্নাথপুর টুয়েন্টিফোর কর্তৃপক্ষ কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত © ২০১৯
Theme Dwonload From ThemesBazar.Com
themebasjagannathpur24